হরতাল

সদরুল আইন: বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবীতে বিএনপি ১ দিনের হরতাল দেয়ার চিন্তাভাবনা করছে বলে জানা গেছে। বিষয়টি নিয়ে ২০ দলীয় জোটের শরীক এবং জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সম্মতি পেলে দলের স্থায়ী কমিটির বৈঠকে তা চূড়ান্ত হবে।

বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সূত্রে জানা গেছে, বেগম খালেদা জিয়াকে যদি সহসা যথাযথ সুচিকিৎসা দেয়া না হয় তাহলে তারা একদিনের হরতাল আহ্বান করতে পারে।

জানা গেছে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসায় আলোচনা ফলপ্রসু না হওয়ায় বিএনপি ভিন্নপথে সরকারকে চাপে রাখার কৌশল নিচ্ছে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিএনপির এক সিনিয়র আইনজীবী সংবাদ মাধ্যমকে জানান, আদালতের দোহাই দিয়ে সরকার খালেদা জিয়ার সঙ্গে অবিচার করছেন। যা খুবই দুঃখজনক।

তিনি জানান, সহজ পথে যদি কিছু না হয় তাহলে আমরা বিকল্প পথেই হাঁটবো। হরতাল প্রশ্নে তিনি বলেন, এটি দাবী আদায়ের একটি পন্থা। অতীতে এমন নজির অনেক রয়েছে।

তবে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার বিষয়টি গণদাবী নয় বলেও তিনি মন্তব্য করেন।

তবে তিনি জানান, হরতালের বিষয়টি মাথায় রাখার মূল উদ্দেশ্য হচ্ছে দলের মাঠ পর্যায়ের নেতা-কর্মীদের মনোবল চাঙ্গা রাখা। সে সঙ্গে মাঠের আন্দোলনেরও একটি প্রস্তুতিতে থাকা।

আসন্ন রমজানের আগেই বিএনপি নতুন করে দল গোছানোর কাজে মনোনিবেশ করবে। অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের পূর্ণাঙ্গ কমিটিগুলো যাতে দ্রুত করা হয় সে বিষয়ে সংগঠনগুলোর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকদের ইতিমধ্যে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

এদিকে, জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতা ড. জাফরুল্লাহ বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান সর্ম্পকে নানামুখী মন্তব্য করায় চরম বিব্রত বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব।

মঙ্গলবার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান সর্ম্পকে মন্তব্য করায় দলের মধ্যে এ নিয়ে তোলপাড় চলছে। বিষয়টি নিয়ে বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল আজ যেকোন সময় কথা বলবেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতা ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে।

বিএনপির শীর্ষ নেতৃত্ব মনে করছেন, ড. জাফরুল্লাহর এ ধরনের মন্তব্যে সরকার লাভবান হচ্ছে। তাছাড়া তিনি সব সময়েই বিএনপি নিয়ে নেতিবাচক মন্তব্য করে আসছেন যা বিএনপির জন্য বিব্রতকর।

ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ এবং ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেনকে ড. জাফরুল্লার বিষয়টি নিয়ে ড. কামাল হোসেনের সঙ্গে কথা বলার দায়িত্ব দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।