বুধবার, মে ২৯, ২০২৪
Homeরাজনীতিঅক্টোবরে হচ্ছে না আওয়ামী লীগের সম্মেলন

অক্টোবরে হচ্ছে না আওয়ামী লীগের সম্মেলন

সদরুল আইন: ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের বর্তমান কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী অক্টোবরে। নিয়ম অনুযায়ী অক্টোবরেই সম্মেলন হওয়ার কথা থাকলেও নির্ধারিত ওই সময়ে হচ্ছে না দলটির সম্মেলন।

মূলত সাংগঠনিক দিক বিবেচনায় রেখেই কিছুটা সময় সীমা পেছানো হতে পারে। সেক্ষেত্রে চলতি বছরের নভেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে সম্মেলন হতে পারে বলে দলটির দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে।

আ.লীগ সূত্রে জানা যায়, কেন্দ্রীয় সম্মেলনের আগেই তৃণমূলের নেতাকর্মীদের সাংগঠনিকভাবে আরও শক্তিশালী করতে চায় আ.লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

বিশেষ করে জাতীয় সম্মেলনের আগে জেলা-উপজেলাসহ সব ইউনিটের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটিগুলো ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন করতে চান তিনি।

এজন্য কেন্দ্রীয় নেতাকর্মীদের দায়িত্ব দেন দলীয় সভানেত্রী। তৃণমূলে সম্মেলনের জন্য কেন্দ্রীয় নেতাদের নিয়ে গঠন করা হয় আটটি টিম। নেত্রীর নির্দেশনা পেয়ে দেশের বেশকিছু জেলাতে বর্ধিত সভা করেছেন দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা।

আবার অধিকাংশ মেয়াদোত্তীর্ণ জেলাতে দীর্ঘদিন সম্মেলন না হওয়ার কারণে বেশকিছু সমস্যার মধ্যেও পড়তে হয়েছে দায়িত্বপ্রাপ্তদের।

এজন্য তৃণমূলের নড়বড়ে সাংগঠনিক কাঠামোকে একটি শক্তিশালী রূপ দিতে চায় ৮ বিভাগের দায়িত্বে থাকা সাংগঠনিক টিম।

তাই সময় নিয়ে সংগঠন গোছাতে মনযোগী হয়েছেন তারা। এদিকে মেয়াদোত্তীর্ণ স্থানে নতুন কমিটি গঠনের আগ্রহ থাকলেও দায়িত্বশীল নেতাকর্মীদের কাজের তেমন কোনো অগ্রগতি নেই।

শুধু জেলা-উপজেলায় মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দিয়ে নতুন কমিটি গঠন নয়, পাশাপাশি সৃষ্ট পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে অভ্যন্তরীণ কোন্দল নিরসনের কাজও করছেন তারা।

বিশেষ করে স্থানীয় সরকারের নির্বাচনে স্থানীয় সাংসদ ও সাংসদপন্থি নেতারা নৌকার বিরোধীকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে থাকছেন তারা।

দলটির তৃণমূলের নেতাকর্মীদের নির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করছেন তারা।

ওইসব নৌকাবিরোধীদের বিরুদ্ধে আগামী ২৮ জুলাইয়ের পর থেকে কার্যকরী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন তারা।

এদিকে সারা দেশে শুরু হয়েছে বন্যা। দেশের প্রায় ১৭টি জেলার মানুষ বন্যার পানিতে বন্দি হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন।

এমন অবস্থায় বন্যার্তদের পাশে দাঁড়াতে তৃণমূলে অবস্থান করেছেন আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতারা। বন্যাকবলিত এলাকায় ত্রাণ বিতরণসহ বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করছেন তারা।

তাদের সাথে যুক্ত হয়েছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা। ওইসব কেন্দ্রীয় নেতা দেশের বন্যা পরিস্থিতি উন্নতি না হওয়া পর্যন্ত বন্যাকবলিত এলাকাতেই অবস্থান করবেন।

সূত্রে জানা যায়, ২১তম জাতীয় সম্মেলনকে সামনে রেখে সারা দেশেই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মাঝে আলাদা আগ্রহ তৈরি হয়েছে।

সম্মেলন ঘিরে দলের নেতাকর্মীদের মাঝে আলাদা আগ্রহ তৈরি হলেও এখনো পর্যন্ত পদপ্রত্যাশীদের সবুজ সংকেত দেননি আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

যার ফলে দলের সাধারণ সম্পাদক পদে ডজন খানেক নেতার আগ্রহ থাকলেও এখনো প্রকাশ্যে কাজ শুরু করেননি তারা।

তবে দলের এই শীর্ষ পদে থাকতে অনেকেই কাজ শুরু করেছেন। এসব নানা জটিলতা থাকায় নির্দিষ্ট সময় হচ্ছে না আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন।

তবে নভেম্বরের শেষে সপ্তাহে সম্মেলন করার লক্ষ্যে আগামী ঈদুল আজহার পরই জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনগুলোতে নতুনভাবে মিশনে নামবে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন বলেন, গুঞ্জন বা কানাঘুষা তো কত কিছুই হতে পারে। তবে এ ধরনের কোনো আলোচনা হয়নি।

গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আগামী অক্টোবরে বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হবে এবং নিয়ম অনুযায়ী কাউন্সিল হবে। তবে এ বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি, আগামীতে কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় সিদ্ধান্ত হতে পারে। এরপরই সঠিকটা বলা যাবে।

উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০১৬ সালের ২২ ও ২৩ অক্টোবর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

ওই কমিটিতে সভাপতি বঙ্গবন্ধুকন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক হন ওবায়দুল কাদের।

আজকের বাংলাদেশhttps://www.ajkerbangladesh.com.bd/
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।
RELATED ARTICLES
- Advertisment -

Most Popular

Recent Comments