প্রতিবাদের দিন শেষ, এখন থেকে প্রতিরোধ: টুকু

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেছেন,‘প্রতিবাদের দিন শেষ হয়ে গেছে এখন প্রতিরোধ করতে হবে। জনগণকে সঙ্গে নিয়ে রাস্তায় নামতে হবে। তাছাড়া এই অবস্থা থেকে মুক্তি আমাদের জন্য খুব কঠিন হয়ে যাবে।’
শুক্রবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রধান স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে জাগপার সাবেক সভাপতি অধ্যাপিকা রেহানা প্রধানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত এক স্মরণসভায় তিনি এসব কথা বলেন।
স্মরণসভায় জাগপার সভাপতি ব্যারিস্টার তাসমিয়া প্রধান, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, জাতীয় পার্টি (জাফর) সভাপতি মোস্তফা জামাল হায়দার, কল্যাণ পার্টির চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম বীরপ্রতীক প্রমুখ বক্তব্য দেন।
তিনি বলেছেন,‘আমরা বাংলাদেশের মানুষ আজকে একে একে সব দিয়ে দিয়েছি, কোনো কিছুই আমরা রাখি নাই। উনি (প্রধানমন্ত্রী) ভারতে গেলেন কোনো কিছু নিয়ে আলোচনা করলেন না। অথচ ফেনী নদীর পানি দিয়ে আসলেন। রোহিঙ্গারা কিভাবে দেশ থেকে চলে যাবে সেটা নিয়ে কোনো আলোচনাই হলো না।’
ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বলেন,‘আজকে যেমন আওয়ামী লীগের তথাকথিত শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়েছে। ক্যাসিনো দিয়ে তারা শুরু করেছে। এটাতো মশা। আওয়ামী লীগ যা শুরু করেছে গত ১০ বছরে এগুলো (অভিযান) তো কিছুই না। গ্রামে-গঞ্জে এখন যদি যাওয়া যায় দেখা যায় অনেকগুলো টিনের ঘরের মাঝখানে বড় বড় বিল্ডিং তোলা হয়েছে। এটা কার বাড়ি- কাউকে এটা জিজ্ঞেস করলে বলবে- হয় ছাত্রলীগ, নয় যুবলীগ, নতুবা আওয়ামী লীগ, কৃষকলীগ বা যেকোনো লীগের নেতার এই বাড়ি। অথচ গত ১০ বছর আগে তাদের খাবার পয়সাও ছিলো না।
তিনি বলেন, যদি আওয়ামী লীগকে ক্লিন করতে হয় তাহলে শুধু ক্যাসিনো নামক এই ডিটারজেন্ট দিয়ে ধুইলেই হবে না। এর জন্য আরও শক্ত এবং কড়া ডিটারজেন্ট পাউডার লাগবে। যেটা দিয়ে আওয়ামী লীগ পরিষ্কার হতে পারে। তারপরেও পরিষ্কার হওয়া অনেক কঠিন কারণ আওয়ামী লীগের রন্ধ্রে রন্ধ্রে দুর্নীতি এবং দুঃশাসন রয়ে গেছে। গত এক দশকে দেশে যে দুঃশাসন চলছে যে দুঃশাসনের মাধ্যমে বাংলাদেশের নাগরিকদের অধিকার একটি একটি করে হরণ করা হচ্ছে। মানুষের ভোটাধিকারসহ প্রত্যেকটি অধিকারকে হরণ করা হচ্ছে। এমন একটি দেশে এই মুহূর্তে শফিউল আলম প্রধান এবং অধ্যাপিকা রেহানা প্রধানের খুব দরকার ছিল।
আজকে আমাদের দেশের সম্পদ বিকিয়ে দেয়া হচ্ছে। আমাদের দেশের পানি ভারতকে দিয়ে দেয়া হচ্ছে। আমরা কোনদিন শুনি নাই ভারতের সাথে যে অভিন্ন নদী আছে তার মধ্যে ফেনী নদী একটি। ফেনী নদী কোন দিনই অভিন্ন নদী ছিল না ফেনী নদী আমাদের নদী। সেই ফেনী নদীর পানিগুলো নাকি মানবিক কারণে দিয়ে আসলো। আমার প্রশ্ন মানবিক কারণে ভারতকে পানি দেয়া হলো, অথচ আমাদের উত্তরাঞ্চলের মানুষগুলো পানির খরায় জমিতে ফসল চাষ করতে না পেরে সুদূর চট্টগ্রামে গিয়ে মজুদদারি করে। তাদের জন্য আপনার মানবিক কারণ মনে হয় না। তাদের জন্য মানবিক কারণে তিস্তার পানি নিয়ে আসতে পারেন না?
তিনি বলেন,‘আমাদের বলা হয় আমরা নাকি ভারত বিরোধী। কিন্তু আমরা কোনদিনও ভারতবিরোধী নই। আমরা বাংলাদেশের পক্ষে জাতীয় স্বার্থের জন্য যেখানে আমরা বাধা পাব সেটার বিরোধীতা করবো। বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান আমাদেরকে এটা শিখিয়েছেন।
আইনশঙ্খলা বাহিনীর সমালোচনা করে টুকু আরও বলেন, আজকে সরকারের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর নাকের ডগায় ক্যাসিনো চলছে অথচ উনারা নাকি দেখেন না। তারা দেখবেন কি করে উনারা তো ব্যস্ত আছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা কোথায় আছেন কিভাবে আছেন কিভাবে তাদেরকে গ্রেফতার করা যায় অন্যায় ভাবে মামলা দেয়া যায়, সেটা নিয়ে। তাদের আইনের শাসন মানে বিএনপিকে দমন, বিরোধীদলকে দমন।