ফিরোজ সুলতান: ভাষ্কর্য নিয়ে কোনো কথা বলব না, কারণ ভাষ্কর্য কোনো ইস্যুই না, আমি বা আমরা দেশের সাধারন মানুষ কথাই বলতে পারছিনা সেটাই বড় ইস্যু। গণতন্ত্রহীনতা ও তা প্রতিষ্ঠাই বিএনপির আন্দোলনের মূল ইস্যু বলে মন্তব্য করেন বিএনপির মহাসবচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

মঙ্গলবার (৮ ডিসেম্বর) সকালে তিনি ঠাকুরগাঁওয়ের কালিবাড়িস্থ নিজ বাস ভবনে সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

ভাষ্কর্য ইস্যু নিয়ে চলমান গোলোযোগের জন্য বিএনপি দায়ী, আওয়ামী লীগের এ অভিযোগের জবাবে বিএনপি মহাসচিব এ প্রশ্নে আওয়ামী লীগের ভূমিকাকে ‘ডাবল স্ট্যান্ডার্ড’ উল্লেখ করে তিনি অভিযোগ করেন, বিগত নির্বাচনে মৌলবাদী দলগুলোর সাথে আওয়ামীলীগ জোট গঠন করে এবং ফতোয়া দেয়া যাবে এই মর্মে চুক্তিও করে। বিএনপি মৌলবাদে নয় গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে। তিনি দেশে মৌলবাদের সা¤প্রতিক উত্থানের জন্য আওয়ামী লীগ সম্পূর্ণ দায়ী বলে উল্লেখ করেন।

দেশে বাকস্বাধীনতাকে হরণ করছে সরকার উল্লেখ করে তিনি বলেন, গণ মাধ্যমের কন্ঠরোধ করে ধরছে সরকার, প্রথম আলোর সম্পাদকের বিরুদ্ধে হত্যা মামলার চার্জশিট দেয়া হয়েছে, ফটো সাংবাদিকসহ অনেক সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা দিয়ে তাদেরকে চাপে রাখা হচ্ছে যাতে করে তারা আওয়ামী সরকারের দুঃশাসনের কথা জনগণের সামনে তুলে ধরতে না পারেন।

চলমান পৌরসভা নির্বাচনের প্রশ্নে তিনি বলেন, দেশে এই নির্বাচন কমিশন ও আওয়ামী লীগের অধীনে নির্বাচন যা হয় তা ই হচ্ছে। তবুও আমরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি এ কারণে যে বিএনপি একটি গণতন্ত্রে ও নির্বাচনের মাধ্যমে ক্ষমতা পরিবর্তনে বিশ্বাসী রাজনৈতিক দল। একদিকে নির্বাচনের মাধ্যমে আমরা জনসাধারণের কাছে যাওয়ার সুযোগ পাই অন্যদিকে এটা আমাদের চলমান গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আন্দোলনের অংশ।

চিনি কল বন্ধের বিষয়ে তিনি মন্তব্য করে বলেন, সরকার কোন কথা ছাড়াই কয়েকটা মিল বন্ধ করে দিয়ে কৃষক-শ্রমিকদের অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে ঠেলে দিয়েছে। আমরা দাবি জানাচ্ছি অবিলম্বে মিল গুলোকে চালু করা হোক। আমি মনে করি কৃষিতে ভুর্তকি দেয়া দরকার এবং একি সঙ্গে কৃষি ভিত্তিক যে শিল্প গুলো রয়েছে সেখানেও ভুর্তকি দিয়ে আধুনিকায়ন করা দরকার।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মির্জা ফয়সল আমীন, সহ-সভাপতি আব্দুল্লাহ আল মামুন, অর্থ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম শরিফ, ছাত্রদলের সিনিয়র সহ-সাধারণ সম্পাদক রেজু প্রমুখ।