জয়নাল আবেদীন: বাণিজ্যমন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা টিপু মুনশি বলেছেন ‘বিএনপি তাদের নেতা (জিয়াউর রহমান) কে মুখে মুক্তিযোদ্ধা বললেও মনে তা ধারণ করে না বলেই তারা মুনাফিক’। তিনি বলেছেন, বিএনপি কোনো অবস্থাতেই মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের নন।

তারা মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষে কথা বলে না। তারা ঢালাও ভাবে শুধু সরকারের বাজেটের বিরোধিতা করে। শেখ হাসিনার সরকার মুক্তিযোদ্ধাদের কষ্ট লাঘবে সম্মানি ২০ হাজার টাকা করে দিয়েছে। এটা নিয়ে তো মুক্তিযোদ্ধার দল দাবিদার বিএনপি কোনো কথা বলেনি। তারা মুখে তাদের নেতাকে মুক্তিযোদ্ধা দাবি করলেও মনের ভিতরে তা ধারণ করে না। এটা হলো মুনাফিক।শনিবার দুপুরে রংপুর টাউন হল মিলনায়তনে মুক্তিযোদ্ধাদের স্মৃতি কথা সম্বলিত ‘স্মৃতিতে রণাঙ্গন’ ঊনয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। রংপুর মহানগরের ৭২ জন মুক্তিযোদ্ধার স্মৃতিবিজড়িত মুক্তিযুদ্ধের কথা বইটিতে উপস্থাপন করা হয়েছে ।

জেলা প্রশাসন ও মুক্তিযোদ্ধা সংসদ জেলা ইউনিট কমান্ডের এ অনুষ্ঠানটির আয়োজন করে। একাত্তরের সম্মুখযুদ্ধে পরাজিতরা বাংলাকে পাকিস্তান করার স্বপ্নে বিভোর হয়ে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছেন দাবি করে টিপু মুনশি বলেন, ১৫ আগষ্টের পর জয়বাংলার পরিবর্তে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ শ্লোগানে প্রথমেই মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উপর আঘাত করেন স্বাধীনতা বিরোধীরা। যে শ্লোগান দিয়ে আমরা মুক্তিযোদ্ধারা যুদ্ধ করলাম। পনেরো আগষ্ট মুহূর্তের মধ্যে সেই জয়বাংলা শ্লোগান হয়ে গেল বাংলাদেশ জিন্দাবাদ।তিনি বলেন এটা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মধ্য দিয়ে আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উপর করা প্রথম আঘাত।টিপু মুনশি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করে পাকিস্তান প্রীতিকে জাগিয়ে রেখে বাংলাদেশকে ২১ বছর পিছনে ফেলে রাখা হয়েছিল। কিন্তু সেই বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই বাংলাদেশ উন্নয়নে বিশ্বের মডেল। পাকিস্তান এখন বাংলাদেশের চেয়ে সব সূচকে পিছনে পড়ে গেছেন। আমাদের রিজার্ভ যখন ৪৮ মিলিয়ন ডলার, তখন পাকিস্তাননে অর্ধেক। প্রতিটা ক্ষেত্রে বাংলাদেশ এখন পাকিস্তানের চেয়ে এগিয়ে।মুক্তিযুদ্ধের প্রশিক্ষণ ক্যাম্পের স্মৃতিচারণ করে বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধার মৃত্যুর সঙ্গে সঙ্গে একেকটি ইতিহাসের স্বাক্ষীর মৃত্যু ঘটছে। তাই স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস পরবর্তী প্রজন্মকে জানাতে হবে। বঙ্গবন্ধুর লেখা কারাগারের রোজনামচা, অসমাপ্ত আত্মজীবনীসহ তাকে নিয়ে লেখা যত বই আছে নতুন প্রজন্মসহ সকলকে তা পড়তে উদ্বুদ্ধ করতে হবে।

জেলার সেবক রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসানের সভাপতিত্বে মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মোহা: আবদুল আলীম মাহমুদ, জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মমতাজ উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রাজু, জেলা সাবেক মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার বীর মুক্তিযোদ্ধা মোছাদ্দেক হোসেন বাবলু, মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি সাফিয়ার রহমান সফি, সাধারণ সম্পাদক তুষার কান্তি মন্ডল। পরে প্রধান অতিথি বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি উপস্থিত বীর মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে মোড়ক উন্মোচিত স্মৃতিতে রণাঙ্গন বইটি তুলে দেন।

Previous articleচাঁপাইনবাবগঞ্জের গোমস্তাপুরে ব্যবসায়ীর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার
Next articleমুলাদীতে কর্মকর্তার অবহেলায় বিদুৎস্পৃষ্টে শ্রমিকের মৃত্যু
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।