বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কয়েকজন দায়িত্বশীল রাজনৈতিক নেতা এবং সরকারি কর্মকর্তা ‘দায়িত্বহীন এবং কাণ্ডজ্ঞানহীন’ বক্তব্য রেখে চলেছেন বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন- সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘কোনো দায়িত্বশীল ব্যক্তি.. তিনি রাজনীতি কিংবা প্রশাসনের যেই-ই হোন দায়িত্বহীন বক্তব্য সমীচীন নয়। দেশের বিভিন্ন ইস্যুতে লক্ষ্য করা যাচ্ছে, কোন কোন রাজনীতিবিদ, জনপ্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাকর্তাদের কেউ কেউ সভা,সমিতি, সেমিনারে তাদের দায়িত্বের সীমারেখা অতিক্রম করে বক্তব্য রাখছেন, মন্তব্য করেছেন; যা মোটেই শোভন নয়।’

বক্তব্য দেওয়ার সময় নিজস্ব পরিমণ্ডল বিবেচনার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, ‘রাজনীতিবীদ কিংবা সরকারি কর্মকর্তা সবারই একটি সুনির্দিষ্ট সীমারেখা আছে,আচরণ বিধি আছে, সকলের এ সীমারেখা মেনে চলা অতি আবশ্যক।’

ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের কারও কারও অতি-উৎসাহী এবং বাড়তি কথা বা বক্তব্যে জনমনে ভুল মেসেজ যেতে পারে, যা দেশের জন্য মোটেই শুভ নয়।’

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের শুক্রবার সকালে তার বাসভবনে ব্রিফিংয়ের সময় এসব কথা বলেন।

গত বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দফার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৬৫ থেকে ৭০ শতাংশ ভোটারের উপস্থিতি ছিল। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিভিন্ন স্থানে কিছু প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে, অনেকে আহত হয়েছে।

নির্বাচনে বিশৃঙ্খলা নিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘পরবর্তী ধাপের নির্বাচনে যাতে এমন অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি সৃষ্টি না হয়, সেদিকে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।নির্বাচনের অনুকুল পরিবেশ ধরে রাখার জন্য নির্বাচন কমিশন ও আইনপ্রয়োগকারী সংস্থাসমূহকে সর্বোচ্চ সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানাই।’

শেখ হাসিনা সরকারের বিরুদ্ধে অন্ধ সমালোচনা করা বিএনপির এখন ‘প্রতিদিনের রাজনৈতিক দায়িত্ব’ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, ‘জনগণ ও দেশের জন্য তারা কিছু করতে না পারলেও মিথ্যাচার আর অপপ্রচারের কাজটি সুনিপুণ ভাবে করে যাচ্ছেন। চূড়ান্ত বিচারে এসব অপপ্রচার বিএনপির বিরুদ্ধেই যাবে এবং যাচ্ছে, যা তারা এখনো বুঝতে পারছে না। এসব সত্য বিএনপি যত তাড়াতাড়ি বুঝতে পারবে ততই তাদের জন্য মঙ্গল।’

বিচার ব্যবস্থা নিয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীররের মন্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘বিএনপি মহাসচিব সেই পুরনো ভাঙা রেকর্ড বাজাচ্ছেন আর বলছেন বিচারব্যবস্থা নাকি দলীয়করণ করা হয়েছে, নির্বাচন ব্যবস্থাকে ধ্বংস করা হয়েছে। তাদের সমালোচনার এসব পুরনো হাতিয়ার এখন ভোঁতা হয়ে গেছে। এসব বিএনপির ধারাবাহিক কল্পিত অভিযোগের চর্বিত-চর্বন মাত্র।’

দেশের বিচারবিভাগ স্বাধীনভাবেই কাজ করছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ‘বিচারের রায় বিএনপির পক্ষে গেলে বলে বিচার বিভাগ স্বাধীন আর বিপক্ষে গেলে, বলে সরকারের হস্তক্ষেপের অভিযোগ। এসব তাদের পুরনো অভ্যাস। বিএনপির নীতি হচ্ছে বিচার মানি কিন্তু তালগাছ আমার।’

নির্বাচন কমিশন নিয়ে বিএনপির সমালোচনার জবাবে তিনি বলেন, ‘বিএনপি নির্বাচনে জয়ী হলে বলে আরও বেশি ভোটে জয়ী হতে পারত। আর হারলে বলে নির্বাচন কমিশন নিরপেক্ষ নয়। বিএনপির কাছে নিরপেক্ষ কমিশন মানে হচ্ছে নির্বাচনে জয়লাভের গ্যারান্টি প্রদান।’

Previous articleরোগীর বদলে অ্যাম্বুলেন্সে গাঁজা পরিবহন, গ্রেপ্তার ৫
Next articleটি সেল নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ উদ্ভাবন, সব করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর টিকা আসছে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।