সুমন গাজী: সুমন গাজীঃ বঙ্গবন্ধু ও শহীদ বীর মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে মন্তব্য করার পর গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম দলীয় পদ হারানোর পর শনিবার দুপুরে নিজ বাসভবন চত্বরে সাংবাদিকদের নানা প্রশ্নের জবাবে দেয়ার সময় কেঁদে ফেললেন। এসময় উপস্থিত নেতাকর্মীরা ও কান্না ধরে রাখতে পারেননি।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, তিনি তখন ছাত্র রাজনীতি শুরু করেন, তখন থেকেই তার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। পরবর্তীতে ও আমার বিরুদ্ধে চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র থামেনি। তারই
অংশ হিসেবে আমার বক্তব্যের একটি অংশ সুপার এডিট করে তার তার মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্যের ভিডিও এবং অডিও করে ইন্টারনেটে ভাইরাল করা হয়েছে। ষড়যন্ত্র কারীরা আমার সম্পর্কে ভুলভাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে উপস্থাপন করেছেন।

প্রধানমন্ত্রীর যে কোন সিদ্ধান্ত মে‌নে নেবেন জানিয়ে মেয়র জাহাঙ্গীর আলম বলেন, প্রধানমন্ত্রীকে ভুল তথ্য দিয়ে আমাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে। যাতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি আর যেতে না পারি।

আমি যদি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে সরাসরি আমার ওই অডিও/ ভিডিওর বিষয়ে কথা বলতে পারতাম তবে প্রধানমন্ত্রী সবকিছু বুঝতে পারতেন। তখন তিনি হয়তো আমার ব্যাপারে এমন কঠোর সিদ্ধান্ত নিতেন না। তাই তিনি দল থেকে তাকে বহিষ্কারের বিষয়টি পূনর্বিবেচনার অনুরোধ জানিয়েছেন। তিনি এ ব্যাপারে রিভিউ আবেদন করবেন বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন।

মেয়র আরো বলেন, আমার ভুল হতে পারে। ভুলের জন্য আমি ক্ষমা চাই। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেন আমাকে পুনরায় বিবেচনা করেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ যেন বিবেচনা করে। আমি আওয়ামী লীগের একজন সমর্থক হিসেবে থাকতে চাই।

মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম আরো বলেন, আমাকে তিন বছরের জন্য ওই পদ দেয়া হয়েছে। আমাকে বহিষ্কার করে আমার, আমার পরিবারের এবং আমার অস্তিত্বের মধ্যে যে আঘাত দেয়া হয়েছে সেটা আমি মানসিকভাবে মেনে নিতে পারছিনা। আমার ভুল হতে পারে, কিন্তু আমি কোনো পাপ ও অন্যায়ের সাথে জড়িত না। মানুষেরই ভুল হয়।

তিনি বলেন, এই তিন বছর আমি কোথাও চিফ গেস্ট হতে চাইনি। আমি রাস্তার ধারে ধারে ঘুরে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সহযোগিতায় মানুষের জন্য কাজ করেছি। আমার মায়ের স্থান মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমি আকুল আবেদন করবো গাজীপুরবাসীর জন্য এবং আমার জন্য।
তিনি আরো বলেন, আমার বুঝ হওয়ার পর থেকেই আমি বাংলাদেশ ছাত্রলীগ এবং আওয়ামী লীগের সাথে আছি। অনেকেই না বুঝে হয়তো আমার সমালোচনা করতে পারেন। আমার অস্তিত্বের মধ্যে সব জায়গায় রয়েছে মাননীয় বঙ্গবন্ধু ও প্রধানমন্ত্রীর আদর্শ স্থান।
বঙ্গবন্ধুর জন্য আওয়ামী লীগের জন্য এবং প্রধানমন্ত্রীর জন্য যদি আমাকে জীবন দিতে হয় আমি দেব। আমার অনুরোধ আমাকে যেন মিথ্যা কিছুর মধ্যে জড়িত না করা হয়। মিথ্যা অপবাদ যেনো না দেয়া হয়।

মেয়রের বিরুদ্ধে নানান অভিযোগ ওঠায় শুক্রবার (১৯ নভেম্বর) গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলমকে গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ থেকে এবং আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার করা হয়।
এসময় গাজীপুর সিটি করপোরেশনের বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের কর্মী-সমর্থকরা উপস্থিত ছিলেন।
মেয়রের বহিষ্কারের কথা শোনার পর শুক্রবার রাত থেকেই মেয়রের বাসায় নেতাকর্মীদের ভিড় জমতে থাকে। শনিবার সকালে ও মহানগরের বিভিন্ন এলাকা থেকে দলীয় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে মেয়রের বাসভবনে হাজির হন। এক পর্যায়ে দুপুরে সাংবাদিকদের সাথে বহিষ্কারাদেশ নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আবেগপূর্ণ কথা বলার সময় মেয়েরের সঙ্গে দলীয় নেতাকর্মীরাও কেঁদে ওঠেন।

Previous articleগাইবান্ধায় বালু উত্তোলনকে কেন্দ্র করে হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে গ্রেফতার করেছে রংপুর র‌্যাব
Next articleখালেদা জিয়ার মুক্তি এবং বিদেশে সু-চিকিৎসার দাবিতে রংপুরে বিএনপির গণঅনশণ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।