বাংলাদেশ প্রতিবেদক: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল-বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু বলেছেন, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া যদি ওয়ান ইলেভেনের সরকার জেনারেল মঈন আহমেদদের সাথে আপস করতেন তাহলে তিনি বর্তমানে দেশের প্রধানমন্ত্রী থাকতেন।

শনিবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপি’র কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ‘জিয়া পরিষদ’ এর উদ্যোগে বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও সুস্থতা কামনা এবং জিয়া পরিষদের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান মরহুম কবীর মুরাদের ২য় মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে তিনি এ মন্তব্য করেন ।

বিএনপি’র এই ভাইস চেয়ারম্যান বলেন, ‘জেনারেল মঈনদের সরকার ছিল ভারতের সেবাদাস। তারা গায়ের জোরে সংবিধানকে তছনছ করে ক্ষমতায় ছিলো। আর তাদের সকল অপকর্মকে বৈধতা দিয়ে, তাদের সাথে আপস করে বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ বিনা ভোটে জোর করে ক্ষমতা দখল করে আছে । জেনারেল মঈনরা যেভাবে বেগম খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে শেষ করতে চেয়েছিল একইভাবে বর্তমান নিশিরাতের সরকার তাকে রাজনীতি থেকে অপসারণ করতে চাচ্ছে । কিন্তু জনগণ সেই সুযোগ আর বেশীদিন দেবে না।’

তিনি বলেন, ‘দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে আমরা আপসহীন নেত্রী বলি। তিনি অন্যায়ের সঙ্গে আপস করেননি। তিনি আজকে কারাগারের মধ্যে আছেন। দীর্ঘ প্রায় তিনটি বছর তাকে অন্যায়ভাবে বন্দি করে রেখেছে এ সরকার। তিনি (খালেদা জিয়া) জেনারেল মঈন উদ্দীনের সঙ্গে আপস করলে এখন প্রধানমন্ত্রী থাকতেন।’

মুজিববর্ষের অনুষ্ঠানে মুজিব বানানের ভুল ও শপথবাক্য পাঠের সমালোচনা করে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘কী অদ্ভুত বিষয় সেই অনুষ্ঠানে মুজিববর্ষ বানান ভুল লেখা হয়েছে কিন্তু কেন ভুল হয়েছে তার কোনো যৌক্তিক কারণ বলা হয়নি। তার সামনে দাঁড়িয়ে আমাদের প্রধানমন্ত্রী এবং তার বোন শপথবাক্য পাঠ করেছেন। যেখানে নামই ঠিক নেই সেখানে কী শপথ ঠিক আছে? অশুদ্ধ বানানে শপথ কী শুদ্ধ হয়? সেজন্য অনেকেই বলেছেন যিনি নিজেই বৈধ না তার নিজেরই শপথ ঠিক নেই তাহলে অন্যের শপথ তিনি কীভাবে পাঠ করান?’

কবির মুরাদের স্মৃতি স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়া যখন যেটা করেছেন সেটারই স্বপক্ষে ছিলেন কবির মুরাদ। কোনো অবস্থাতেই তিনি বাইরে যাননি। যার কারণে অনেক সময় তার ওপর নির্যাতন নেমে এসেছিল।’

আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে জিয়া পরিষদের চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা অধ্যাপক ডা. আব্দুল কুদ্দুসের সভাপতিত্বে আরো উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. শফিকুল ইসলাম, মহাসচিব প্রফেসর ড. মো. এমতাজ হোসেন, আব্দুল্লাহিল মাসুদ, ইঞ্জিনিয়ার রহুল আলম, প্রফেসর আবু জাফর খান, ইঞ্জিনিয়ার শরিফুজ্জামান খান, রবিউল ইসলাম, শহিদুল ইসলাম শহীদ প্রমুখ ।

Previous articleঈশ্বরদীতে পরিবার কল্যাণ সেবা ও প্রচার সপ্তাহের উদ্বোধন
Next articleঈশ্বরদীতে কৃষি জমিতে অতিমাত্রায় সার, কীটনাশক ও লবণের ব্যবহার
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।