বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জে নার্স হত্যায় জড়িতদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ছোট ভাই কাদের মির্জা।

মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে উপজেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে বসুরহাট বাজারের জিরো পয়েন্টে কোম্পানীগঞ্জের সরকারি মুজিব কলেজের স্নাতকের শিক্ষার্থী ও নার্স শাহনাজ পারভীন প্রিয়তা হত্যার প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সভায় তিনি এ দাবি করেন।

এ সময় কাদের মির্জা বলেন, গত এক বছর থেকে কোম্পানীগঞ্জে সন্ত্রাস চলছে। মনে হয় এ এলাকার কোনো অভিভাবক নেই। আজকে প্রশাসন এখানে সকল নৈরাজ্যের সাথে জড়িত। প্রশাসনের ছত্রছায়ায় সন্ত্রাসীরা আমাকে গুলি করেছে। প্রকৃত অপরাধীরা পুলিশের নাকের ডগায় ঘুরে বেড়াচ্ছে, থানায় অবস্থান করছে। পুলিশ আজকে জনগণের অতন্ত্র প্রহরী না হয়ে জনগণের ওপর অত্যাচার করছে। কোম্পানীগঞ্জে আইন-শৃঙ্খলার অবনতি হয়েছে।

অভিযোগের সুরে বড় ভাই ওবায়দুল কাদেরকে উদ্দেশ্য করে কাদের মির্জা বলেন, যদি কোম্পানীগঞ্জের এগুলোর বিচার না করা হয়, তাহলে আপনাকে সব দায়-দায়িত্ব নিতে হবে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা চেয়ারম্যানকে সমস্ত দায়ভার গ্রহণ করতে হবে। কোনো অবস্থায় ছেড়ে দেয়া হবেনা।

উল্লেখ্য, নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলার বাটইয়া ইউনিয়নের ৬ নম্বর ওয়ার্ডের নুরনবীর মেয়ে শাহনাজ পারভীন প্রিয়তা কোম্পানীগঞ্জ সরকারি মুজিব কলেজের অনার্স পরীক্ষার্থী ছিলেন। তার পাশাপাশি বসুরহাট মডার্ন প্রাইভেট হাসপাতালে নার্স হিসেবে কর্মরত ছিলেন। হাসপাতালে তার ডিউটি ছিল সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত। কিন্তু রোববার রাতে তিনি বাসায় ফিরেননি। এ সময় তার মোবাইল ফোনটি বন্ধ থাকে। পরের দিন সোমবার সকাল ১০টায় বসুরহাট পৌরসভার ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইয়াছিন মোল্লার বাড়ির পেছনে তার নানার বাড়ির পাশে একটি ধান ক্ষেত থেকে তার লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এলাকাবাসীর ধারণা, তাকে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা লাশ ধান ক্ষেতে রেখে পালিয়ে গেছে। তাৎক্ষণিক এ হত্যার কোনো কারণ জানাতে পারেনি পুলিশ।

স্থানীয় বাসিন্দা শাহরিয়ার শিপন জানান, স্থানীয় কয়েকজন যুবক সকাল ১০টার দিকে বাড়ির পাশের ধান ক্ষেতে ক্রিকেট খেলতে গেলে ওই লাশ পড়ে থাকতে দেখেন। এরপর খবর পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দারা ঘটনাস্থলে এসে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে আসে।

নিহত প্রিয়তার বাবা নুরনবী জানান, প্রিয়তা আমার বড় মেয়ে। পড়া-লেখার পাশাপাশি বসুরহাট মডার্ন হাসপাতালে নার্সের চাকরি করত। সকাল ৮টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত তাঁর ডিউটি ছিল। গতকাল রাত ৮টার পরে প্রিয়তার মামী তার মুঠোফোনে কল দিলে ফোন বন্ধ পাওয়া যায়। তখন তারা ভাবে আজকে হয়ত সে আর আসবে না। প্রিয়তা হাসপাতালের মেয়েদের সাথেও মাঝে মাঝে একটি বাসায় থাকত। আবার নানার বাড়ি কাছে হওয়ায় প্রায় সে নানার বাড়িতেও থাকত।

কোম্পানীঞ্জ থানার উপ-পুলিশ পরিদর্শক (এসআই) রতন মিয়া ঘটনাস্থল থেকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন। তিনি আরো জানান, নিহত যুবতীর মুখে আঘাতের চিহৃ রয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, তার শরীরের আরো আঘাতের চিহৃ থাকতে পারে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কোম্পানীগঞ্জ থানার পরিদর্শক (তদন্ত) এস এম মিজানুর রহমান বলেন, ময়নাতদন্তের জন্য তার লাশ ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট নোয়াখালী জেনারেল হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে পেলে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা যাবে। পুলিশ এ হত্যার রহস্য উদ্ঘটনে চেষ্টা চালাচ্ছে। এ ঘটনায় আইনি বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

Previous articleনারায়ণগঞ্জ ফ্ল্যাট বাসায় মা-মেয়ে খুন
Next articleগির্জার মধ্যে ৩ সন্তানসহ ৪ জনকে হত্যার পর বাবার আত্মহত্যা
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।