স্বপন কুমার কুন্ডু: পাবনা-৪ আসনের সংসদ সদস্য বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নূরুজ্জামান বিশ্বাস বলেছেন, ‘পদ্মা সেতু বাঙালির গর্বের ও অহংকারের প্রতীক। পদ্মা সেতু ছিল স্বপ্নের মতো, যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দৃশ্যমান করেছেন। পদ্মা সেতু বাংলাদেশকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে গেছে। নিজস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু নির্মাণ বিশ্বের বুকে বাংগালি জাতি এবং বাংলাদেশের মর্যাদা বাড়িয়েছে। আজ প্রমাণ হয়েছে বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনা যে ওয়াদা করেন, তা বাস্তবে রূপদান করেন। শেখ হাসিনার মতো ভিশনারি লিডারশীপ আছে বলেই দেশকে দ্রুত এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।’

 

শনিবার (১৮ জুন) বিকেলে পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষ্যে আওয়মী লীগের নেতা-কর্মীদের সাথে মতবিনিময়কালে তিনি এসব কথা বলেন।

 

উপজেলা আওয়ামী লীগর সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব নায়েব আলী বিশ্বাস, সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আবুল কালাম আজাদ মিন্টু, পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মেয়র ইছাহক আলী মালিথাসহ উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক নেতা-কর্মী এসময় উপস্থিত ছিলেন।

 

২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের দিনে ঈশ্বরদীতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের আহব্বান জানিয়ে এমপি বিশ্বাস আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমাদের চাওয়ার কিছু নেই, না চাইতেই তিনি আমাদের যা দিয়েছেন এ জন্য আমরা ঈশ্বরদী ও আটঘোরিয়াবাসী তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। তিনি অসম্ভবকে সম্ভব করে দেখিয়ে দিয়েছেন। পদ্মা সেতু ছিল এক রকম স্বপ্নের মতো, যা তিনি দৃশ্যমান করেছেন। শেখ হাসিনা শুধু স্বপ্ন দেখেনই না, তা বাস্তবায়নও করেন।

 

তিনি বলেন, শেখ হাসিনার ভিশনারি নেতৃত্বের কারণে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নশীল রাষ্ট্রের স্বীকৃতি পেয়েছে। ঈশ্বরদীতে দেশের বৃহত্তম বাজেটের রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মান কাজ দ্রুত গতিতে এগিয়ে চরেছে। দেশে অর্থনৈতিক অঞ্চল করা হচ্ছে। সেখানে এক কোটি মানুষের কর্মসংস্থান হবে। ৫০ বিলিয়ন ডলার রপ্তানি আয় বাড়বে। এ ধারা অব্যাহত থাকলে আমরা ২০৪১ সালের আগেই আমরা উন্নত বাংলাদেশ দেখতে পাবো।

 

মুজিব বাহিনীর আঞ্চলিক প্রধান বিশ্বাস বলেন, বাংগালি তার অর্থনৈতিক মুক্তির পথে যখন একটি গুরুত্বপূর্ণ মাইল ফলক অতিক্রম করতে যাচ্ছে, ঠিক সেই সময়ে বিএনপি এবং তার মিত্ররা হিংসা আর ক্ষোভের আগুনে জ্বলে পুড়ে ছাড়খাঁর হচ্ছে । বাংলাদেশের এই মহা অর্জনের উৎসবকে তারা ম্লান করার লক্ষ্যে নাশকতার আশ্রয় নিয়েছে। জাতির গৌরবের এই মহা অর্জন উদযাপনের ঐতিহাসিক ঘটনাটিকে নস্যাৎ করাই তাদের উদ্দেশ্য। এরা দেশের শত্রু, এরা জাতীয় স্বার্থকে বিপন্ন করতে চায়, এরা বার বার মানবতার উপর আঘাত করতে চায়। সময় এসেছে এদের প্রতিরোধের । মানবতা বিরোধী এই দুষ্টচক্রকে আমাদের রুখে দিতে হবে । জাতীয় স্বার্থ রায়, মানুষের জীবন- জীবিকা রায় এই অপশক্তির বিরুদ্ধে সকলকে প্রস্তুত থাকতে হবে। তবে এই অপশক্তিকে রুখে দেয়ার শক্তি ও সামর্থ্য আমাদের রয়েছে। এই অপশক্তিকে সামাজিকভাবে মোকাবেলা করতে হবে। এখন সময় এসেছে এদের বর্জন করার।

Previous article‘১২২ বছরের ইতিহাসে সিলেট ও সুনামগঞ্জে এমন বন্যা হয়নি’
Next articleমাওয়ায় শিমুলিয়া-মাঝিকান্দি নৌরুটে ২ ফেরির মুখোমুখি সংঘর্ষ, নিহত ১
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।