জয়নাল আবেদীন: দেশে আজ গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা ও ভোটাধিকার নেই। দেশের এই সংকটময় পরিস্থিতিতে একটি অবাধ, সুষ্ঠ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের জন্য নির্বাচনকালীনি নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের বিকল্প নেই। আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। গণতন্ত্র, বাকস্বাধীনতা ও ভোটাধিকার প্রতিষ্ঠা করতে এখন ঐকব্যদ্ধ হবার সময় এসেছে। সবার সম্মিলত আন্দোলন সংগ্রামের মাধ্যমে দেশে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

শনিবার সকালে রংপুর পর্যটন মোটেলের সভা কক্ষে অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল- বিএনপি’র মিডিয়া সেলের উদ্যোগে জবাবদিহীতা মূলক রাষ্ট্র গঠনে অবাধ, নিরপেক্ষ, নির্বাচনত্তোর একটি জাতীয় সরকার এবং দ্বিকক্ষ সংসদ অপরিহার্য শীর্ষক মতবিনিময় রংপুর বিভাগীয় সভায় বক্তারা এসব কথা বলেছেন বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য সচিব ও সাবেক সংসদ সদস্য শহিদ উদ্দিন চৌধুরী এনি অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন।

তিনি তার বক্তব্যে বলেন দেশে রাজনৈতিক পরিবর্তন আনতে ঐক্যমতের ভিত্তিতে এখন জাতীয় সরকার এবং দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট সংসদ অপরিহার্য ।এনি বলেছেন, একদলীয় শাসন ব্যবস্থার অধীনে দিনের ভোট রাতে কিংবা ফ্যাসিবাদী কায়দায় ব্যাক্তি প্রয়োজনের ভোট আর কখনো যাতে দেশে না হয়, সে জন্য জবাবদিহিতামূলক রাষ্ট্র গঠনের প্রয়োজন রয়েছে। সাবেক এই সংসদ সদস্য বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ২০১৭ সালে ভিশন-২০৩০ তুলে ধরার সময় বলেছিলেন সংখ্যাগরিষ্ট শাসনের বদলে বহুত্ববাদের চর্চা ও সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। এটি করতে গেলে এখন প্রয়োজন একটি নির্দলীয়, নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন। যেই নির্বাচনোত্তর বহুত্ববাদের চর্চা ও সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠার জন্য গঠন করা হবে জাতীয় সরকার ও দ্বিকক্ষ বিশিষ্ট সংসদীয় ব্যবস্থা।

বিএনপি জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠার সেই লক্ষ্য নিয়ে আন্দোলন সংগ্রাম করছে। মতবিনিময় সভায় আলোচ্য বিষয়ের ওপর প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন বিএনপির মিডিয়া সেলের সদস্য ও বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের (একাংশ) সভাপতি কাদের গনি চৌধুরী। এরপর আলোচনায় অংশ নিয়ে বক্তারা বলেন নির্বাচন বর্জন নয়, আগামিতে বিএনপিকে সকল নির্বাচনে অংশ গ্রহন করতে হবে । নইলে দল আরো পিছিয়ে যাবে । আর অংশ গ্রহন না করলে নির্বাচন প্রতিহত করতে হবে, সেজন্য দলকে সক্ষমতা অর্জন করতে হবে ।

বক্তারা বলেন হিন্দু মানে আওয়ামীলীগ আর সংখ্যা লঘু মানে নৌকা প্রতীক এই ধারনা পাল্টে গেছে । হিন্দুরা আর আওয়ামীলীগে নেই । ছাত্রলীগ যুবলীগ ও আওয়ামীলীগের নেতা কর্মীদের দ¦ারা তারা একের পর এক নির্যাতনের শিকার হয়ে এখন পাল্টে গেছে । রংপুরের বদরগঞ্জের সাবেক সাংসদ পরিতোষ চক্রবর্তী ১৯৫৪ সালের নির্বাচনে ফিরে যেতে চান তিনি বলেন সেময় হিন্দুর ভোট হিন্দু আর মুসলমানের ভোট মুসলমান প্রার্থীকে দেয়ার বিধান ছিলো । সেই প্রথা চালু করলে সংখ্যা লঘুরা আর নির্যাতনের শিকার হবেনা । তাদের আর মালাউন বলে গালি গালাজ শুনতে হবেনা ।মতবিনিময় সভায় ব্যরিস্টার মীর হেলালের সঞ্চালনায় আরও বক্তব্য রাখেন সাবেক উপমন্ত্রী আসাদুল হাবিব দুলু, বিএনপির কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ফরহাদ হোসেন আজাদ, সাবেক সংসদ সদস্য শাম্মী আকতার, সুজন রংপুর জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন, অধ্যাপক জাকির হোসেন, শিক্ষাবিদ ড. ফেরদৌস রহমান, অ্যাডভোকেট আফতাব উদ্দিন, চিকিৎসক তাজুল ইসলাম, গবেষক ড. রোকনুজ্জামান, অ্যাডভোকেট রেজেকা সুলতানা ফেন্সি, এডভোকেট জিনাত ফেরদৌস আরা রোজী, সাবেক ব্যাংকার আতোয়ার রহমান।

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন- রংপুর জেলা বিএনপির আহŸায়ক সাইফুল ইসলাম, সদস্য সচিব আনিছুর রহমান লাকু, মহানগর বিএনপির আহŸায়ক সামসুজ্জামান সামু, সদস্য সচিব অ্যাডভোকেট মাহফুজ-উন-নবী ডন সহ রংপুর বিভাগের আট জেলা থেকে আগত বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের নেতৃবৃন্দ । এই মতবিনিময় সভায় দলটির অঙ্গসংগঠন ছাড়াও বিভিন্ন শ্রেণি পেশার বিশিষ্ট নাগরিক ও সচেতন সমাজের প্রতিনিধিরা বক্তব্য প্রদান করেন ।

Previous articleআরএমপি’র ‘সাইবার ক্রাইম ইউনিট’র দুই বছর
Next articleবেনাপোলে দু’কোটি টাকার স্বর্ণেবারসহ পাচারকারী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।