জয়নাল আবেদীন: রংপুর সদর উপজেলার ৪ নারী ফুটবলার ইউরোপের দেশ পর্তুগালে যাওয়ার জন্য মনোনীত হয়েছেন। এ ছাড়া জেলার পীরগঞ্জ ফুটবল একাডেমি থেকে একজন তরুণ ফুটবলারও যাচ্ছেন ব্রাজিলে। তাদের সবাইকে উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য ইউরোপ-আমেরিকার দেশে পাঠানোর উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ক্রীড়া পরিদপ্তর।

সোমবার বালক ও বালিকা বিভাগে মনোনীত খেলোয়াড়দের নামের তালিকা চূড়ান্ত প্রকাশ করা হয়েছে। সেই তালিকায় রয়েছে রংপুরের ফুটবলাররা।প্রশিক্ষণের জন্য দুটি দলে ১১ বালক এবং ১১ বালিকা ফুটবলার (অনূর্ধ্ব- ১৭) মনোনীত হয়েছে। প্রকাশিত তালিকায় নাছরিন আক্তার, মৌরাশি আক্তার, শাম্মি আক্তার ও রেখা আক্তারের নাম রয়েছে। এরা সবাই সদর উপজেলার পালিচড়া গ্রামের সদ্যপুস্কুরিনী যুব স্পোর্টিং ক্লাবের ফুটবলার। এ ছাড়া বালকদের (অনূর্ধ্ব-১৭) দলে রয়েছে পীরগঞ্জ ফুটবল একাডেমির মেধাবী ফুটবলার লিয়ন প্রধান।

জানা গেছে, যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের আয়োজনে এবং ক্রীড়া পরিদপ্তরের তত্ত্বাবধানে গত বছর অনুষ্ঠিত জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট (বালক, অনূর্ধ্ব-১৭) ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের (বালিকা, অনূর্ধ্ব-১৭) খেলায় ইউনিয়ন থেকে জাতীয় পর্যায় পর্যন্ত ১ লাখ ১০ হাজার ৫শ৬৫ জন খেলোয়াড় অংশগ্রহণ করে।সেখান থেকে বাছাই করা প্রতিভাবান ৮০ জন বালক ও বালিকা খেলোয়াড়কে চলতি বছরের ১৭ জানুয়ারি থেকে বিকেএসপিতে ২ মাস নিবিড় প্রশিক্ষণ প্রদান করছেন ক্রীড়া পরিদপ্তর। বর্তমানে তাদের প্রশিক্ষণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। প্রশিক্ষণে অংশ নেওয়া ৮০ জনের মধ্য থেকে ১১ জনের বালক দলটি ব্রাজিলে এবং বালিকাদের ১১ জনের দলটির পর্তুগাল যাওয়ার কথা রয়েছে। তাদের উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য সেখানে পাঠানো হবে। ২০১৯ সালে ৪ জন ছেলে খেলোয়াড়কে ব্রাজিলে উন্নত প্রশিক্ষণের জন্য পাঠানো হয়েছিল। এ বছর ছেলেদের পাশাপাশি মেয়েদেরও পাঠানো হবে। তবে এবার শুধু ৪ জন নয়, ছেলে-মেয়েদের পুরো ১১ জনের একটি করে টিম পাঠানো হবে।

এদিকে সদ্যপুস্কুরিনীর চার নারী ফুটবলার ছাড়াও জেলার পীরগঞ্জ ফুটবল একাডেমির লিয়ন প্রধানও আগামী মে মাসে দুই মাসের প্রশিক্ষণে অংশ নিতে ব্রাজিল যাবেন। লিয়ন বিকেএসপির শিক্ষার্থী। তিনি পীরগঞ্জ সরকারি শাহ আব্দুর রউফ কলেজের এইচএসসির দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

পীরগঞ্জ পৌর এলাকার ধনশালা গ্রামের লিয়নের দিনমজুর বাবা রফিকুল ইসলাম বলেন, থাকার জায়গাটুকু ছাড়া আমার আর কোনো জমিজমা নেই। সংসারের খরচ চালাতে অন্যের জমিতে কাজ করি। আমার দুই ছেলে-মেয়ে। তাদের কোনো ইচ্ছে আমি পূরণ করতে পারিনি। ছেলেটা একটা বাইসাইকেল কিনে চেয়েছিল। কিন্তু অভাবের কারণে সেটাও দিতে পারিনি। পায়ে হেঁটেই কষ্ট করে স্কুলে যাওয়া-আসা করছে। ওর লেখাপড়ার খরচ কষ্ট করে চালাচ্ছি। অভাবের সংসারে বেড়ে ওঠা এই ছেলে ফুটবল খেলার জন্য বিদেশে যাচ্ছে। এটা শোনার পর আনন্দে বুক ভরে গেছে।

Previous articleমেডিকেলে চান্স না পেয়ে অভিমানে শিক্ষার্থীর গৃহত্যাগ
Next articleমুলাদীতে ইউপি সদস্যের ঘর থেকে জেলেদের চাল উদ্ধারের মামলায় ৮ দিনেও গ্রেপ্তার হয়নি কেউ
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।