বাংলাদেশ প্রতিবেদক: মুলাদীতে জেলেদের চাল উদ্ধারের ঘটনায় মামলা দায়েরর ৮ দিনেও কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি পুলিশ। এনিয়ে জেলে ও স্থানীয়দের মাঝে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। আদৌ কেউ গ্রেপ্তার হবে কিনা এনিয়েও সন্দেহ করেছেন তাঁরা। এছাড়া ইউপি সদস্য স্থানীয় জেলেদের হুমকি দিচ্ছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে।

জানা গেছে, গত ৩১ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেল ৫টার দিকে উপজেলার চরকালেখান ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) ৬নং ওয়ার্ড সদস্য মো. রাশেদ বেপারীর বসত ঘর থেকে প্রায় ২০ বস্তা চাল উদ্ধার করা হয়। তবে সরকারি বস্তার সাথে মিল না থাকায় ১৩ বস্তা চাল জব্দ করেন উদ্ধারকারী কর্মকর্তারা। চালগুলো জেলেদের না দিয়ে ইউপি সদস্য কালোবাজারে বিক্রির জন্য ইউপি সদস্য নিজের কাছে রেখেছিলেন বলে জানান কর্মকর্তারা। ওই ঘটনায় উপজেলা রির্সোর্স সেন্টারের সহকারী মো. মিজানুর রহমান বাদী হয়ে ৩১ মার্চ রাতেই মুলাদী থানায় মামলা করেন। মামলায় ইউপি সদস্য মো. রাশেদ বেপারীসহ ৩জনকে আসামী করা হয়। মামলা দায়েরের ৮ দিন অতিবাহিত হলেও পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

চরকালেখান ইউনিয়নের কায়েতমারা গ্রামের এক জেলে নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, ইউপি সদস্য আমাদের চাল না দিয়ে আত্মসাতের চেষ্টা করেছেন। বিষয়টি সবাই জানতে পেলে মৎস্য কর্মকর্তা ও থানা পুলিশকে অবহিত করেছেন। পরে ইউপি সদস্যের বাড়ি থেকে চাল উদ্ধার ও মামলা হয়েছে। এতে সাধারণ জেলেদের কিছুই করার নেই। কিন্তু ইউপি সদস্য জেলেদের এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিচ্ছেন।

কায়েতমারা গ্রামের বাসিন্দারা জানান, অভিযুক্ত ইউপি সদস্য এলাকায় ঘুরে বেড়াচ্ছেন। কিন্তু পুলিশ নাকি তাকে খুজে পাচ্ছেন না। এলাকায় থেকে তিনি জেলেদের ভয়ভীতি দেখাচ্ছেন। থানা পুলিশ কোনো ব্যবস্থা না নেওয়ায় ইউপি সদস্য বেপরোয়া হয়ে উঠছেন।

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এস.এম মাকসুদুর রহমান জানান, মামলার পর থেকে ইউপি সদস্যকে গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে। তিনি পলাতক থাকায় গ্রেপ্তার করা যায়নি। এলাকায় অবস্থান করলে অভিযান চালিয়ে দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Previous articleপর্তুগালে যাচ্ছেন রংপুরের সদর উপজেলার ৪ নারী ফুটবলার
Next articleমুলাদীতে শিক্ষক স্বামীর নির্মম নির্যাতনে শিক্ষিকা হাসপাতালে
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।