ঘুষের তালিকা

হাসানুজ্জামান তুহিন: (সিরাজগঞ্জ) শাহজাদপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে অতিরিক্ত ফিসের নামে ঘুষ দাবি করার কারণে গত দু’দিন যাবত শাহজাদপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফসের দলিল রেজিস্ট্রি বন্ধ রয়েছে। এতে করে ভোগান্তির স্বীকার হচ্ছে দূর-দূরান্তের জমি ক্রেতা ও বিক্রেতারা। শাহজাদপুর থানার ১৩টি ইউনিয়ন ও ১টি পৌরসভার জমি মালিকানা পরিবর্তন করা শাহজাদপুর সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে। তাঁতশিল্প ও কৃষি প্রধান শাহজাদপুরে জমি-জমা ক্রয়-বিক্রয়ের হয় অন্যান্য উপজেলার তুলনায় একটু বেশি। এ কারণে সহজ-সরল জমি ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপরে ইচ্ছে মতোন ফিস নির্ধারণ করছে দলিল লেখক সমিতি ও সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের এক শ্রেণীর অসাধু কর্মকর্তা-কর্মচারিরা। কবলা, হেবা, দান দলিলের ক্ষেত্রে নকল নবিশদের জন্য নির্দিষ্ট ফ্রিস নির্ধারন করা থাকলেও ঘুষ হিসেবে তার চেয়ে অতিরিক্ত ফি আদায় করা হয়। এতে করে ক্ষতিগ্রস্থ হয় সাধারণ ক্রেতা ও বিক্রেতা। কোন কোন ক্রেতা-বিক্রেতাদের নানান ভূল ধরে দলিল রেজিস্ট্রি না করার ভয় দেখিয়ে মোটা অংকের ঘুষ আদায় করা হয় এ তালিকায় চাকুরে ও দূর শহরে বসবাসরত ক্রেতা-বিক্রেতারাই তাদের প্রধান টার্গেট। শাহজাদপুর রেজিস্ট্রি অফিসে ইতিপূর্বে নির্দিষ্ট সাব-রেজিস্ট্রার না থাকায় বগুড়া জেলার নন্দি গ্রাম ও সিরাজগঞ্জ জেলার শাহজাদপুরে ১ জন সাব-রেজিস্ট্রারকে দিয়েই জমি রেজিসিট্র করানো হতো। শাহজাদপুরে সপ্তাহে দুইদিন রোববার-সোমবার দলিল রেজিস্ট্রি করতেন। যার কারণে দূর্ভোগ প্রহাতে হতো জনসাধারণকে। এ অবস্থা দূরকরণের লক্ষ্যে সরকার গত মাসে শাহজাদপুরের জন্য একজন নির্দিষ্ট সাব-রেজিস্ট্রার নিয়োগ প্রদান করলে তিনি এসে পূর্বে দলিল লেখক সমিতির সাথে ঘুষের নির্দিষ্ট হারের পরিবর্তে তার ইচ্ছে মতোন ঘুষের হার নির্ধারণ করে ওই অফিসের মহরা আব্দুল আলিমের মাধ্যমে একটি তালিকা তৈরি করে প্রত্যেক দলিল লেখকের কাছে দেয়া হয়েছে বলে দলিল লেখক সমিতির সভাপতি হাজী মোঃ আব্দুস ছাত্তার ও সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ মহির উদ্দিন সহ অন্যান্য দলিল লেখকরা জানান। এ ব্যাপারে দলিল লেখকেরা জানান, শূন্য থেকে পঞ্চাশ হাজার টাকার কবলা দলিলে সরকারিভাবে নকল নবিশদের জন্য নির্দিষ্ট ফি আদায় করার কথা ২শ’ ৪০ টাকা সেখানে ইতিপূর্বে দলিল লেখকরা প্রদান করতেন ৫শ’ ৫০ টাকা। হ্যাবা দলিলের ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট ফ্রিস ৬শ ৪০ টাকা সেখানে দলিল লেখকরা অফিসে প্রদান করতেন ৯শ’ ৫০ টাকা। বর্তমানে এই হার কবলা দলিলের ক্ষেত্রে ১২শ’ টাকা, হ্যাবা দলিলের ক্ষেত্রে ১৫শ’ টাকা এবং দানপত্র দলিলের সরকারি নির্দিষ্ট হার হচ্ছে ৩শ’ ২০টাকা দলিল লেখকরা প্রদান করতেন ৫শ’ ৫০ টাকা। এখন তার হার বেড়ে দাবি করা হয়েছে ১৮শ’ টাকা। এই হারে প্রত্যেকটি দলিলের ফি অধিক হারে বৃদ্ধি করেছে বলে দলিল লেখক সমিতি নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ দলিল লেখকরা জানান।
এ ব্যাপারে শাহজাদপুরে নব যোগদানকারী সাব-রিজিস্ট্রার শুব্রত কুমার দাস এই প্রতিবেদককে জানান, আমি বা আমার অফিস থেকে ধরণের ফির কোন তালিকা প্রদান করি নাই। এই তালিকা মনগড়া কে বা কাহারা প্রদান করেছে আমি জানি না। এ ব্যাপারে আগামী রোববারের মধ্যে ধর্মঘট থাকবে না অফিস ঠিক হয়ে যাবে বলে তিনি জানান। প্রয়োজন হলে দলিল লেখকদের ছাড়াই ক্রেতা-বিক্রেতাদের দলিল রেজিস্ট্রি করা হবে।