কাগজ প্রতিনিধি: নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘনের অভিযোগে রাজশাহীর দুর্গাপুরে পৌর মেয়র তোফাজ্জল হোসেনসহ আওয়ামী লীগের ১০ নেতাকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।  আজ শনিবার দুপুর পৌনে ২টার দিকে দুর্গাপুর পৌরসভায় বৈঠক করার সময় তাদের আটক করা হয়। পরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাদের প্রত্যেককে ৫ দিন করে কারাদণ্ড দেয়া হয়। উপজেলা নির্বাচনকে কেন্দ্র করে তাদের আটক করা হয়েছে বলে জানা গেছে। রবিবার দুর্গাপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।
আটক হওয়া আওয়ামী লীগ নেতারা বিদ্রোহী প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আবদুল মজিদের সমর্থক। তাদের মধ্যে একজন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানও আছেন। রাজশাহীর পুলিশ সুপার মো. শহিদুল্লাহ ১০ জনকে আটক করার তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
চেয়ারম্যান প্রার্থী আবদুল মজিদ সরদার অভিযোগ করেন, দুর্গাপুর পৌর কার্যালয়ে ঘরোয়াভাবে বৈঠক করছিলেন মেয়রসহ বেশকিছু নেতাকর্মী। কিন্তু প্রশাসন কোনো কারণ ছাড়ায় তাদের আটক করেছে। এর আগে সকালে দুর্গাপুরের ঝালুকা ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোজাহার আলীকেও আটক করা হয়।
পুলিশ দাবি করেছে, নির্বাচনের দুদিন আগেই প্রচারণা বন্ধ করার নিয়ম আছে। কিন্তু মজিদের সমর্থকরা বিধি ভঙ্গ করে বৈঠক করছিলেন। এই অপরাধে তাদের আটক করা হয়েছে। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার হামিদ ও জর্জ মিত্র চাকমার নেতৃত্বে ১০ জনকে আটক করা হয়।
আটককৃতদের মধ্যে আছেন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজহার আলী, পৌর ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শরিফুল ইসলাম, আওয়ামী লীগ নেতা আবুল কালাম আজাদ, মেয়রের ছেলে মনিরুজ্জজামান মনি।
দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালতে তাদের হাজির করে নাশকতার পরিকল্পনার অভিযোগে তাদের প্রত্যেককে ৫ দিনের কারাদণ্ড দেন ভ্রাম্যমাণ আদালতের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট কাউসার হামিদ।
এদিকে দুপুরে দুর্গাপুর পৌরসভা কার্যালয়ে অবরুদ্ধ করে রাখা হয় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবদুল মজিদ সরদারকে। মোবাইল ফোনে আবদুল মজিদ জানান, তার নেতাকর্মী ও সমর্থকদের আটক করার খবর পেয়ে তিনি পৌর কার্যালয়ে আসলে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনীর সদস্যরা তাকে সেখানে অবরুদ্ধ করে রাখে। তাকে সেখান থেকে বের হতে নিষেধ করা হয়েছে। বের হলে তাকে আটক করা হবে এমন হুমকি দেওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেন আবদুল মজিদ।