কাগজ প্রতিনিধি: কুড়িগ্রামের উলিপুর উপজেলায় হোকোডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও মদিনাতুল উলুম সিনিয়র মাদ্রাসাকেন্দ্রে ব্যালট পেপার ছিনতাইয়ের অভিযোগে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। এ ছাড়া জেলায় কোথাও কোনো অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। এবারের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটারের উপস্থিতি হতাশাজনক। ভোটকেন্দ্র এবং এর চারপাশে নেই কোনো কোলাহল। কেন্দ্রগুলোতে সব প্রার্থীর এজেন্টও পাওয়া যায়নি। সকাল ১০টা পর্যন্ত বেশ কয়েকটি কেন্দ্র ঘুরে এসব তথ্য পাওয়া যায়।
হোকোডাঙ্গা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রিসাইডিং অফিসার আবু বকর সিদ্দিক জানান, ৭নং বুথে একদল দুষ্কৃতকারী হামলা চালিয়ে একটি ব্যালট বাক্স, চেয়ারম্যানের একটি এবং দুই ভাইস চেয়ারম্যানের দুটি ব্যালট বই ছিনতাই করে নিয়ে যায়।

সকাল সোয়া ৯টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অন্যদিকে মদিনাতুল উলুম সিনিয়র মাদ্রাসাকেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার মিজানুর রহমান জানান, সকাল ১০টা ৫ মিনিটের দিকে এই কেন্দ্রে হামলা চালিয়ে বেশ কিছু ব্যালট বই ছিনতাই করে নিয়ে যায়।
পরে কিছু উদ্ধার করা সম্ভব হলেও ২০০ বই উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে ওই দুটি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়।
এখানকার প্রিসাইডিং অফিসার আবু নছর বকসী জানান, এই কেন্দ্রে ভোটার ২৪৬০টি। বুথ ৭টি। এখানে ৭নং বুথে ভোট পড়েছে মাত্র ৩টি। কারও কোনো এজেন্ট নেই। ৫নং বুথে ৮ এবং ৪নং বুথে ৫টি ভোট পড়েছে। বেশিরভাগ বুথে সব প্রার্থীর এজেন্ট নেই।
সকাল ৯টা ৪০ থেকে ৯টা ৫১ মিনিট পর্যন্ত ৮নং পশ্চিম কবিরাজপাড়া নুরানি তালিমুল কোরআন ও হাফিজিয়া মাদ্রাসায় গিয়ে দেখা যায়, এই কেন্দ্রের ৮নং বুথে মাত্র একটি ভোট পড়েছে। ১নং বুথে পড়েছে সর্বোচ্চ ৩৫ ভোট।

এখানকার প্রিসাইডিং অফিসার আবদুল হাই জানান, এই কেন্দ্রে ভোটার সংখ্যা ৪ হাজার ৪১৭ জন। বুথ ১২টি। এখন পর্যন্ত গড় ভোটের সংখ্যা ১৩ দশমিক ৫৫ জন।
বিচ্ছিন্ন ঘটনা ছাড়া শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে বলে দাবি করেন রিটার্নিং অফিসার ও অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) হাফিজুর রহমান।
তিনি বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ এবং সব প্রার্থীর সমান সুযোগ করার পরও ভোটার উপস্থিতি আশাব্যঞ্জক নয়।