কাগজ প্রতিনিধি: নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজারে দিদার নামে এক মাদক ব্যবসায়ীকে ছাড়িয়ে নিতে ছাত্রলীগের নেতা সুজয় দাস পুলিশের ওপর হামলা চালিয়েছে। পরে পুলিশ তাকে আটক করেছে। তিনি স্থানীয় গোপালদী পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ও উলুকান্দী এলাকার অসীম দাসের ছেলে। মাদক ব্যবসায়ী দিদার রামচন্দ্রী এলাকার জামালউদ্দিনের ছেলে।
আজ দুপুর ১২টায় স্থানীয় গোপালদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে হামলার এ ঘটনা ঘটে।
ছাত্রলীগ নেতার হামলায় পুলিশের এটিএসআই মামুন (বেজ-৪২১), কনস্টেবল ইমরান (বেজ-১২২৯) ও বাশার ( ৮৪৪) আহত হয়েছেন। আহতদের উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। এ খবর পেয়ে স্থানীয় ছাত্রলীগ নেতাকর্মীদের মধ্যে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
পরে আড়াইহাজার থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ গোপালদী ফাঁড়ি গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করেন। এদিকে খবর পেয়ে জেলা পুলিশের (সি-সার্কেল) আশ্রাফউদ্দিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন।
আড়াইহাজার থানার ওসি আক্তার হোসেন জানান, স্থানীয় ফাজিল মাদ্রাসার সামনে থেকে মাদক ব্যবসায়ী দিদারকে গোপালদী পুলিশ আটক করে। পরে গোপালদী পৌরসভা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক পরিচয় দিয়ে সুজয় দাস মাদক ব্যবসায়ীকে ছাড়িয়ে নিতে পোগালদী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে আসেন। ভেতরে ঢুকে সে প্রথমেই এটিএসআই মামুনের সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে মামুনকে কিলঘুষি দিতে থাকেন। পরে কনস্টেবল ইমরান ও বাশার এগিয়ে আসলে তাদের ওপর হামলা চালানো হয়। পরে পুলিশ তাকে আটক করে।
এদিকে এটিএসআই মামুন জানান, দিদারকে স্থানীয় ফাজিল মাদ্রাসার সামনে থেকে আটক করা হয়। পরে সুজয় দাস তাকে ছাড়িয়ে নিতে ফাঁড়িতে এসে তার সঙ্গে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। একপর্যায়ে তার ওপর হামলা করা হয়।
এটিএসআই মামুন আরও জানান, মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার সময় দিদার বিরুদ্ধে মেয়েদের উত্যক্ত করারও অভিযোগ রয়েছে। তবে এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছিল।

Previous articleজাহালমের জেল খাটার পেছনে দায়ী কারা, জানতে চান হাইকোর্ট
Next articleনুসরাতদের নিরাপত্তা দিতে আমরা রাজনীতিবিদরা ব্যর্থ হয়েছি: ফখরুল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।