এস এম শফিকুল: জয়পুরহাটের কালাইয়ে স্থানীয় মাত্রাই ইউনিয়ন পরিষদের পার্শ্বে একটি পরিত্যাক্ত ঘর থেকে ভিজিডির ২৪০ বস্তা চাল উদ্ধার করেছে উপজেলা প্রশাসন। সোমবার বিকেলে গোপন সংবাদ পেয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফাজ উদ্দিন নিজেই মাত্রাই বাজারে গিয়ে এ চালগুলো উদ্ধার করেন। পরে তা জব্দ তালিকা করে উপজেলা পরিষদে নিয়ে আসেন। সোমবার সকাল থেকে চালগুলো ওই ইউনিয়নের দুস্থ্য মহিলাদের মাঝে বিতরণ করার কথা ছিল কিন্তু তা বিতরণ না করে ওই ইউনিয়নের দায়িত্ব প্রাপ্ত প্যানেল চেয়ারম্যান (ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান) আব্দুল হান্নান বিক্রির উদ্যের্শে পরিষদের পার্শ্বে একটি পরিত্যাক্ত ঘরে রাখেন। সময় সুযোগে রাতের আঁধারে চালগুলো সড়িয়ে নিতেই চেয়ারম্যান ওই পরিত্যাক্ত ঘরে রাখে গরীবের চাল এমন অভিযোগ এলাকাবাসীর। দীর্ঘদিন ধরে এমনি ভাবেই গরীবের চাল বিক্রি করে আসছেন ওই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান। জানা গেছে, গত উপজেলা পরিষদের নির্বাচনের পর সহিংসতায় ২ জন ব্যাক্তি নিহত হয়। পরে ওই ঘটনায় মামলা হয় কালাই থানায়। সেই মামলার আসামী হয়ে মাত্রাই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আ ন ম শওকত হাবিব তালুকদার লজিক আদালতে হাজিরা দিতে গিয়ে জামিন নামঞ্জুর হয়ে প্রায় ১ মাস যাবত জয়পুরহাট কারাগারে আটক আছেন। তার অনুপস্থিতিতে ওই ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পান। এরই ধারাবাহিকতায় সোমবার ওই ইউনিয়নের হত দরিদ্র মহিলাদের মাঝে ভিজিডির চাল বিতরণ করার কথা। সে লক্ষ্যে আব্দুল হান্নান সোমবার সকালে কালাই উপজেলা খাদ্যগুদাম থেকে তার ইউনিয়নের মোট ৪৩৫ জন দুস্থ্য মহিলার বিপরীতে ৩০ কেজি ওজনের ৪৩৫ বস্তা চাল উত্তোলণ করে নিয়ে যায় মাত্রাই ইউনিয়ন পরিষদে। তিনি ওই চালগুলোর মধ্যে ২৪০ বস্তা বিতরণ না করে বিক্রির উদ্যের্শে ইউনিয়ন পরিষদের পার্শ্বে মাত্রাই হাটের মধ্যে অবস্থিত একটি পরিত্যাক্ত ঘরে রাখেন। গোপন সংবাদ পেয়ে বিকেলে কালাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফাজ উদ্দিন পুলিশ নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই পরিত্যক্ত ঘর থেকে ৩০ কেজি ওজনের ২৪০ বস্তা ভিজিডির চাল উদ্ধার করেন। ঘটনাস্থলে চালের সাথে জড়িত কাউকেই পায়নি তিনি। এ সময় মাত্রাই বাজারে উৎসুক জনতার উপস্থিতিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ওই চালগুলো জব্দ করে উপজেলা পরিষদে নিয়ে আসেন। প্রতিনিয়ত গরীবের চাল বিতরণে সময় ব্যাপক অনিয়ম ও চাল চুরি করা হয় এমন অভিযোগ স্থানীয়দের। ভিজিডির চাল চুরির সাথে যারা জড়িত তাদের শাস্তির দাবী জানান স্থানীয়রা। অভিযোগ অস্বীকার করে মাত্রাই ইউনিয়ন পরিষদের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান আব্দুল হান্নান বলেন, ৪৩৫ জন দুস্থ্য মহিলার মধ্যে ৪০৭ জনের মাঝে ওই চাল বিতরণ করা হয়েছে। যে চাল উদ্ধার করা হয়েছে, সেগুলো বিতরণকৃত চাল হতে পারে। এর দায় আমাদের নয়। চাল উদ্ধার ও জব্দ তালিকার বিষয় নিশ্চিত করে কালাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আফাজ উদ্দিন বলেন, ওই ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে। তবে ঘটনাস্থলে কাউকে পাওয়া যায়নি। চালগুলো উদ্ধারের পর জব্দ তালিকা করে উপজেলা পরিষদে আনা হয়েছে। ভিজিডির চাল কেউ বিক্রি করতে পারে না এমন আইন আছে। নিয়ম অনুযায়ী ওই ইউনিয়নের হতদরিদ্র ও দুস্থ্য মহিলাদের মাঝে মাস্টারোলের

তালিকায় অনুযায়ী বিতরণ করার কথা। কিন্তু ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তা না করে বিক্রির উদ্যের্শে বাজারের ভিতর একটি পরিত্যাক্ত ঘরে রেখেছেন। এর জবাব তাকেই দিতে হবে।