ওসমান গনি: মারণব্যাধি ক্যান্সার আক্রান্ত সন্তানের উন্নত চিকিৎসার জন্য ভারতে নিয়ে যেতে সাড়ে ১৪ লাখ টাকা জোগাড় করেছিলেন কুমিল্লার চান্দিনা উপজেলা সদরের মহারং এলাকার বাসিন্দা রফিকুল ইসলাম। বিদেশে পাড়ি জমাতে পাসপোর্ট-ভিসা ও টাকাসহ সব প্রস্তুত করলেও বাসা থেকে চোরচক্র চিকিৎসার পুরো টাকা চুরি করে নেওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠাতে পারেনি অসুস্থ সন্তান আব্দুর রাজ্জাককে। ওদিকে, টাকা চুরি যাওয়ার মাত্র তিন দিনের মাথায় পরপারে পাড়ি জমায় আব্দুর রাজ্জাক।

তাৎক্ষণিকভাবে শনাক্ত হয়নি চোর, খোঁজ মেলেনি লুটে নেওয়া চিকিৎসার টাকা। দীর্ঘ তিন মাস পর চোরচক্রের এক সদস্যকে আটক করে পুলিশে দেয় রফিকুল ইসলাম।

পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে রবিবার (১২ মে) বিজ্ঞ আদালতে স্বীকারোক্ত মূলক জবানবন্দি দেয় চোরচক্রের সদস্য নবী। তার স্বীকারোক্তিতে পুলিশ ৪০ হাজার টাকা উদ্ধার করে। আটক চোরচক্রের সদস্য নবী হোসেন মহারং গ্রামের আবুল হাসেম এর ছেলে।

চান্দিনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোহাম্মদ আবুল ফয়সল জানান, চলতি বছরের ৯ ফেব্রুয়ারি মহারং এলাকার রফিকুল ইসলাম এর ঘর থেকে ১৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা চুরি হয়। ওই সময় তিনি বিষয়টি থানায় অবহিত করেননি। প্রায় তিন মাস অতিক্রম হওয়ার পর চোরচক্রের মধ্যে অমিল দেখা দিলে তাদের মধ্যে একজন (নবী হোসেন) চোর ও চুরি হওয়ার ঘটনাটি রফিকুল ইসলাম এর কাছে জানিয়ে দেয়। এ সময় রফিকুল ইসলাম তাকে আটক করে আমাদের খবর দেয়।

নবী তার স্বীকারোক্তিতে জানায়, ৯ ফেব্রুয়ারি মহারং গ্রামের ফরহাদ মিয়ার ছেলে নয়ন, নুরু মিয়ার ছেলে সাদেক, ফজলু মিয়ার ছেলে মোস্তফা ও জনৈক ইউসুফসহ পাঁচ সদস্যের চোরচক্র ১৪ লাখ ৪০ হাজার টাকা চুরি করে নিয়ে যায়। তার স্বীকারোক্তিতে চুরি হওয়ার ৪০ হাজার টাকা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় রফিকুল ইসলাম বাদী হয়ে চান্দিনা থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় নবীকে আদালতে হাজির করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। ঘটনার সাথে জড়িত বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।