সাহারুল হক সাচ্চু: উল্লাপাড়া প্রায় এক যুগ ধরে স্বামীর কোনো খোজ নেই। বাসে উঠছি, বাড়ী ফিরছি জানিয়ে আজোও সে আর আসেনি। আগে থেকেই অভাবের সংসার। এখন স্বামীও নেই। এখানে সেখানে কাজ করেই তাহমিনা খাতুন (২৮) পেটের খাবার জোটায়। এক মাত্র মেয়ে নানা বাড়ী থেকে পড়ালেখা করছে। এই বুঝি স্বামী বাড়ী ফিরলেন এমন আশা নিয়েই আছে তাহমিনা খাতুন। তার সে আশা আর অপেক্ষার প্রায় বারো বছর চলছে। এদিকে অভাবি হলেও তাহমিনার কপালে জোটেনি সরকারি কোন কার্ড । সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া উপজেলার পুর্বদেলুয়া পশ্চিমপাড়া গ্রামের মজনু প্রামানিকের সাথে প্রায় ষোল বছর আগে তাহমিনা খাতুনের বিয়ে হয়। সে একই উপজেলার মাছুয়াকান্দি গ্রামের তোফাজ্জল সরকারের মেয়ে। তার স্বামী রিক্সা চালাতেন। সে আয়ের টাকাতেই তাদের সংসার চলতো। ঢাকা শহরেই তার স্বামী বেশি সময় রিক্সা চালাতেন। সঠিক বার-তারিখ মনে নেই। বিগত ২০০৭ সালের মাঝামাঝি সময় কাল। একদিন সন্ধ্যার পর স্বামী পুর্বদেলুয়া গ্রামের মামাতো ভাই দুলাল মিয়ার মোবাইল ফোনে তাহমিনা খাতুনকে জানায় সে ঢাকা থেকে বাসে উঠছে। বাড়ী ফিরছে। রাতেই সে বাড়ী পৌছাবে বলে জানায়। এর পর ভররাত পেরুলেও স্বামী আর আসেনি। এরপর দিন, মাস, বছর পেরিয়ে প্রায় এক যুগ চলছে। সে রাতে স্বামীর বাড়ী না ফেরা নিয়ে পরের বেশ ক’দিন গ্রামের লোক মুখে নানা কথা বলাবলি হয়। একই গ্রামের আরো ক’জন ঢাকায় রিক্সা চালাতেন। তারা সে রাতে বাড়ী ফিরেছে। তাদের বক্তব্যে মজনু প্রামানিক বাড়ী ফিরতে তাদের আগের বাসে উঠেছে বলে জানে। এতেই অনেকেরই মনে তখন জিজ্ঞাসা জাগে তাহলে মজনু প্রামানিক গেল কোথায়। নাকি অনেকেরই ধারনায় সে সড়ক দুর্ঘটনায় মারা গেছে। সে রাতে নাকি যমুনা সেতু এলাকায় সড়কে বাস দুর্ঘটনায় বেশ ক’জন মারা গেছে। নিখোজ মজনু প্রামানিক দুর্ঘটায় নিহত ও বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে দাফন হয়েছে এমন বক্তব্য গ্রামের লোকজনের। তবে যে যাই বলুক তাহমিনা খাতুনের বিশ্বাস তার স্বামী বেচে আছে এবং বাড়ী ফিরবে। তাহমিনা আরো জানায়, সে সময় তাদের এক মাত্র মেয়ে সন্তান মদিনা খাতুনের বয়স তখন এগারো মাস ছিলো। সংসারের অভাব থাকলেও মেয়েকে পড়া লেখা শেখাবে এমন ইচ্ছা থেকেই পড়া লেখা করাচ্ছে। সে তার নানা বাড়ী থেকে স্থানীয় মাদ্রাসায় ক্লাস সিক্সে পড়া লেখা করছে। এদিকে স্বামী নেই। কোন জমি জমাও নেই। চরম অভাবের সংসার। পেটের খাবার জোটাতে স্বামীর ভিটে বাড়ীতে থেকেই তাহমিনা খাতুন ধান চাতাল, সড়কে মাটি কাটা, অন্যের বাড়ীতে কাজ করেছে। এখন এলাকায় ব্রিজ নির্মানের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের কর্মচারীদের আবাসে রান্নার কাজ করছে। তার মনে এখনই জাগছে যে, ব্রিজটি নির্মাণ শেষ হলে তাকে আর কাজের জন্য দরকার হবে না। তখন কি করবে। তার মাথায় এ চিন্তা ঘুরপাক খাচ্ছে। তাদের জমিজমা বলতে স্বামীর এক শতক পরিমান বসত ভিটে বাড়ী রয়েছে। এতদিন সে ভিটের ভাঙ্গাচোড়া ঘরে বসবাস করেছে। গত মাস তিনেক হলো এলাকার বিভিন্ন জনের সহযোগিতা ও দোকানিদের কাছ থেকে বাকীতে মালামাল নিয়ে ছোট একটি টিনের ঘর তুলে বসবাস করছে। তার কাজের মজুরি থেকেই দোকানিদের বাকী টাকা পরিশোধ করছে। সে আক্ষেপ করে জানায়, তার মতো অসহায়, অভাবির ভাগ্যেও

সরকারি কোন সাহায্য সহযোগিতা কিংবা সুযোগ সুবিধা জোটেনি। দশ টাকা কেজি দরের চাউলের একটি কার্ড পেতে এলাকার ইউপি মেম্বরকে বললেও তা পায়নি। বড়হর ইউনিয়নের এক নং ওয়ার্ডের মেম্বর শ্রী বাবলু রায় জানান, আসলেই তাহমিনা খাতুন অসহায় ও অভাবি। তিনি একটি ভিজিডি কার্ড তাকে দেওয়ার জন্য জোরালো চেষ্টা করবেন।