হুমায়ুন কবির: নেত্রকোনার কেন্দুয়া পাওনা টাকা চাওয়ার ঘটনাকে কেন্দ্র করে উপজেলার মাসকা ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামের রুহুল আমিন ছেলে জোবায়ের আলম হাসান (২৫) নামে এক সিএনজি চালককে কুপিয়ে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন।

এ সময় মারাত্মক আহত হন নিহতের বাবা রুহুল আমিন, মা কল্পনা আক্তার ও চাচা ফারুক মিয়াসহ তিনজন।
বুধবার দিনগত রাত দেড়টার দিকে কেন্দুয়া উপজেলার মাসকা ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে রাতেই ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাত তিনটার দিকে জোবায়ের আলম হাসানকে মৃত ঘোষণা করা হয়।

এ ঘটনায় পুলিশ রাতেই ঘটনাস্থলে পৌছে প্রতিপক্ষের আবুল কালাম আজাদ, খোকন ও ঝরনা আক্তার নামে তিনজনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও স্থানীয়দের বরাত দিয়ে জানা গেছে, পূর্ব শত্রুতার জের ধরে বুধবার (১৫ মে) দিবগত রাত দেড়টার দিকে মাসকা ইউনিয়নের আলমপুর গ্রামের রুহুল আমিন বাঙালির ছেলে জুবায়ের আলম হাসান (২২) উপর বাড়ির পাশেই হামলা চালায় প্রতিপক্ষের লোকজন। এ সময় হাসানের বাবা রুহুল আমিন, মা কল্পনা আক্তার ও চাচা ফারুক এগিয়ে গেলে তাদেরকেও কুপিয়ে আহত করে প্রতিপক্ষের লোকজন।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার (১৬ মে) কেন্দুয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) ইমারত হোসেন গাজীর সাংবাদিকদের এসব তথ্য নিশ্চিত করে বলেন,
একই গ্রামের আবুল কালাম আজাদের ছেলে আশরাফুল এবং হাসানের মধ্যে টাকা পাওনাকে কেন্দ্র করে বিরোধ চলছিল।
এরই জের ধরে বুধবার রাত দেড়টার দিকে হাসানের উপর হামলা চালায় আজাদসহ তার লোকজন। হামলায় হাসান নিহত ও বাবা, মা এবং চাচা মারাত্মক আহত হয়েছেন।

এ ঘটনায় আবুল কালাম আজাদ, খোকন ও ঝরনা আক্তার নামে তিনজকে আটক করা হয়েছে বলেও ওসি জানান।