সাহারুল হক সাচ্চু: ওদের বড় দুর্ভোগ কোন সড়ক পথ না থাকা। তাও বড়জোর মাত্র ৮শ ফুট। খরাকালে চলাচল জমির আইল পথে। বর্ষায় পারাপার নৌকায় নয়তো গামছা পরে।বাল্য বিবাহ এখনো হয়। এখন অনেকেই পড়ালেখায় স্কুলে যায়। একুশ পরিবারের একজনই এখন ক্লাস সিক্সে পড়ছে। বংশগত পেশায় অনেকেই নেই। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার গঙ্গারামপুর ঋষিপাড়ার রুহিদাসদের জীবন যাপনে এসব মিলেছে। উল্লাপাড়া উপজেলার বাঙ্গালা ইউনিয়নের গঙ্গারামপুর ঋষিপাড়ায় একুশটি পরিবার বসবাস করছে। স্থানীয়রা মুচিপাড়া নামেই বেশি চেনে। এপাড়ার সবাই মুচি সম্প্রদায়ের। এখানে বংশ পরস্পরায় এর বসবাস করছে। ভোটার সংখ্যা ৬৪ জন বলে জানা যায়। গ্রাম পুলিশ পদে এপাড়ার তিন জন চাকুরী করছে। যুবকেরা প্রায় বেশি জনই বংশগত পেশা ছেড়ে অন্য পেশায় কাজ করছে। বেশি জন সেলুনে কাজ করছে। গত ক’বছর হলো বসতি পরিবারগুলোর মাঝে শিক্ষায় আগ্রহ এসেছে। প্রায় ১৫ থেকে ২০ জন দেড় কিলোমিটার দুরে মালিপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়েল বিভিন্ন শ্রেণীতে পড়ালেখা করছে। একজন মাত্র প্রাইমারী পেরিয়েছে। গ্রাম পুলিশ দয়াল রুহিদাসের ছেলে অন্তর রুহিদাস স্থানীয় বিনায়েকপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্লাস সিক্সে লেখাপাড়া করছে। এরা আগের চেয়ে অনেক সচেতন হলেও বাল্য বিবাহ এখনো হয়। কম বয়সেই ছেলে সন্তানকে বিয়ে করানো আর মেয়ে সন্তানকে বিয়ে দেওয়া হয়ে থাকে। সেলুনে কাজ করে শ্রীবাস রুহিদাসের স্ত্রী প্রায় ১৬ বছর বয়সী মমতা রুহিদাস এখন সন্তানের মা হয়েছে। তাদের বিয়ের বয়স ৩ বছর চলছে। গঙ্গারামপুর গ্রামের এক প্রান্তে খোলা মাঠ এলাকায় এদের বসবাস। এরা নিজেদের ভিটে বাড়ীতেই বসবাস করছে। সেই কম বছর আগে পুর্বপুরুষেরা এখানে ভিটে বাড়ী কিনে বসতি গড়েন কেউ বলতে পারে না। এখানকার বসতিদের সবাই নিজেদেরকে দুর্ভাগা মনে করে থাকেন। আসা যাওয়ায় সড়ক পথ নেই। বিভিন্ন ব্যক্তির জমি আইল পথ হয়ে চলাচল করতে হয়। সব চেয়ে বেশি দুর্ভোগ দেখা দেয় বর্ষাকালে। সে সময় ভাড়ার ডিঙ্গি নৌকায় নয়তো পোষাক পালটেই গামছা পড়ে পানি পারাপার হতে হয়। সচিন রুহিদাস জানান, এ সড়ক পথটুকো করে দেওয়ার বিষয়ে বিগত সময়ে এলাকার ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারেরা বরাবরই আশ্বাস দিয়ে থাকেন। বিশেষ করে ভোটের সময় পুরোপুরি আশ্বাস দেওয়া হয়। তার বাস্তবায়ন কেউ আর করেনি। বাঙ্গালা ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য সাইফুল ইসলাম জানান, বিগত সময়ের তিনি পদে থাকা কালে একাধিকবার উদ্যোগ নিলেও রাস্তার জন্য জমি মালিকেরা তাদের জমি দিতে নারাজ বলে সম্ভব হয়নি। তিনি পদে না থাকলেও এখনো চেষ্টা করছেন। এখন ক’জন মালিক রাস্তার জন্য জায়গা ছেড়ে দিতে রাজি হয়েছেন। বর্তমানে ইউপি সদস্য মোঃ ছাঁন মিয়া বলেন, এরা আসলেই সড়ক না থাকায় দূর্ভোগে যাতায়াত করে। ব্যক্তিগত জমি সড়কের জন্য কেউ দিতে রাজি না হওয়ায় তা সম্ভব হয়নি। তিনি বিষয়টি নিয়ে আবারও উদ্যোগ নিবেন।

বাঙ্গালা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোঃ সোহেল রানা জানান, আগামীতে জমি মালিকদের সাথে আলাপ আলোচনা করে ভ্যান-রিক্সা ও পায়ে হেটে চলাচলের জন্য কর্মসূচি প্রকল্পে সড়ক পথ নির্মানের জোরালো উদ্যোগ নিবেন।