সিংগাইরে ইউনিয়ন পরিষদের জমি দখল করে চেয়ারম্যানের মার্কেট নির্মাণ

মুহ. মিজানুর রহমান: আজকের কাগজ মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার সায়েস্তা ইউনিয়ন পরিষদের সামনে সরকারি পুকুরের আংশিক দখল করে মার্কেট নির্মাণ করার অভিযোগ উঠেছে ইউপি চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের বিরুদ্ধে। কৃষি জমি ও সরকারি জলাশয় কোন ক্রমেই দখল ও ভরাট করা যাবে না প্রধাণমন্ত্রীর নিদেশনাকে তোয়াক্কা না করে নিয়ম বর্হিভুত ভাবে ইউনিয়ন পরিষদের জায়গা দখল করে মার্কেট নির্মানের নেপথ্য রয়েছে সায়েস্তা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসলেমউদ্দিন চোকদারসহ দুই ইউপি সদস্য আব্দুল মান্নান বেপারি ও সরকারি গাছ কাটার মামলার আসামী মো:ফজলুল হক শামীম। সরকারি গাছ কেটে ও জায়গা দখল করে কি ভাবে বহাল তবিয়তে ধরাছোয়ার বাইরে রয়েছে এ নিয়ে জনমনে যত প্রশ্ন ও ক্ষোপের সৃষ্টি হচ্ছে। এতে ইউনিয়ন পরিষদের সৌর্ন্দয্য নষ্টের পাশাপাশি রাস্তা সংকোচনের কারনে যানজট ও র্দূঘটনার সৃষ্টি হতে পারে। সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়,ইউনিয়ন পরিষদের সামনে পাকা রাস্তা সংলগ্ন বহু পুরাতন মজা পুকুরের পূর্ব হতে পশ্চিম পাশ দখল করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়াই মার্কেট নির্মান করে ২৬ টি

দোকান বরাদ্ধ দিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান,মেম্বার ও স্থানীয় প্রভাবশালী কয়েকজন আওয়ামীলীগ নেতারা মালিক বনে যাচ্ছে। নিয়ম অনুযায়ী সরকারি কোন জায়গা সরকারি কাজে ব্যবহার করে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি করনেও সরকারি অনুমোদন নিতে হয় এবং অনুমোদন স্বাপেক্ষ খোলামেলা দরপত্র দেয়া বাধ্যতামূলক। যা দখলদাররা অনুমোদন ,রেজিলেশন , দরপত্রের কোন নিয়মই মানেন নাই। ফলে সরকার হারাতে বসেছে মোটা অংকের রাজস্ব । সরকারি জলাশয়,খাস জমি সংশ্লিষ্ট জনপ্রতিনিধিদের রক্ষা করার শর্ত থাকলেও তা উপেক্ষা করে রক্ষক হয়ে ভক্ষক সেজে বহাল তবিয়তে রয়েছে তারা। উল্লেখ্য, এ ছাড়াও রাস্তার দক্ষিণাংশের সংখ্যালঘু অমিত রায়ের পৈত্রিক সূত্রে পাওয়া সইস্তা মৌজার এস,এ ১৫২১ ও ১৭৫৩ আর এস ৪০ নং দাগের দক্ষিন পাশের ১২ শতাংশ ১্ধসঢ়; আনার মালিক। এ জমির মালিক অমিত রায় দীর্ঘদিন ভোগদখল করার পর তার ২ পুত্র কুন্তল রায় ও পারিজাত রায়কে নিয়ে ভারতে চলে যান। পরে দক্ষিন পাশের রাস্তা সংলগ্ন জায়গাটি স্থানীয় সমসের নামের এক লোক অমিত রায়ের কন্যা অদিতি রায়ের কাছ থেকে ভাড়াটিয়া দখলদার হিসেবে দেখভাল করেন। অভিযোগ উঠেছে, সংশ্লিষ্ট ভূমি দখলদাররা অমিত রায় কে মৃত্য দেখাইয়া অজিত রায় নামের এক লোককে পুত্র সাজিয়ে রাস্তার দক্ষিন পাশের হিন্দু সম্পত্তি জাল দলিল মূলে রেজিষ্ট্রি করেন। এ নিয়ে অমিত রায়ের মেয়ে অদিতি রায় ২০১৭ সালে ১১ ই মে সংশ্লিষ্ট দখলদারদের বিরুদ্ধে কোর্টে মামলা দায়ের করেন, যা চলমান রয়েছে। আদালতে মামলা থাকা সত্বেও ভাড়াটিয়া সমসেরের দোকান প্রকাশ্যে দিবালোকে ভাংচুর করে, জনপ্রতিনিধি ও প্রভাবশালীরা দখল করে দোকান নির্মাণ করে নিয়েছে। এ ব্যাপারে ইউপি চেয়ারম্যান মো:মোসলেমউদ্দিন চোকদার জমি দখলের কথা অস্বীকার করে বলেন,ইউনিয়ন পরিষদের কোন আয় নেই,তাই রাজস্ব আয় বাড়ানোর জন্য মার্কেট নির্মান করছি। এ ব্যাপারে নির্বাহী কর্মকর্তা রাহেলা রহমত উল্লাহ্ধসঢ়; বলেন,সরকারি জায়গা অনুমোদন ছাড়া কেউ সরকারি কাজেও ব্যবহার করতে পারে না। যদি কেউ সেটা করে সম্পূর্ন অবৈধ অন্যায় কাজ। চেয়ারম্যানের কাছে রেজিলেশন চেয়েছি দিতে তালবাহানা করছে এ জন্য দরপত্রের মাধ্যমে দোকান বরাদ্ধের ব্যবস্থা করব।