কলাপাড়ায় জমিজমার বিরোধের সশস্ত্র সংঘাতে ১ জন নিহত

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের সলিমপুর গ্রামে শুক্রবার ভোর রাতে জমিজমার বিরোধকে কেন্দ্র করে দুইগ্রুপের সশস্ত্র সংঘাতে আব্বাস হাওলাদার (৬০) নিহত হয়েছে। আহত হয়েছে আরও সাত জন। এরা হচ্ছে হাসন বানু (৬০), শামীম হাওলাদার (২৫), রফিক খান (৫০), মো. রশিদ (৭০), মোসাম্মৎ শাহবানু (৬০), সেলিনা (৫০), ইয়াসমিন (২২)। এর মধ্যে তিন জনকে শঙ্কাজনক অবস্থায় বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। পুলিশ এ ঘটনায় বেল্লাল গাজী, লাইজু বেগম, শিমুল, রুবেল হাওলাদার, আল-আমিন মল্লিক, রাজু গাজীকে গ্রেফতার করেছে। জানা গেছে, বিরোধীয় জমিতে রশিদ খলিফা গং সাত/আট দিন আগে রাতের আধারে তিনটি ঘর তোলে এবং সেখানে কলাগাছ লাগিয়ে রাতারাতি দখল নেয়। এনিয়ে প্রতিপক্ষ মোসলেম আলী খলিফা গং শুক্রবার ভোর রাতে দখল পুনরুদ্ধারে যায়। এনিয়ে সংঘাত ঘটে। সংঘাতে গুরুতর জখম আব্বাস হাওলাদারকে বরিশাল নেয়ার পথে মারা যায়। নিহত আব্বাস হাওলাদারের বাড়ি ধুলাসার ইউনিয়নের অনন্তপাড়া গ্রামে। নিহতের স্ত্রী ফাতেমা বেগম জানায় তারা এখানে বেড়াতে আসেন। ঘুমিয়ে ছিলেন। তখন তাদের ওপর সশস্ত্র হামলা চালানো হয়। প্রতিপক্ষ মোসলেম আলীর ছেলে শামিম খলিফা জানান, আমাদের ভোগদখলীয় জমিতে প্রতিপক্ষরা ভাড়াটে সন্ত্রাসী নিয়ে এক রাতের আধারে তিনটি ঘর তোলে কলাগাছ পুতে ফেলে। এনিয়ে দুইগ্রুপে মারামারি হয়। নিহত ব্যক্তি কীভাবে জখম হয়েছে তা আমাদের জানা নেই। আমাদের জমি দখল করতে ভাড়াটে সন্ত্রাসী জড়ো করে তাঁদের ওপর পাল্টা হামলা চালানোর অভিযোগ শামীমের। কলাপাড়া থানার ওসি মো. মনিরুল ইসলাম জানান, এ ঘটনায় জড়িত অন্যান্যদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। এ ঘটনায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।