আজ খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দেশের বৃহৎ বৃত্তি প্রদান উৎসব

মারুফা মির্জা/গাজী সাইদুর রহমান: উপমহাদেশের প্রত্যাক্ষ ইসলাম প্রচারক হযরত শাহ সুফী খাজা বাবা ইউনুছ আলী এনায়েতপুরী (রঃ)-এর উত্তরসুরীর মানবিক সেবা প্রতিষ্ঠান খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে লেখা-পড়ায় ছাত্র-ছাত্রীদের উৎসাহী করতে আজ বৃহস্পতিবার সিরাজগঞ্জে অনুষ্ঠিত হবে দেশের বৃহৎ মেধা ভিত্তিক বৃত্তি প্রদান উৎসব। সকাল পৌনে ১১ টায় জেলার বেলকুচি উপজেলার ঐতিহ্যবাহী রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের এই অনুষ্ঠানকে কেন্দ্র করে অংশ গ্রহনে আমন্ত্রিত মাধ্যমিক পর্যায়ের সিরাজগঞ্জের ১০৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের দেড় লক্ষাধীক ছাত্র-ছাত্রী ও শিক্ষকদের মাঝে বিরাজ করছে উৎসাহ- উদ্দিপনা। এদিকে গত ৭ দিন ধরে চলা অনুষ্ঠান স্থলের সাজ-সজ্জা হয়েছে শেষ। ইসলামের নীতি আদর্শ অনুসরন করে মানবতার কল্যাণে নিবেদিত হবার দৃঢ় প্রত্যয় নিয়ে ২০০১ সালে খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশন যাত্রা শুরু করে। প্রখ্যাত ওলিয়ে কামেল হযরত খাজা বাবা ইউনুছ আলী (রঃ) এর সন্তান পীরে কামেল হযরত খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) এর পুত্র খাজা টিপু সুলতান তার বাবার নামানুসারে দেশ ব্যাপী মানবতার কল্যানে অরাজনৈতিক, অলাভজনক এই ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠিত করেন। এরপর হতে অসহায়দের চিকিৎসা, শিক্ষা, দুর্যোগে ত্রান সহায়তা সহ ছাদগায়ে জারিয়ার মাধ্যমে বেকার কর্মক্ষম মানুষের আর্থিক পৃষ্ঠপোষকতা দিয়ে আসছে। ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠা বছরই খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ)-এর মাধ্যমিকে পড়া জেলার প্রথম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান স্থল পাকড়াশী ইন্সটিটিউটে এলাকার কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নিয়ে সংগঠনের উদ্যোগে বৃত্তি প্রদান কার্যক্রম শুরু হয়। এরপর নানা মানবিক কর্মকান্ডের গুনে সাড়া দেশে খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশনের প্রশংসা ছড়িয়ে পড়ে। প্রতি বছরই সিরাজগঞ্জের শতাধীক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সম্পৃক্ত করে অনারম্বর অনুষ্ঠানের মাধ্যমে মেধাবী ছাত্র-ছাত্রীদের দেয়া হয় বৃত্তি ও সম্মাননা। এছাড়া ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে দেশের অসহায় মানুষদের নানা ধরনের সহযোগীতা দেয়া হচ্ছে। এরই ধারাবাহিকতায় আগামী বৃহস্পতিবার সকালে রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে সিরাজগঞ্জ জেলার ১০৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে সম্পৃক্ত করে মেধা ভিত্তিক বৃত্তি প্রদান উৎসব অনুষ্ঠিত হবে। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জেএসসি ও জেডিসি ৭৫৫ জন জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ছাত্র-ছাত্রীকে সম্মাননা এবং অষ্টম ও দশম শ্রেনীর ৪৮৫ জন ছাত্র-ছাত্রীকে বৃত্তি ও সম্মাননা সনদপত্র প্রদান করা হবে। এই অনুষ্ঠানকে ঘিরে অনুষ্ঠান স্থল তথা আশপাশ এখন সাজ-সাজ রব। আমন্ত্রিত স্কুল গুলোতেও চলছে নানা প্রস্তুতি। এ ব্যাপারে এনায়েতপুর ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল কাদের মিয়া, তামাই প্রভাকর বিদ্যা নিকেতনের অধ্যক্ষ আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ, কিশলয় কিন্ডার গার্টেন স্কুলের অধ্যক্ষ আতিকুল ইসলাম ফজলু জানান, প্রতিবছর আমাদের ধর্মীয় নানা উৎসব হয়। তবে আমাদের জেলায় ছাত্র-ছাত্রী এবং শিক্ষকদের উৎসব একটিই। আর তা হচ্ছে খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠান। আমরা প্রতিবছরই এই দিনটির অপেক্ষা করি। আমরা ফাউন্ডেশনের মানবিক কল্যানকর কাজ গুলোকে স্যালুট জানাই। এদিকে তামাই বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল হামিদ, খুকনী উচ্চ বিদ্যালয় ও কলেজের প্রধান শিক্ষক আব্দুস ছালাম খান জানান, সারা জেলাতেই রাজনীতিবিদদের নিয়ে সভা-সমাবেশ সহ নানা অনুষ্ঠান হয়। সব কিছুতেই তাদের অবস্থান। কিন্তু শিক্ষক ছাত্র-ছাত্রীদের নিয়ে মর্যাদায় সম্মানিত করার একমাত্র অনুষ্ঠান হচ্ছে খাজা মোজাম্মেল হক (রঃ) ফাউন্ডেশনের বৃত্তিপ্রদান অনুষ্ঠান। এটা আমরা বলবো শিক্ষা বিস্তারের মিলন মেলা।

এদিকে এ বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে বরাবারের মত প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে খাজা মোজাম্মেল হক (র.) ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান খাজা টিপু সুলতান শিক্ষার্থীদের মাঝে বৃত্তির নগদ অর্থ ও সম্মাননা সনদ তুলে দেবেন। এতে সভাপতিত্ব করবেন সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ। এছাড়া অনুষ্ঠানের অন্যতম আর্কষণ মেধা ভিত্তিক খেলার অনুষ্ঠান ‘মেধায় মাতি’। পর্বটি পরিচালনা করবেন ফাউন্ডেশনের সিলেট অঞ্চলের প্রধান সমন্বয়কারী আরমান খান। গান পরিবেশন করবেন দেশের খ্যাতনামা সংগীত শিল্পী ফেরদৌস ওয়াহিদ। ফাউন্ডেশনের উত্তরাঞ্চলের প্রধান সমন্বয়কারী আনছার আলী খান জয় জানান, ছাত্র-ছাত্রীদের মেধায় মনোনিবেশের পাশাপাশি ভাল কাজে উৎসাহী করতেই আমাদের এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করছে খাজা মোজাম্মেল হক ফাউন্ডেশন। মোটামোটি সকল প্রস্তুতি সমাপ্তের দিকে। আশা করছি অতীতের মত অনুষ্ঠান প্রাণবন্ত করতে সবাই যথা সময়ে এসে উপস্থিত হবেন