সুন্দরগঞ্জে স্কুল ছাত্রীকে যৌন হয়রাণির অভিযোগে আটক ১

আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে নবম শ্রেণির এক ছাত্রীকে যৌন হয়রাণিতে বাঁধা দেয়ায় তার বাবা মোখলেছুর রহমানকে বেধরক মারপিটের ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, বুধবার বিকেলে যৌন হয়রাণির মূল আসামীকে গ্রেপ্তার পূর্বক জেল হাজতে পাঠিয়েছেন থানা পুলিশ। এরআগে মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বিকেলে সুন্দরগঞ্জ কেন্দ্রীয় পূজা মন্ডপে অনুষ্ঠিত শারদীয় দূর্গা পূজা মন্দিরের সামনে সুন্দরগঞ্জ আমিনা সরকারি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রীকে যৌন হয়রাণির সময় তার বাবা মোখলেছুর রহমান বাধা প্রদান করেন। এতে দুঃস্কৃতকারী উপজেলার দহবন্দ ইউনিয়নের জরমনদী(মাঝিপাড়া) গ্রামের চাঁন মিয়ার পুত্র মাহাফুল ইসলাম ওরফে মুন্না ও তার সহযোগীরা মোখলেছুর রহমানসহ তার মেয়েকে বেধরক মারপিট করে। এ ঘটনায় গুরুতর আহত মোখলেছুর রহমান উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। মোখলেছুর রহমান উক্ত পূজা মন্ডপের পাশে অবস্থিত দহবন্দ ইউনিয়ন পরিষদ কার্যালয়ে সংলগ্ন বিএস কোয়ার্টারে বসবাস করেন। তিনি উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। এ ঘটনায় মাহফুল ইসলাম ওরফে মুন্নাসহ ৬/৭ জনের নাম উল্লেখ পূর্বক অজ্ঞাত নামা আরোও ৪/৫ জন কে আসামী করে সুন্দরগঞ্জ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। আহত উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা মোখলেছুর রহমান বলেন, আমি ও আমার মেয়ে উক্ত পূজা মন্ডপের সামনে গেলে আগে থেকে ওতপেতে থাকা দুঃস্কৃতকারীরা আমার মেয়েকে যৌন হয়রাণি করার সময় আমি বাধা প্রদান করি। এতে তারা সকলেই আমাকেও মারপিট করে। এব্যাপারে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও)- থানার এসআই সামছুল হক বলেন, মামলার মূল আসামীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। এর সঙ্গে জড়িত অন্যান্য আসামীদেরকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।