তালাকপ্রাপ্ত নুরুন্নাহার

আব্দুল লতিফ তালুকদার: সম্প্রতি টাঙ্গাইলের গোপালপুরে স্ত্রীকে ১১ দিনের মাথায় তালাক দিয়ে শাশুড়িকে বিয়ের ঘটনাটি বেশ আলোচিত হয়ে উঠে বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। এমনকি বিভিন্ন গণমাধ্যমেও ঘটনাটি ব্যাপক ভাবে প্রকাশিত ও প্রচারিত হয়। তবে এই আলোচিত-সমালোচিত বিয়েটি স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের তালুকদার তার পেশীশক্তির জোরে ও সামাজিক প্রভাব খাটিয়ে বিয়েটি পড়ানো হয় বলে সম্প্রতি অনুসন্ধানে বের হয়ে এসেছে।

ঘটনা গত ৯ আগস্ট টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার কড়িয়াটা গ্রামের দরিদ্র পরিবারের মেয়ে নুরুন্নাহারের সঙ্গে ধনবাড়ি উপজেলার হাজরাবাড়ি পূর্বপাড়া গ্রামের মৃত ওয়াহেদ আলীর ছেলে মোনছের আলীর সঙ্গে বিয়ে হয়। এক লাখ টাকা দেনমোহরে হয়ে যায় বিয়েটা। বিয়ের প্রথম দিকে সবকিছু ঠিক থাকলেও কয়েকদিন পর থেকেই তাদের মধ্যে শুরু হয় দাম্পত্য কলহ।

বিয়ের প্রায় দেড় মাস পরে মেয়ের বাড়িতে বেড়াতে যান নুরুন্নাহারের মা। প্রায় এক সপ্তাহ মেয়ের বাড়ি থাকার পর গত ৮ অক্টোবরে স্ত্রী ও শাশুড়িকে নিয়ে কড়িয়াটা গ্রামে শ্বশুরবাড়ি আসেন মোনছের আলী। বাড়ি ফিরে নুরুন্নাহার মোনছের আলীর সংসার আর করবে না বলে জানায়। এর পর নুরুন্নাহারেরর বাবা সালিশ ডেকে এই বিষয়ে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে অন্যান্য ইউপি সদস্য ও গ্রামবাসীদের নিয়ে সালিশী বৈঠক বসে।

সালিশ বৈঠকের মাঝে এক পর্যায়ে রাগান্বিত হয়ে নুরুন্নাহারের মা মাজেদা বেগম মেয়েকে বলেন, “তুই সংসার না করলে আমি করব।“ এই সময় শাশুড়ি ও জামাতার মধ্যে অনৈতিক সম্পর্কের অভিযোগ তুলে প্রচুর মারধর করে নুরুন্নাহার তালাক দিতে মোনছের আলীকে এবং তার শাশুড়িকে তালাক দিতে শ্বশুরকে বাধ্য করা হয়। একই বৈঠকে মোনছের আলী ও তার শাশুড়ির বিয়ের রেজিস্ট্রি সম্পন্ন করেন কাজী গোলাম মওলা জিনহা।

যদিও ১৯৭৪ সালের মুসলিম বিবাহ আইন অনুযায়ী, একই দিনে তালাক ও বিবাহ দণ্ডনীয় অপরাধ। ফলে একই বৈঠকে তালাক দিয়ে এই বিয়ে কোনোভাবেই আইনসিদ্ধ নয়। আবার ইসলামি বিধান ও অনুশাসন অনুযায়ী, শাশুড়ি অর্থাৎ নিজের স্ত্রীর মাকে বিয়ে করা চিরস্থায়ী হারাম। তবে এই ঘটনায় কোনো অভিযোগ না থাকায় কাউকে আইনের আওতায় আনা যায়নি বলছে পুলিশ।

এদিকে ঘটনার পর থেকেই এলাকা ছেড়েছেন মোনছের আলী ও তার শাশুড়ি। মোনছেরের বৃদ্ধা মা মারধর করে জোরপূর্বক বিয়ে পড়ানোর ঘটনায় জড়িতদের বিচার চেয়েছেন।

এদিকে নিরাপত্তহীনতার কারণে নিজের বাড়িতে থাকতে পারছেন না তালাকপ্রাপ্তা নুরুন্নাহার। তবে অন্য একটি সূূূূত্রে জানা যায়, সাবেক স্বামী মোনছের আলী তাকে শারীরিক নির্যাতন করত। এছাড়া সালিশে তালাক ও বিয়ের ঘটনার জন্য নিজের মাকে দোষারোপ করেন।

এই ঘটনায় প্রভাবশালী লোকেরা জড়িত থাকায় এ ব্যাপারে কথা বলতে রাজি নয় এলাকার বেশিরভাগ মানুষ । তবে এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনায় জন্য যারা জড়িত তাদের বিচার দাবী করেন।
এদিকে এ ঘটনার বিষয়ে খোঁজখবর নেয়া হচ্ছে জানতে পেরে এলাকা ছেড়ে চলে যান স্থানীর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল কাদের তালুকদার। তবে ঘটনায় জড়িত আরেকজন ইউপি সদস্য নজরুলকে পাওয়া গেলে তিনি এ পুরো ঘটনার দায় ইউপি চেয়ারম্যানের উপরই চাপিয়েছেন।

এদিকে ওই অবৈধ বিয়ে পড়ানো বিষয়ে জানতে চাইলে কাজী গোলাম মওলা জিন্নাহ বিয়ে পড়ানোর কথা স্বীকার করেন। তিনি আরো বলেন, সালিশে আমাকে চাপ দেয়া হয়েছিল তাই বিয়েটি পড়াই।

টাঙ্গাইল জেলা আদালতের সরকারি কৌসুলি এস আকবর খান বলেন, আইন অনুযায়ী ৯০ দিন অতিবাহিত না হলে কোনোভাবেই তালাক ও বিয়ে কার্যকর হয় না। এখানে যা করা হয়েছে তা চরমভাবে আইনগত দণ্ডনীয় অপরাধ।

এছাড়া টাঙ্গাইলের কওমি ওলামা পরিষদের সহ-সভাপতি মুফতি মাওঃ মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম বলেন, পবিত্র কোরআনে সূরা নিসার ২৩ নম্বর আয়াতে শ্বাশুড়ীর সঙ্গে বিয়ে হারাম হওয়ার কথা সুস্পষ্টভাবে বলা হয়েছে, তাই ধর্মীয় বিচারে এ বিয়ে অনাচার। তারা ধর্মকে অবমাননা করেছে।

এদিকে টাঙ্গাইলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. শফিকুল ইসলাম জানান, ঘটনা সর্ম্পকে অবগত থাকলেও এ বিষয়ে কোনো প্রকার অভিযোগ না থাকায় আইনগত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়।