জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে কলাপাড়া মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানের সংবাদ সম্মেলন

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলা পরিষদ মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনা পারভিন সীমা তাঁর পরিবার সহ নিজ জীবনের নিরাপত্তা নিয়ে শংকা প্রকাশ করে প্রধান মন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন। রবিবার সকাল ১১টায় তার পৌরশহরের বাস ভবনে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন। সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্যে শাহিনা পারভিন সীমা বলেন,গত ১৭ অক্টোবর স্থানীয় সরকারী মোজাহার উদ্দীন বিশ্বাস ডিগ্রী কলেজে আয়োজিত সংসদ সদস্য অধ্যক্ষ মো: মহিব্বুর রহমান’র সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ায় এমপি’র উপস্থিতিতে তাঁর গুন্ডা বাহিনীর সদস্যরা আমাদের সাথে অসৌজন্য মূলক আচরন করে। এসময় আমাদেরকে এমপি’র ইশারায় অতিথির আসন ছেড়ে দিতে বাধ্য করায় ভাইস চেয়ারম্যান শফিকুল আলম বাবুল খান এর প্রতিবাদ করে। এতে ক্ষুদ্ধ হয়ে বিএনপি নেতার পুত্র আশিক গালাগাল দিয়ে বাবুল খান’র বাসায় তাঁকে খুঁজতে যায়। আমি আশিককে শান্ত হতে বললে আশিক আমাকেও গালাগাল ও হুমকী প্রদান করে। ওই দিন বিকালে ৮নং ধানখালী ইউনিয়নে দলীয় অনুষ্ঠানে যোগ দিতে গেলে সংসদ সদস্যের লালিত আশিক বার বার আমার পিছন থেকে বসার চেয়ার সরিয়ে নিয়ে যায় এবং একাধিকবার মাইকে ঘোষনার মাধ্যমে সস্মান নিয়ে আমাকে চলে যেতে বলা হয়। লিখিত বক্তব্যে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান শাহিনা পারভিন সীমা আরও বলেন, উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে সাংসদ অধ্যক্ষ মো: মহিব্বুর রহমান দলীয় নৌকা প্রতীকের বিপক্ষে নগ্ন ভাবে কাজ করেই থেমে থাকেননি আমার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীর পক্ষেও প্রচারনা চালিয়েছেন। তবুও আমি আমার পিতা সাবেক সাংসদ মরহুম আনোয়ার-উল-ইসলাম’র মেয়ে হিসেবে জনগনের অকুন্ঠ সমর্থন পেয়ে বিপুল ভোটে নির্বাচিত হই। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই সাংসদ মহিব আমাকে প্রতিনিয়ত সামাজিক ভাবে হেয় প্রতিপন্ন করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন।বিগত ১৯ বছর আমাদের পরিবারকে দলীয় কোন পদে থাকতে দেয়া হয়নি। আমি নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে কলাপাড়া উপজেলা মহিলা আ’লীগ নিয়ে কাজ করতে শুরু করলে সাংসদ মহিবুর বহমান ও তাঁর দুর্নীতিবাজ আত্মীয় স্বজনদের গাত্রদাহ শুরু হয়। তাঁরা গোপনে আত্মীয় স্বজন নিয়ে মহিলা আ’লীগের পকেট কমিটি গঠন শুরু করায় আমি মহিলা আ’লীগের ত্যাগী কর্মীদের নিয়ে এমপি’র বাসায় গিয়ে প্রতিবাদ করি। এবং মহিলা আ’লীগের কমিটি ত্যাগী নেতা-কর্মীদের নিয়ে করতে বলায় এমপি পতœী আমার সাথে দুর্ব্যবহার সহ চড় মারতে উদ্যত হয়।

এবিষয়ে স্থানীয় সাংসদ অধ্যক্ষ মহিব্বুর রহমান’র সাথে তাঁর ব্যবহৃত মুঠো ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সংযোগ না পাওয়ায় তাঁর বক্তব্য জানা যায়নি।