জজ পুত্রের ড্রাফটের টাকা জমা না দেওয়ায় সোনালী ব্যাংকের ৩ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মামলা

এস এম শফিকুল ইসলাম: জয়পুরহাটের বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজ এম.এ রব হাওলাদারের পুত্র রিজওয়ান শাহরিয়ার মাহি এর এসএসসি পরীক্ষার জন্য রেজিস্ট্রিশনের ব্যাংক ড্রাফটের টাকা সেবা সফটওয়্যারে জমা না দেওয়ার অভিযোগে জয়পুরহাট সোনালী ব্যাংকের ২ কর্মকর্তাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা দায়ের হয়েছে। বিজ্ঞ জেলা ও দায়রা জজের জারিকারক মোস্তাফিজুর রহমান বাদি হয়ে এ মামলা দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হলেন- জয়পুরহাট সোনালী ব্যাংকের অফিস সহায়ক (কম্পিউটার) মিজানুর রহমান, আইটি অফিসার দিবা বেগম ও ব্যাংকের অফিসার মহিমা খাতুন। মামলার বিবরণে জানা যায়, জয়পুরহাটের জেলা ও দায়রা জজ জনাব এম.এ রব হাওলাদার খুলনা হইতে জয়পুরহাটে বদলীর কারণে ও রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ২০১৮-২০১৯ শিক্ষা বর্ষে ২০২০ খ্রিঃ সালের এসএসসি পরীক্ষার জন্য তার পুত্র রিজওয়ান শাহরিয়ার মাহির রেজিষ্ট্রেশন করানোর জন্য জেলা ও দায়রা জজের জারিকারক মোস্তাফিজুর রহমানের উপর জেলা ও দায়রা জজ দায়িত্ব অর্পন করেন। জারিকারক মোস্তাফিজুর রহমান গত ২৩/১০/১৯ ইং তারিখে সোনালী ব্যাংক জয়পুরহাট শাখায় প্রয়োজনীয় তথ্য সহ ২৫০/- টাকা প্রদান করে তা সোনালী ব্যাংক, সেবা সফটওয়্যার এ জমা দেওয়ার জন্য ব্যাংকের অফিস সহায়ক (কম্পিউটার) মিজানুরকে অনুরোধ করে। তাতে সোনালী ব্যাংক জয়পুরহাট শাখার অফিসার (আইটি) দিবা বেগম ও অফিসার মহিমা খাতুন ইচ্ছাকৃত ও প্রতারণামুলক ভাবে সেবা সফটওয়্যার এ সেই টাকা জমা প্রদান না করে ডিমান্ড ড্রাফট কাটাকাটি করে সেবার সফটওয়্যার ব্যবহার না করে সেই ড্রাফটি তাকে প্রদান করেন। জারিকারক মোস্তাফিজুর রহমান সেই ড্রাফট জেলা ও দায়রা জজকে প্রদান করিলে তিনি তা সিনিয়র সহকারী জজ আদালত (সদর) এর বেঞ্জ সহকারী আকবর আলীর মাধ্যমে রাজশাহী মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা বোর্ডে পরবর্তী কার্যক্রমের জন্য প্রেরন করে। পরে সেই জমাকৃত টাকার ডিমান্ড ড্রাফট কাটাকাটি থাকায় ও সংশ্লিষ্ট সোনালী সেবা সফটওয়্যার এ জমা প্রদান না করায় রেজিষ্ট্রেশন কাজে বাঁধা গ্রস্থ হয়। পরবর্তীতে সোনালী ব্যাংক, গ্রেটার রোড শাখা, রাজশাহীতে গত ২৭/১০/১৯ ইং তারিখে রেজিষ্ট্রেশনের জন্য নির্ধারিত ২৫০/- টাকা সোনালী সেবা সফটওয়্যার এর মাধ্যমে জমা করিতে হয়। মামলার বিবরনীতে আরও উল্লেখ করা হয়েছে- ইচ্ছাকৃত, প্রতারনামুলকভাবে সেবা প্রত্যাশীকে ক্ষতিগ্রস্থ করার জন্য ২৫০/- টাকার ড্রাফটে কাটাকাটি ও সেবার সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ড্রাফট না করার অপরাধে তাদের ৩ জনের নামে জয়পুরহাট সদর থানায় মামলা করা হয়। এ বিষয়ে জয়পুরহাট সদর থানার অফিসার ইনচার্জ শাহরিয়ার খাঁন জানান, থানায় সোনালী ব্যাংকের ২ কর্মকর্তাসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে মামলা এন্ট্রি হয়েছে। এ ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে।