সুন্দরগঞ্জে দোকান ভাংচুর করে লুট

আবু বক্কর সিদ্দিক: গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নে অবস্থিত শখেরবাজারস্থ পূর্ব পরিকল্পিতভাবে কয়েকটি দোকান ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ভিন্নখাতে প্রবাহের অপচেষ্টা চালাচ্ছে একটি কুচক্রী মহল। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে দুরত্ব বজায় রাখাসহ উপজেলার সর্বত্রে দোকানপাট, হাট-বাজার, গণসংযোগস্থল সমূহে বিশেষ ব্যবস্থা আরোপ করা হয়েছে। এরই অংশ হিসেবে গত বুধবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে উক্ত বাজারে অবস্থিত দোকানদারদেরকে দুরত্ব বজায় রেখে ব্যবসা চালানোসহ গণভীর হ্রাসে খোলা চায়ের দোকানগুলো বন্ধের জন্য কঞ্চিবাড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ টিম উক্ত বাজারে চলে যান। পুলিশের উপস্থিতি দেখে ধূর্ত দোকানদাররা গাঁ ঢাকা দেন। এরপর পুলিশ টিম উক্ত বাজারের পার্শ্ববর্তী মাঠেরহাট চৌরাস্ত মোড় নামক স্থানে অস্থায়ী চেক পোষ্টে চলে যাবার পর পূর্বের ন্যায় দোকানদাররা ভীর জমাতে থাকে। এতে উক্ত বাজারে অবস্থিত চেংমারী গ্রামের এক বাসিন্দার একটি চায়ের কাপ ভেঙ্গে ফেলাকে কেন্দ্র করে দাশেরটারীর দোকানদার ও চেংমারীর দোকানদারদের মাঝে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পরে। এতে একপক্ষ অপরপক্ষের উপর ক্ষীপ্ত হয়ে মারপিট ও ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের অন্তত: ৮ জন আহত হয়ে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা গ্রহণ নেন। পরবর্তীতে খবর পেয়ে পুণঃরায় পুরলিশ টিম ঘটনাস্থলে পৌঁছার পূর্বে উভয়পক্ষের লোকজন সঁটকে পরে। এ ঘটনাকে একটি কুচক্রী মহল ভিন্ন খাতে প্রবাহের জন্য জোড় অপতৎপরতা চালাচ্ছেন। এ ব্যাপারে প্রত্যক্ষদর্শী জনৈক ভ্যান চালক আনিছুর রহমান, সাইদুর রহমান, শাহীন মিয়া বলেন, এ বাজারে বখাটেদের উৎপাত অনেকটাই বেশী। এ বখাটেরা নানাভাবে নারকীয় ঘটনা ঘটিয়ে অবৈধভাবে অর্থ হাতিয়ে নেয়। সম্প্রতি এ বাজারে অবস্থিত খাদ্যবান্ধব কর্মসূচীর ডিলার শহিদুল ইসলামের বিরুদ্ধে এমন ঘটনা ঘটিয়ে তাকে চরমভাবে হেনস্থা করে এই বখাটেরা। এরপর মোবাইল কোর্টে ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় ডিলার উক্ত কোর্টে কতিপয় বখাটের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজীর অভিযোগ করেছেন। এই হল এ বাজারের বখাটেদের কর্মকাণ্ড। এদের উৎপাতে সাধারণ মানুষজন অতিষ্ট হয়ে উঠেছে। এরই একটি এ ঘটনা। ঘটনার সময় পুলিশ টিমের উপস্থিতি ছিলনা। ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলাম জানান, এ ঘটনার সঙ্গে পুলিশটিমের কোন সম্পৃক্ততা ছিলনা। এমনকি, পুলিশ টিম এ ঘটনার কমপক্ষে আধা ঘন্টা আগে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে পুলিশি ভূমিকা বা দায়িত্ব পালন করে অন্যত্রে চলে যায়। পুলিশ টিম চলে যাবার পর দোকানদাররা পূর্বের ন্যায় কর্মকাণ্ড চালাতে থাকে। এতে চেংমারী ও দাশেরটারী নামের ২ পাড়ার দোকানদারদের মধ্যে চায়ের কাপ ভাঙ্গা নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে মারামারি ও দোকান ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। এতে কয়েকেজন আহত হয়ে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা নেন। ঘটনার পর খবর পেয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের জন্য পুলিশ টিম উক্ত বাজারে আসার আগেই ২ পক্ষের মধ্যে একপক্ষের লোকজন অপরপক্ষের লোকজনের ভয়ে নিজ নিজ বাড়িতে চলে যায়। ঘটনার পর পুলিশ এসে আর কাউকে পায়নি। এ ব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদের কয়েকজন সদস্যের সঙ্গে পৃথক পৃথকভাবে কথা হলে তারাও ইউপি চেয়ারম্যান শহিদুল ইসলামের কথাকে সমর্থন করেন। কঞ্চিবাড়ি পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের এসআই রাজেন্দ্র মোহন চাকী জানান, বর্তমানে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রতিরোধে পুলিশি সেবাদানে আমরা আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। তবে আমরা পুলিশ হিসেবে এই দূর্যোগের বাইরে নই। আমরাও মানুষ। তবুও দায়িত্ব ও কর্তব্য পালনে সচেষ্ট রয়েছি। মহল বিশেষে এ ঘটনা ভিন্ন খাতে নিয়ে স্বার্থ হাছিলের পায়তারা চালাচ্ছেন। তবে, কোন পক্ষ এ পর্যন্ত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।