সাঁথিয়ায় কিন্ডারগার্টেন শিক্ষকদের মানবেতর জীবনযাপন

আব্দুদ দাইন: করোনা মহামারির কারণে সরকারী নির্দেশে দেশব্যাপী সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করায় চলছে লক ডাউন। এতে করে কর্মহীন হয়ে পড়েছে সকল শ্রেণী পেশার মানুষ। সরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি বেসরকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় পাবনার সাঁথিয়া উপজেলার কিন্ডার গার্টেন এর শিক্ষকদের পরিবারে চলছে নীরব দুর্ভিক্ষ। শিক্ষার্থীদের বেতনের টাকায় চলা এসব শিক্ষকদের সহায়তায় কেউ এগিয়ে না আসায় পরিবার পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে পড়েছেন। ফলে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা। জানা গেছে সাঁথিয়া উপজেলা ১০টি ইউনিয়নে ও ১টি পৌরসভা মিলে প্রায় ৫০টিরও বেশী কিন্ডার গার্টেন (কেজি)এ ৫ শতাধিক শিক্ষক শিক্ষিকা নিয়োজিত রয়েছেন। এরা প্রায় ১৫ হাজার শিক্ষার্থীদের শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে আসছেন। এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো শিক্ষার্থীদের বেতনের টাকায় পরিচালিত হয়। এমনকি শিক্ষার্থীদের বেতনের টাকায় শিক্ষকেরা বেতন ভাতা পেয়ে থাকেন। এটা দিয়ে আর প্রাইভেট টিউশনের ফি দিয়ে চলত শিক্ষকদের অস্বচ্ছল পরিবারের ভরণপোষণ। কিন্তু প্রতিষ্ঠানগুলো বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীদের বেতন যেমন বন্ধ রয়েছে। পাশাপাশি বন্ধ রয়েছে প্রাইভেট টিউশন। ফলে কোনদিক দিয়েও তারা উপার্জন করতে পারছে না। চক্ষু লজ্জার ভয়ে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকেরা লাইনে দাড়িয়ে ত্রাণ নিতেও পারছেন না। পারছেন না মুখ ফুটে কাউকে কিছু বলতে। নাম প্রকাশ করার শর্তে কয়েকজন শিক্ষক বলেন,কেজি স্কুলের শিক্ষকতা আর প্রাইভেট পড়িয়ে কোনরকম পরিবার নিয়ে চলতাম। এমনিতেই ঠিকমত বেতন পাই না,তার উপর করোনায় লকডাউন। পরিবার পরিজন নিয়ে চরম বিপাকে রয়েছি। সাঁথিয়া কিন্ডার গার্টেন এসোশিয়েসনের সভাপতি ও সরকার কিন্ডার গার্টেনের অধ্যক্ষ ফজলুল হক বলেন, স্কুল বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা কোন বেতন দিচ্ছে না। ওরা বেতন ন্ধাসঢ়; দিলে তো শিক্ষকদেরও বেতন হবে না। তা ছাড়া কেজি স্কুলের শিক্ষকেরা সরকারি

কোন সুযোগ সুবিধা পান না। এই দুর্যোগকালীন সময়ে সরকারী বা বেসরকারীভাবে কোন সুযোগ সুবিধা না পাওয়ায় তাদের পরিবারে হাহাকার বিরাজ করছে। এ বিষয়ে উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ দেলোয়ার সহায়তার আশ্বাস দেন।