জয়পুরহাটে করোনা আক্রান্ত গার্মেন্টসকর্মী স্ত্রীসহ লাপাত্তা!

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: জয়পুরহাটে নতুন করে তিন নারীসহ চারজনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তবে নিজে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার খবর পেয়েই স্ত্রীসহ পালিয়ে গেছেন এক গার্মেন্টসকর্মী। তাকে আইসোলেশনে নিতে খোঁজা হচ্ছে। এ নিয়ে জেলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ৩৮ জনে।

গতকাল বুধবার রাতে সিভিল সার্জন ডা. সেলিম মিঞা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, নতুন আক্রান্তদের চিকিৎসার জন্য আক্কেলপুরের গোপীনাথপুর আইসোলেশন সেন্টারে নেওয়ার প্রস্তুতি চলছে। কিন্তু তার আগেই করোনায় আক্রান্ত গার্মেন্টসকর্মী স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে গেছেন।

সূত্র জানায়, বুধবার আক্রান্তদের মধ্যে রয়েছেন- কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্টাফসহ পৌর এলাকার দুজন নারী, আক্কেলপুর উপজেলার এক নারী গার্মেন্টসকর্মী ও জয়পুরহাট সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নে শ্বশুরবাড়িতে থাকা এক গার্মেন্টসকর্মী।

সিভিল সার্জন ডা. সেলিম মিঞা জানান, কয়েকদিন আগে কালাই উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের এক নৈশপ্রহরী করোনা আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হন। তার বাড়িতে আসা গার্মেন্টসকর্মী বোন ও ভগ্নিপতির সংস্পর্শে তিনি করোনায় আক্রান্ত হন। পরে বাড়ির লোকজনসহ হাসপাতালের স্টাফদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। সর্বশেষ পাওয়া প্রতিবেদনে, নৈশপ্রহরীর মা ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে মাস্টাররোলে কাজ করা এক নারীর শরীরে করোনার উপস্থিতি ধরা পড়েছে।

তিনি বলেন, আক্কেলপুর উপজেলার রুকিন্দিপুর ইউনিয়নের এক নারী গার্মেন্টসকর্মীর করোনা শনাক্ত হয়েছেন। এ ছাড়া জয়পুরহাট সদর উপজেলার দোগাছি ইউনিয়নে শ্বশুরবাড়িতে অবস্থান করা এক গার্মেন্টসকর্মীর নমুনাতেও করোনা শনাক্ত হয়েছে। কিন্তু নওগাঁর ধামুরহাট থেকে আসা এ গার্মেন্টসকর্মী করোনা আক্রান্তের তথ্য জেনে স্ত্রীসহ পালিয়ে গেছেন।

এ ব্যাপারে জয়পুরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহা. শাহরিয়ার খাঁন জানান, স্বাস্থ্যকর্মীরা দোগাছি ইউনিয়নে গেলে সেখানে করোনা আক্রান্ত গার্মেন্টসকর্মী যুবককে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তাকে খোঁজা হচ্ছে বলে জানান তিনি।