ভূঞাপুরে খানুরবাড়ী ভাঙ্গন কবলিত এলাকা প্রতিনিধির তোলা

আব্দুল লতিফ তালুকদার: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে যমুনা নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় শুরু হয়েছে ভাঙন। উপজেলার গোবিন্দাসী ইউনিয়নের খানুরবাড়ি, কষ্টাপাড়া, ও ভালকুটিয়া এলাকায় ভাঙন শুরু হয়েছে। এতে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে নদী পাড়ের মানুষ। বৃহস্পতিবার সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, পানি বাড়াতে ইতিমধ্যে নতুন নতুন বসতভিটা নদীগর্ভে বিলীন হওয়ার পথে। ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে বিদ্যালয়, মসজিদ, মন্দিরসহ বেশ কয়েকটি পোল্ট্রি খামার, বসতভিটাসহ ফসলি জমি। গত বছর ভাঙনরোধে গোবিন্দাসী ইউনিয়নের খানুরবাড়ি এলাকায় ২০০ মিটার ভাঙনে জিওব্যাগ ডাম্পিং করে জেলা পানি উন্নয়ন বোর্ড। ভাঙনকবলিত খানুরবাড়ি এলাকার আব্দুল জলিল ও জহুরুল ইসলাম বলেন, নদীতে পানি খুব বেশি না বাড়লেও শুরু হয়েছে ভাঙন। গত ১৫ দিন যাবৎ এ ভাঙন দেখা দিয়েছে। কিন্তু ভাঙনরোধে এগিয়ে আসেনি কেউ। ভালুকুটিয়া গ্রামের মেঃ সবুর ও কষ্টাপাড়া গ্রামের রফিকুল ইসলাম বলেন, গত বছর আমাদের চোখের সামনে বাড়িঘর ভীটেমাটি নদীগর্ভে চলে গেছে। এখন বাসা ভাড়া করে থাকতে হচ্ছে আমাদের। ভাঙনের মুখে দাঁড়িয়ে থাকা আব্দুল জলিল বলেন, এই মুহুর্তে ভাঙনরোধের ব্যবস্থা না নিলে শেষ সম্ভলটুকুও হারিয়ে যাবে। এ বিষয়ে, টাঙ্গাইল পাউবো’র নির্বাহী প্রকৌশলী সিরাজুল ইসলাম বলেন, যমুনা নদীর পূর্বপাড়ের টাঙ্গাইলে অংশে ভাঙন রোধের জন্য প্রকল্প তৈরি করে সেটি অনুমোদনের জন্য পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন পেলেই কাজ দ্রুত শুরু করা হবে। এ বিষয়ে টাঙ্গাইল-২ সংসদীয় আসনের এমপি তানভীর হাসান ছোট মনির বুধবার ত্রাণ বিতরণ এক অনুষ্ঠানে বলেন, করোনার কারনে আমরা ত্রাণ কার্যক্রমে ব্যস্ত রয়েছি। ভূঞাপুরে ইকোনিমিক জোন হবে এবং বাঁধওহবে। কিন্তু করোনার কারনে আপাদতত কাজটি স্থগিত রয়েছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলেই বাঁধের কাজ শুরু হবে।