সাপাহার সীমান্তে বিজিবির কঠোর অবস্থানে বাধ্য হয়ে ভারতীয় নাগরীক সহ বিএসএফ'র স্থান পরিবর্তন

বাবুল আকতার: নওগাঁর সাপাহার উপজেলার কলমুডাঙ্গা সীমান্তের বিপরিতে জিরোলাইনে ৩দিন ধরে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করা ভারতীয় নাগরিক সহ বিএসএফ সদস্যরা স্থান পরিবর্তন করে পিছু সরে গেছে। জানা গেছে গত ১৭মে রবিবার বেলা ১১টার দিকে ওই সীমান্তের ২৩৭পিলারের অদুরে ভারতের আদাডাংগা বিএস এফ ক্যাম্পের টহলদল এক ভারতীয় বৃদ্ধকে কাটাতারের বেড়া পার করে বাংলাদেশের অভ্যন্তরে পুশ ইন এর চেষ্টা করে। তাৎক্ষনিক সংবাদ পেয়ে স্থানীয় কলমুডাঙ্গা বিজিবির টহল দল ঘটনাস্থলে পৌছে সেখানে কঠোর অবস্থান নিয়ে বিএস এফ এর পুশইন তৎপরতাকে প্রতিহত করে। পরে সেখানে ওই সীমান্তে উভয় দেশীয় সীমান্ত রক্ষিবাহিনী অতিরিক্তি সৈন্য মোতায়েন করে কঠোর অবস্থান নেয়। ফলে পুশ ইনের জন্য নিয়ে আসা ওই ব্যক্তিকে রোববার দুপুর থেকে পরদিন সোমবার ও মঙ্গলবার বিকেল পর্যন্ত ওই সীমান্তে খেয়ে না খেয়ে মানবেতর অবস্থায় অবস্থান করতে হয়। এর পর বিজিবি-বিএসএফ’র মধ্যে আলাপ আলোচনায় এর কোন সু- রাহা না হওয়ায় উভয় দেশের সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর সদস্যরাও তিন দিন ধরে সীমান্তের নো ম্যান্স ল্যান্ডে অবস্থান করেন। অবশেষ গত মঙ্গলবার সন্ধ্যার কিছু পূর্ব মহুর্তে ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর সদস্যরা পুশইন এর শিকার ওই ব্যক্তিকে নিয়ে পিছু সরে স্থান পরিবর্তন করে কাটা তারের বেড়ার মধ্যে নিয়ে যায় এবং কাটাতারের বেড়া ঘেঁষে তাদের সীমান্ত রাস্তায় টহল বসায়। পরবর্তীতে তারা ওই ব্যক্তিকে আবার পুশ ইন করতে পারে ভেবে বিজিবি সদস্যরাও নো ম্যান্স ল্যান্ড ঘেঁষে অবস্থান নিয়ে বসে থাকে। তবে এর সুষ্ঠ সমাধান কবে হবে এ বিষয়ে কেউ কোন কথা বলছেনা। কিন্তু বুধবার সকাল পর্যন্ত ভারতীয় সীমান্ত রক্ষীবাহিনীর সদস্যরা পুশ ইন করা ওই ব্যক্তিকে নিয়ে ভারত অভ্যন্তরে সীমান্ত ঘেঁষে অবস্থান করছে। মঙ্গলবার বিকেলে এ ঘটনায় ১৬বিজিবি অধিনায়ক লে:কর্ণেল আরিফুজ্জামান এর সথে মোবাইল ফোনে কথা হলে তিনি জানান যে, ওই বৃদ্ধ ভারতীয় নাগরিক সে বর্তমানে জিরো ল্যান্ডে হতে ভারত অভ্যন্তরে অবস্থান করছে এবং বিষয়টি নিরসনে বিজিবি বিএসএফ’র মধ্যে আলাপ আলোচনা চলছে বলে জানান। তিন দিন না খেয়ে

থাকা পুশ ইন এর শিকার ওই ব্যক্তিকে ভারতীয় বিএসএফ সদস্যরা শুকনো খাবার ও পানি পান করাচ্ছে বলে বিশ্বস্থ সূত্রে জানা গেছে।