কলাপাড়ায় সরকারি সহায়তা পেলে সিকদার ডেইরী ফার্ম ও নার্সারী হতে পারে একটি মডেল প্রতিষ্ঠান

এস.কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়ার পৌর শহরের সিকদার সড়কে দেশীয় একটি ক্রোস গরু দিয়ে স্বল্প মূলধনে ২০১০ সালে ডেইরী ফার্মের ব্যবসা শুরু করেন। পরিশ্রম ও সততা দিয়ে এখন এটাকে একটি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিনত করেছেন। ব্যবসায়ের লভাংশ ও বিভিন্ন এনজিও থেকে লোন করে এ পর্যন্ত এসেছে। সিকদার ডেইরী ফার্ম ও সিকদার মৎস্য নার্সারীর মালিক এস. এম মুর্তুল্লা সৌরভ জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০২০ সম্মাননা স্মারক পান। সরকারী সহায়তা বা স্বল্প সুদে ঋন পেলে এ ফার্মটি কলাপাড়ায় একটি মডেল হিসাবে রুপান্তড়িত করতে পারে বলে তিনি জানান। জানা যায়, সিকদার মৎস্য নার্সারীর লভ্যাংশ হতে ১ লক্ষ ২০ হাজার টাকা দিয়ে ২০১০ সালের প্রথম দিকে ডেইরী ফার্মের ব্যবসায় শুরু করেন এস. এম মুর্তুল্লা সৌরভ। প্রথম দেশী একটি ক্রোস গরু দিয়ে ডেইরী ফার্মের ব্যবসার খাতায় নাম লেখান তিনি। বর্তমানে তার ফার্মের ব্যবসায়ের মূলধন প্রায় ৩০ লক্ষ টাকা। যদিও এর সিংহভাগই বিভিন্ন এনজিও সংগঠন হতে লোন করে আনতে হয়েছে। করোনার প্রাদুর্ভাবের কারনে ফার্মের ১২ টি গরুর মধ্যে কয়েকদিন পূর্বে ৬ টি গরু বিক্রি করেন তিনি। এখন তার ফার্মে ১ টি মুন্ডি গরু, ইন্ডিয়ান গির ও হোলষ্ট্যান ফ্রিজিয়ান গরুসহ ৬ টি বিভিন্ন জাতের গরু রয়েছে। তারমধ্যে ইন্ডিয়ার গির জাতের একটি ষাড় রয়েছে। মালিক সৌরভ তার নাম রেখেছে রাজা বাবু-২। এটা বর্তমানে একটি ১২ মাসের বাছুর গরু। যার ওজন এখনই প্রায় ৪ থেকে ৫ মন হবে বলে ধারনা করা হচ্ছে।এস. এম মুর্তুল্লা সৌরভ রাজা বাবু-২ কে দিয়ে উপজেলার অন্যান্য ফার্মের গরুকে ক্রোস দিয়ে বংশ বিস্তার করে উপজেলার সুনাম বাড়াতে চান। তার ডেইরী ফার্ম হতে প্রতিদিন ৪৫ কেজি দুধ সংগ্রহ করা হয়। যা স্থানীয় বাজারে বিক্রি করে তার প্রতিদিনের ব্যয় নির্বাহ করে মাস শেষে ভালো লভাংশ থাকে। তার ফার্মের গরুকে খইল, ভূট্টা ভাঙ্গা ও নিজ খেতে উৎপাদিত জার্মানি ঘাস খাওয়ান তিনি। জানা যায়, অধম্য পরিশ্রমী, তরুন ও উদ্যোগী ব্যবসায়ী এস. এম মুর্তুল্লা সৌরভ ২০০১ সালে একখন্ড জমি লিজ নিয়ে মাত্র ৩ হাজার টাকায় ১ প্যাকেট কাতলা মাছের রেনু পোনা দিয়ে সিকদার মৎস্য নার্সারীর ব্যবসায় শুরু করেন। বর্তমানে তার নার্সারীতে বিভিন্ন প্রজাতির কয়েক লক্ষ টাকার মাছ রয়েছে। সরকারি সহায়তা ও স্বল্প সুদের ঋন পেলে তার ব্যবসায়কে উপজেলার একটি মডেল প্রতিষ্ঠান হিসাবে দাঁড় করাতে পারেন বলে জানান। সিকদার ডেইরী ফার্ম ও সিকদার মৎস্য নার্সারীর মালিক এস. এম মুর্তুল্লা সৌরভ বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা কৃষকদের সুবিধার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রণোদনা দিয়ে আসছেন। অথচ আমি এখন পর্যন্ত সরকারি কোন সহায়তা পাইনি। তার মতে, ফার্মটিকে নিয়ে আমি অনেক বড় স্বপ্ন দেখছি। সরকারী সহায়তা বা স্বল্প সুদের ঋন পেলে আমার ব্যবসাকে উপজেলার একটি মডেল হিসাবে দাঁড় করাতে পারি। এজন্য আমি যথাযথ কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছি। এবিষয়ে কলাপাড়া উপজেলা পশু ও প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. হাবিবুর রহমান জানান,আমরা এসকল উদ্যোগতাদের সাধুবাদ জানাই। ডেইরী ফার্মের মালিক সৌরভ সিকাদরকে আমি বিভিন্ন প্রশিক্ষণ দিয়েছি। সরকারি সহায়তা বা লোনের জন্য তফসিলভূক্ত ব্যাংকের মাধ্যমে আমার কাছে আসলে আমি যথাসম্ভব সহায়তা করবো।