ওসি প্রদীপের রোষানলে এখনও ভুগছেন দুই তরুণ

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: কক্সবাজারের টেকনাফ থানার সাবেক ওসি প্রদীপের রোষানল থেকে ছাড় পাননি পর্যটকরাও। প্রদীপের নির্যাতনের শিকার হয়েছেন নারায়ণগঞ্জের দুই তরুণও। মিথ্যা মামলায় তাদের মধ্যে একজন ১৫ দিন জেল খেটেছেন আর আরেকজন ১ মাস ধরে রয়েছেন জেলে।

প্রীতম ও লিংকন। দুই চাচাতো ভাই। প্রীতম মালয়েশিয়া থেকে করোনা সংক্রমণের আগে দেশে ফেরেন। আর লিংকন স্থানীয় কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্র। দু’জনের বাড়ি নারায়ণগঞ্জে। লকডাউনের মধ্যে কক্সবাজার যান তারা। তবে সেখানে হোটেল-মোটেল বন্ধ থাকায় এক অটোরিকশা চালকের পরামর্শে টেকনাফে যান দু’জন। আবাসনের আশায়।

তবে সেখানে গিয়ে তারা ফেঁসে যান প্রতারক চক্রের হাতে। এরপর সেখান থেকে পুলিশ এসে তাদের উদ্ধার করে টেকনাফ থানায় নিয়ে যায়।

এরপর তৎকালীন ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে পুরো ঘটনা বলা হলে তিনি বলেন, ওরা ইয়াবা কারবারের সঙ্গে জড়িত। এরপর প্রীতমের প্যান্টের পকেটে ৪০০ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে- এমন অভিযোগ এনে মাদক মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পাঠানো হয় আদালতে। আর লিংকনকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে ১৫ দিনের সাজা দেওয়া হয়।

ভুক্তভোগী লিংকন বলেন, ওসি প্রদীপ কুমার আমার ভাইকে খালি জিজ্ঞাসা করছে এখানে কেন আসছোস? আমার ভাই স্যারকে পুরো ঘটনা বলার পরে সে মামলার ফাইল তৈরি করতে বলেছে। হাতে পায়ে ধরার পরে বল তোর জীবন শেষ করে দিমু।

কলেজছাত্র লিংকন বলেন, দু’দিন থানায় আটকে রাখা হয়েছিল। ওসি প্রদীপের পায়ে ধরেছি যাতে মামলা দিয়ে জেলে পাঠানো না হয়। এরপরও ১৫ দিনের সাজা দিয়ে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। তবে আমার ভাইকে ছাড়েনি।

প্রীতমের পরিবারের সদস্যরা জানান, মিথ্যা মামলায় এখনও কক্সবাজারের জেলে রয়েছেন প্রীতম। ওসি প্রদীপ যে আচরণ করেছেন, এটা ভাষায় প্রকাশযোগ্য নয়।

প্রীতম ও লিংকনের গ্রেফতারের পরে খবর পেয়ে টেকনাফে যান তাদের স্বজনরা। তবে প্রদীপ দাশের কাছে কোনো অনুকম্পা মেলেনি বলে দাবি তাদের।