ফেসবুকে বিকৃত যৌন হয়রানির স্ট্যাটাস কলেজছাত্রীর

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ফেসবুকে বিকৃত যৌন হয়রানির ভিডিওসহ একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন চট্টগ্রামের সরকারি মহসিন কলেজে পড়ুয়া এক ছাত্রী। ভিডিওতে দেখা যায়, এক তরুণ প্রকাশ্যে পরণের প্যান্ট খুলে হস্তমৈথুন করছে। স্ট্যাটাসটি ভাইরাল হয়েছে।

শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত স্ট্যাটাসটিতে তীব্র নিন্দা ও ক্ষোভ প্রকাশ করে অভিযুক্ত তরুণকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনার দাবি জানিয়ে সাত শতাধিক কমেন্টস পড়েছে। লাইক পড়েছে ২ হাজারেরও বেশি। শেয়ার করেছেন ৪ শতাধিক ফেসবুক ব্যবহারকারী।

স্ট্যাটাসে ওই ছাত্রী অভিযোগ করে বলেন, আমি পড়াতে যাই প্রতিদিন। মাথা নিচু করে কোনদিকে না তাকিয়ে যাওয়ার পরও সপ্তাহে অন্তত দুইবার এমন বিকৃতমনা লোকদের সঙ্গে দেখা হয়ে যায়। প্রতিবারই হয়তো চুপ করে, আর নয়তো নিচের দিকে তাকিয়ে চলে যাই।

কিন্তু আজ আর পারলাম না, কেন জানেন? কারণ আজকের ঘটনাটি আমাদের বাসার গেইটের পাশে ঘটেছে। তাই একটু সাহস করে ভিডিও করার চেষ্টা করলাম। আবার এটাও ভাবলাম ভিডিও করে লাভ কী? এমন হাজারও ভিডিও ফেসবুক-ইউটিউবে পাওয়া যাবে।

ওই তরুণী বলেন, এই অসভ্য কাণ্ডের ভিডিওটা যখন করছিলাম, তখন লোকটা একটুও ভয় পেলো না। বরং উনি আরও বেশি করে অসভ্য কাজটি করছিলো। পরে ভিডিও করা বন্ধ করে আব্বুকে ফোন করার ভান করতেই লোকটি আমাকে বলল, সরি, জাস্ট থিঙ্ক সরি। এ কথা শোনার পর মনে হলো কেউ একজন এসে কষে চড় মারলো আমাকে।

মহসিন কলেজে পড়ুয়া এই ছাত্রী বলেন, আমি মেয়ে। এমন এক সমাজে বসবাস করি আমরা, যেখানে আমাকে-আপনাকে শিখিয়েছে যাই হোক না কেন তুমি মাথা উঁচু করে কিছু বলবা না। কিছু যদি হয়েও যায় তুমি চুপ করে থাকবে। বাই অ্যানি চান্স কিছু বললে সব দোষ তোমারই হবে!

বুধবার রাতে আপলোড করা ভিডিওতে দেখা যায়, অভিযুক্ত তরুণ প্রকাশ্যে একটি বাসার সামনে পরণের প্যান্ট খুলে হস্তমৈথুন করছে। যা তরুণী তার বাসার সামনে বলে দাবি করেন স্ট্যাটাসে। তিনি এলাকাটি চট্টগ্রাম মহানগরীর চকবাজার এলাকায় বলে উল্লেখ করেন।

ওই তরুণী বলেন, ওই যুবকের এমন কাণ্ড এটাই প্রথম নয়, অসংখ্যবার এমন কাণ্ড করেছে। কখনও তার গোপনাঙ্গ প্রকাশ্যে দেখিয়ে, আবার কখনও অশ্লীল কথা ছুঁড়ে দিয়ে তাকে বিকৃত যৌন হয়রানি করে আসছে।

এ বিষয়ে কথা হয় চকবাজার থানার ওসি রুহুল আমীনের সাথে। তিনি বলেন, এ বিষয়ে তিনি অবগত নন। কেউ এ ব্যাপারে থানায় কোন অভিযোগও করেননি। বিষয়টি জানার চেষ্টা করছি। অভিযোগ করলে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া।