স্কুলছাত্রীকে আটকে রেখে রাতভর গণধর্ষণ, গ্যারেজ মেকানিক গ্রেপ্তার

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: গাজীপুরের সালনা এলাকায় সপ্তম শ্রেণি পড়ুয়া স্কুলছাত্রীকে হাত, পা ও মুখ বেঁধে গণধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি আরিফ ওরফে সবুজকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাব। গতকাল শুক্রবার রাতে সিটি করপোরেশনের তেলিপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়।

আজ শনিবার দুপুরে র‌্যাব-১ এর পোড়াবাড়ি ক্যাম্পে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এসব তথ্য তুলে ধরেন র‌্যাবের কোম্পানি কমান্ডার আব্দুল্লাহ আল মামুন। তিনি জানান, গ্রেপ্তার আরিফ ওরফে সবুজ শেরপুরের নালিতাবাড়ি থানার বরুড়াজানি গ্রামের মৃত খোরশেদ আলমের ছেলে। তিনি স্থানীয় টেকনগপাড়া এলাকায় ভাড়া বাসায় বসবাস করে গ্যারেজ মেকানিকের কাজ করতেন।

আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, গত ১ অক্টোবর রাত ১০টার দিকে সালনা এলাকায় স্থানীয় একটি স্কুলের সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী খাবার হোটেল থেকে একা বাসায় ফিরছিলেন। পথে দক্ষিণ সালনার তিন রাস্তার মোড় থেকে তাকে অপহরণ করে ওই এলাকার ভাড়াটিয়া বাসায় নেওয়া হয়। সেখানে ভিকটিমের হাত, পা, মুখ বেঁধে সারা রাত তিনজন ধর্ষণকারী পালাক্রমে গণধর্ষণ করে ও ধর্ষণের ভিডিও ও ছবি ধারণ করে। পরবর্তীতে ভোররাতে ভিকটিমকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার হাত, পা, রশি দিয়ে বেঁধে রেখে তার মুখে কসটেপ এবং গলায় ওড়না পেঁচিয়ে বক্সখাটের ভেতর আটক রেখে ধর্ষণকারীরা দ্রুত পালিয়ে যায়। ভিকটিমের গোঙ্গানীর শব্দে পাশের বাসার ভাড়াটিয়ারা ভিকটিমের পরিবারকে সংবাদ দিলে ঘটনার পরদিন সকালে গণধর্ষণের মূলহোতা আরিফ ওরফে সবুজের বন্ধু রাসেলের ভাড়া বাসার কক্ষের মধ্যে বক্সখাটের ভেতর থেকে হাত, পা, বাঁধা এবং গলায় ওড়না এবং মুখে কসটেপ পেচানো অজ্ঞান অবস্থায় ভিকটিমকে উদ্ধার করা হয়।

তিনি আরও জানান, পরে ভিকটিমের চিকিৎসার জন্য তাকে শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ভিকটিমের মা বাদী হয়ে জিএমপির সদর থানায় একটি গণধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে র‌্যাব-১ এর একটি দল গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তেলিপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে সবুজকে গ্রেপ্তার করে।

সবুজের বরাত দিয়ে র‌্যাব জানায়, ভিকটিম মারা গেলে লাশটি ট্রাকে করে নিয়ে দূরে কোথাও গিয়ে পানিতে ভাসিয়ে দিবে এমন পরিকল্পনার কথা জানিয়েছে সবুজ।