প্রায় ৮৩ বছর বয়সী রংগ খাতুনকে পেটের খাবার জোটে ভিক্ষার চালে

সাহারুল হক সাচ্চু: প্রায় ৮৩ বছর বয়সী বিধবা রংগ খাতুন। তার পেটের খাবার জোটে নিজের ভিক্ষার চাউলে। রান্না করে খেতে হয় নিজেকেই। এর জন্য প্রতিদিন সকালে বাড়ি থেকে ভিক্ষায় বেরিয়ে পরেন। তবে একটু সহানুভুতিতে নিজ সন্তান তাকে বিভিন্ন গ্রামে যেতে নিজ ভ্যানে নিয়ে পথে এগিয়ে দেয়। সরকারি বয়স্ক কিংবা বিধবা ভাতা কোনটিই রংগ খাতুনের নেই। সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ার নাগরৌহা গ্রামের রংগ খাতুনের জাতীয় পরিচয় পত্রে জন্ম তারিখ ১৯৩৭ সাল। এ হিসেবে তার বয়স প্রায় ৮৩ বছর। এক সময় উপজেলার কয়ড়া ইউনিয়নের কয়ড়া সরাতলা গ্রামের তার স্বামী দশারত প্রামানিকের নিজস্ব ভিটে বাড়ি ছিল। তার দু’সন্তানের মধ্যে ছেলে সন্তান এখন সদর উল্লাপাড়া ইউনিয়নের নাগরৌহা গ্রামে স্থায়ী ভাবে বসবাস করে। আর অপর মেয়ে সন্তানের বিয়ে হয়ে গেছে। প্রায় ৪৮ বছর আগে রংগ খাতুন বিধবা হয়েছেন বলে জানানো হয়। কয়ড়া সরাতলা গ্রামে তার স্বামীর ভিটে বাড়ি বলতে এখন আর কিছুই নেই। এখন বসবাসে আশ্রয় নিয়েছেন নাগরৌহা গ্রামে সন্তান রমজান আলীর বাড়িতে। এখানে আশ্রয় বলতে তাকে কোন মতে থাকার একটু ব্যবস্থা করে দেয়া হয়েছে। তার সন্তান রমজান আলী পেশায় একজন ভ্যান রিক্সা চালক। নিজ বাড়িতে মাকে থাকতে জায়গা দিলেও খাবার ও ভরণ পোষনে কোন কিছুই দেয়না বলে জানানো হয়। এদিকে পেটের খাবারের তাগিদে এত বছর বয়সে রংগ খাতুন ভিক্ষা করেন। তিনি প্রতিদিন সকালে বাড়ি থেকে বের হন। বর্তমান বসতি নাগরৌহা গ্রাম বাদে এ গ্রাম সে গ্রামে গিয়ে ভিক্ষা করে চাউল জোটান। তার ছেলে একটু সহানুভুতি দেখিয়ে নিজ ভ্যান রিক্সায় তুলে নিয়ে বিভিন্ন গ্রামের পথে নামিয়ে দিয়ে থাকেন। দিন শেষে রংগ খাতুন বাড়ি ফেরেন। বাড়ি ফেরাকালে সন্তানের ভ্যান রিক্সার অপেক্ষায় পথে বসে থাকেন বলে জানানো হয়। এক থেকে দু’সের চাউল ভিক্ষায় জোটে। আর ভিক্ষায় জোটানো চাউলে নিজেকেই ভাত রান্না করে খেতে হয়। তার সরকারি বয়স্ক কিংবা বিধবা কোন ভাতা আজও জোটেনি। তিনি ভাতা পেতে এলাকার জনপ্রতিনিধিদেরকেও জানাননি। প্রতিবেদককে জানানো হয়, শুধুমাত্র পেটের খাবারের তাগিদে এত বয়সেও কষ্ট হলেও ভিক্ষা করতে এ গ্রাম সে গ্রাম যান। এখন চোখে অনেক কম দেখেন। এছাড়া হাঁটা চলা করতেও বেশ কষ্ট হয়। তার সন্তান রমজান আলী জানায়, মায়ের জন্য কিছু করা এবং ভরণ পোষনের যাবতীয় কিছু করার ইচ্ছা থাকলেও তিনি তা করতে পারছেন না। উপজেলা সমাজসেবা অফিসার মোঃ আব্দুল মোত্তালিব বলেন, রংগ খাতুনের বিষয়টি কোন মাধ্যমেই তিনি জানতে পারেননি। তার বিভাগ থেকে যতদ্রুত সম্ভব বিধবা কিংবা বয়স্ক ভাতা পাওয়ার বিষয়ে উদ্যোগ নিবেন।