গণমাধ্যমে দুর্দিন চলছে , সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আঞ্চলিক সংবাদপত্র : জাফর ওয়াজেদ

জয়নাল আবেদীন: প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ বলেছেন, ‘গণমাধ্যমে দুর্দিন চলছে। এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত আঞ্চলিক সংবাদপত্র। এসব ঠিকে রাখতে রাষ্ট্রীয় পৃষ্টপোষকতা প্রয়োজন। নইলে মফস্বল সাংবাদিকতা ও সংবাদপত্র হুমকির মুখে পড়ার অশংকা রয়েছে’। শনিবার দুপুরে দিনব্যাপী রংপুর প্রেসক্লাবে শিশু ও নারী উন্নয়ন বিষয়ক সংলাপে তিনি এসব কথা বলেন।রংপুর বিভাগের আঞ্চলিক সংবাদপত্রের সম্পাদকদের নিয়ে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে পিআইবি। সভা প্রধান হিসেবে পিআইবি ডিজি বলেন, ‘এখন মিডিয়া মানে চ্যালেঞ্জ, টিকে থাকার লড়াই। করোনা দুর্যোগে আমরা মিডিয়ায় ব্যাপক পরিবর্তন দেখছি। বর্তমানে পত্রিকার পাঠক কমে গেছে। মানুষ এখন অনলাইন নির্ভর সংবাদপত্রে ঝুঁকে পড়েছে। পত্রিকা হাউসগুলোতে পরিবর্তন এসেছে। অনেক হাউস এখন অনলাইন হয়েছে। তারা স্টুডিও তৈরি করেছে। নিয়মিত ভিডিও রিপোর্ট, গোল টেবিল সভা, ভিজ্যুয়াল তথ্য প্রকাশ করছে। গণমাধ্যমের এই পরিবর্তন ঠিকে থাকার জন্য’। জাফর ওয়াজেদ আরও বলেন, ‘সাম্প্রতিক সময়ের নারী-শিশু নির্যাতন, নিপীড়ন, ধর্ষণসহ সহিংসতা বেড়ে যাওয়া সবার জন্যই উদ্বেগের। এই প্রেক্ষাপটে গণমাধ্যম কর্মীরা সামাজিক সচেতনতা সৃষ্টিতে সবেচেয়ে বেশি ভূমিকা রাখছে। সংবাদপত্রের কাজই এটা। শিশু ও নারীর প্রতি মানুষের লোভাতুর দৃষ্টিভঙ্গি বদলাতে হবে। তাদের অবস্থানকে নিরাপদ করতে হবে। সরকার যেমন আইনের মাধ্যমে চেষ্টা করছে, মিডিয়াকে রিপোটিংয়ের মাধ্যমে সেই কাজ করতে হবে’। সংলাপ অনুষ্ঠানে রংপুর প্রেসক্লাব সভাপতি রশীদ বাবুর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জেলার সেবক রংপুরের জেলা প্রশাসক আসিব আহসান মিতুল। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন রংপুর প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক সরকার।

দিনব্যাপী এই সংলাপ অনুষ্ঠানে রংপুর, কুড়িগ্রাম, গাইবান্ধা, লালমনিরহাট, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড় ও ঠাকুরগাঁও জেলা থেকে প্রকাশিত স্থানীয় সংবাদপত্রের সম্পাদক, নির্বাহী সম্পাদক ও উপদেষ্টা সম্পাদকসহ ৪০ জন অংশ নেন।