হাতিয়ায় কিশোরীকে ধর্ষণ, থানায় মামলা

বাংলাদেশ প্রতিবেদক: নোয়াখালীর বিচ্ছিন্ন দ্বীপ উপজেলা হাতিয়ার হরণী ইউনিয়নে এক কিশোরীকে (১৮) বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে করে তুলে নদীর পাড়ে নিয়ে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। ঘটনায় ওই কিশোরী বাদী হয়ে ধর্ষক হেলাল ও তার সহযোগী জামসেদকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেছেন।

মামলার পর অভিযান চালিয়ে ধর্ষক হেলাল উদ্দিনকে (৪০) গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার (২৬ অক্টোবর) ভোরে কাজিরটেক এলাকা থেকে হেলালকে গ্রেফতার করা হয়। হেলালের বাবার নাম মাহফুজুর রহমান। হেলাল পেশায় ভাড়ায় চালিত মোটরসাইকেল চালক। অপর আসামি জামসেদ (৩২) রহমতপুর গ্রামের বেলাল মাঝির ছেলে।

হাতিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো আবুল খায়ের বলেন, ঘটনায় রোববার ওই কিশোরী বাদী হয়ে হেলালকে প্রধান ও জামসেদকে দ্বিতীয় আসামি করে একটি মামলা দায়ের করেন। ইতোমধ্যে কাজিরটেক এলাকায় অভিযান চালিয়ে ধর্ষক হেলালকে ধরা হয়েছে। তাকে বিচারিক আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। হেলালের সহযোগী জামসেদকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

নির্যাতনের শিকার ওই তরুণীর অভিযোগের বরাত দিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও মোরশেদ বাজার পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক আব্দুল হালিম জানান, ১৮বছর বয়সী ওই কিশোরী পাশের জেলা লক্ষ্মীপুরে একটি বাসায় গৃহকর্মীর (কাজের মেয়ে) কাজ করতো। গত ৪-৫দিন আগে সে তার বাবার বাড়ি হাতিয়ার হরণী ইউনিয়নের পূর্ব রসুলপুর গ্রামে আসে। গত ২৪ অক্টোবর শনিবার রাত ১টার দিকে ওই কিশোরী প্রকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হলে আগে থেকে উৎপেতে থাকা হেলাল ও জামসেদ তাকে পেছন থেকে মুখ-হাত চেপে ধরে বাড়ির পাশের রাস্তায় নিয়ে মোটরসাইকেল যোগে চাম্মার ঘাট মেঘনা নদীর পাড়ে নিয়ে যায়। সেখানে জামসেদের সহযোগিতায় হেলাল উদ্দিন তাকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে।