কলাপাড়ায় শুটকি ব্যবসায়ীরা ক্ষতিগ্রস্থ

এস কে রঞ্জন: পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার পর্যটন কেন্দ্র কুয়াকাটায় নভেল করোনা ভাইরাসের প্রভাবে মুখ থুবরে পরেছে শুটকি ব্যবসায়ীরা। প্রতি বছর শুটকি ব্যববসায়ীরা লাভে থাকলেও এবারের শুরুটা হয়েছে ব্যবসায়িক ক্ষতি ও অনিশ্চয়তার মধ্য দিয়ে। গত তিন মাস ধরে শুটকী ব্যবসায়ীরা কোটি কোটি টাকার লোকসান দিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছে। ব্যবসায়ীদের দাবী সরকারী প্রণোদনা তথা এ ব্যবসার সাথে জড়িতদের মধ্যে স্বপ্ল সুদে ঋণের ব্যবস্থা করা। সরেজনিয়ে গিয়ে জানা যায়,নভেল করোনা ভাইরাসের কারনে বিক্রি হচ্ছে না শুটকি মাছ। ২৫ থেকে ৩০ কোটি টাকার শুটকি মাছ নষ্ট হয়ে পরে রয়েছে। ফলে নতুন করে ব্যবসা শুরু করতে গিয়ে আর্থিক সংকটে পড়েছে শুটকি ব্যবসায়ীরা। রপ্তানী করার জন্য বিগত বছরগুলোর মত প্রস্তুতি নিলেও মৌসুমের শুরুতেই নভেল করোনা ভাইরাসের কারনে বাঁধার সৃষ্টি হচ্ছে। পাঁচ মাস ধরে লকডাউন থাকার কারনে কোথাও মাছ রপ্তানী করতে পারেনী ব্যবসায়ীরা। একদিকে ব্যাংকের লোন পরিশোধের দুশ্চিন্তা অন্য দিকে নতুন করে মহাজনের কাছ থেকে দাদনের ফাঁদে শুটকি ব্যবসায়ীরা। তারা আর্থিক প্রণোদনা না পেলে তাদের বেশীর ভাগ ব্যবসায়ীদের ব্যবসা ছেড়ে দিতে হবে বলে জানিয়েছেন শুটকি ব্যবসায়ীসহ আড়ৎদাররা। হতাশার মাঝেও শুটকি পল্লীতে ব্যস্ত সময় পার করছে স্থানীয় কারিগরসহ দুরদুরান্ত থেকে আসা কর্মজীবিরা। মাচন (মাচা) তৈরি করে বিভিন্ন প্রজাতির মাছ প্রাকৃতিকভাবে তৈরি করা হয় এখানকার শুটকি পল্লীতে। গুনগত মান বজায় থাকার কারণে কুয়াকাটার শুটকির চাহিদা ব্যাপক। দেশের বিভিন্ন স্থানসহ ভারত,চায়না শুটকি রফতানি করা হয়ে থাকে। এই পল্লীতে প্রায় ৫ হাজার লোকের কর্মব্যস্ততা শুরু হয় অক্টোবর মাসে শেষ হয় মার্চ মাসে। স্থানীয় শুটকি ব্যবসায়ী নিজাম উদ্দিন জানান,শুটকি ব্যবসায় প্রচুর মূলধন লাগে। মৌসুম শুরু হওয়ার আগেই প্রায় সকল ব্যবসায়ীরা নিজেদের মূলধনের পাশাপাশি ধার করে লক্ষ লক্ষ টাকা এনে মাছ কিনে শুটকি করে এ ব্যবসা চালু করেন। এখান থেকে কিছু মাছ স্থানীয় শুটকি মার্কেটে বিক্রি হয় বেশির ভাগ রপ্তানী হয় বিভিন্ন দেশে। এবারে নভেল করোনার ভাইরাসের কারনে বেশিরভাগ শুটকি বিক্রি না হওয়ায় আমার ৭-৮ লক্ষ টাকা ক্ষতি হরে। শুটকি মার্কেট ব্যবসায়ী সোহেল মাহমুদ জানান, আমাদের এই মার্কেটে প্রতিটা দোকানে ১৫ থেকে ২০ লাখ টাকার মাছ পড়ে আছে কোন বিক্রি নেই। যে পরিমাণে লোকসান হচ্ছে তাতে কিভাবে ক্ষতি পোষাবো তা আমরা জানিনা। কলাপাড়া সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. জহিরুন্নবী জানান,কুয়াকাটা থেকেই প্রতি বছর ১৫০-২০০ কোটি টাকার মত শুটকি দেশে ও দেশের বাহিরে বিক্রি হয়। নিরাপদ ও মান সম্পন্ন শুটকি উৎপাদনের জন্য কুয়াকাটার ব্যাপক সুনাম রয়েছে। আমরা চেষ্টা করছি যাতে সরকারী প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় শুটকি ব্যবসায়ীরা আসতে পারে।