জি.এম.মিন্টু: যশোরের কেশবপুর উপজেলাব্যাপী বোরো ক্ষেত প্রস্তুত ও ধান রোপণে কৃষকরা দিন-রাত শ্রম দিচ্ছেন। ভালো ফলন পেতে জমি প্রস্তুতের সময় চাষেই ফসফেট/ডিএপি, পটাশসহ সমস্ত সার প্রয়োগ করতে হয়। এ সুযোগে বিসিআইসি ডিলাররা সিন্ডিকেট করে অধিক মুনাফা লাভের আশায় বাজারে সারের কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে এ সার বিক্রি করে দিচ্ছেন ঘের ব্যবসায়ীদের কাছে। ফলে কৃষকরা বাধ্য হচ্ছেন চড়া মূল্যে সার কিনতে। গত দুই মাস ধরে এ অবস্থা চললেও প্রশাসন কোন পদক্ষেপ না নেয়ায় বিসিআইসি ডিলাররা হাতিয়ে নিচ্ছেন কোটি টাকা। বর্তমান বাজারে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে প্রকাশ্যে প্রতিকেজী টিএসপি ৮ টাকা, ডিএপি- ৯ টাকা, ইউরিয়া-২ টাকা ও এমওপি-২ টাকা বেশী দরে বিক্রি হচ্ছে। যার ফলে এবছর রোরো ধানের সরকারি লক্ষ্যমাত্রা অর্জন হওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। বিপাকে পড়েছেন বোরো চাষিরা। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সারের মূল্য বৃদ্ধির কথা স্বীকার করে বলেন, বাজারে সারের কোন সংকট নেই। ব্যবসায়ীরা মিথ্যা কথা বলে বেশী দামে বিক্রি করছে। উপজেলা কৃষি অফিস জানায়, ১৫ আগস্ট থেকে ১৫ মার্চ পর্যন্ত সময়কে বোরো মৌসুম ধরা হয়ে থাকে। চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ১৪ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। সরকার সারের মূল্য নির্ধারণ করেছে প্রতিবস্তা টিএসটি- ১১০০ টাকা, ডিএপি- ৮০০ টাকা, এমওপি- ৮০০ টাকা ও ইউরিয়া- ৮০০ টাকা। সরকার নির্ধারিত মূল্যে কৃষকের কাছে সার বিক্রির জন্যে এ উপজেলায় ১৩ জন বিসিআইসি ডিলার চুক্তিবদ্ধ হয়েছেন। এছাড়াও ৮১ জন খুচরা সার বিক্রেতা রয়েছেন। এদের অনুকুলে ২০২০-২১ অর্থ বছরে বিসিআইসি ডিলাররা গত নভেম্বরে ইউরিয়া- ৩৩৮ টন, টিএসপি- ৫৮ টন, ডিএপি- ৪৯৬ টন, এমওপি- ৩১৭ টন, ডিসেম্বরে ইউরিয়া- ৫৮৫ টন, টিএসপি- ১৫০ টন, ডিএপি- ৫৩৭ টন ও এমওপি- ৩৪৩ টন উত্তোলন করেছেন। সারের চাহিদা দেয়া হয়েছে জানুয়ারীতে ইউরিয়া- ১৮০০ টন, ফেব্রæয়ারীতে ২ হাজার টন, ডিএপি জানুয়ারীতে- ৮‘শ টন, ফেব্রæয়ারীতে ৬‘শ টন। টিএসপি জানুয়ারীতে- ৩৫০ টন, ফেব্রæয়ারীতে ১৫০ টন ও মার্চে-১০০ টন। চাহিদার প্রায় সমপরিমান সার ডিলাররা প্রতিমাসে উত্তোলন করে থাকেন। এরপরও বর্তমান বাজারে সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে বস্তাপ্রতি টিএসটি-৪০০ টাকা, ডিএপি-৪৫০ টাকা বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে। পৌরসভার হাবাসপোল এলাকার কৃষক আব্দুল হামিদ জানান, জলাবদ্ধতার কারণে তার এলাকায় বোরো ধান ছাড়া আর কোন ফসল হয়না। তাই ভালো ফলন পেতে ইউরিয়া বাদে সমস্ত সার জমি প্রস্তুতের সময় চাষে দিতে হয়েছে। তিনি প্রতিবস্তা (৫০ কেজী) টিএসপি- ১৫০০ টাকা দরে, এমওপি- ৮৫০ টাকা, ইউরিয়া ৯০০ টাকা ও জিপসাম (৩০ কেজী)- ৩০০ টাকা দরে কিনেছেন। মজিদপুর গ্রামের কৃষক মশিয়ার রহমান, আব্দুল লতিফ জানান, তারা বস্তাপ্রতি ডিএপি- ১২৫০ টাকা দরে, এমওপি- ৮৫০, ইউরিয়া ৯০০ টাকা দরে কিনে জমিতে প্রয়োগ করেছেন। বিসিআইসি ডিলার মেসার্স সিংহ ট্রেডার্সের মালিক বিষ্ণুপদ সিংহ বলেন, কৃষকের চাহিদা অনুযায়ী সরকারিভাবে সারের বরাদ্দ পাওয়া যাচ্ছে না। সারের চাহিদা মেটাতে বাইরে থেকে বেশী দামে সার কিনে আনতে হচ্ছে। যে কারণে বাজারে সারের দাম বেশী। তবে এ সংকট থাকবে না। অপর বিসিআইসি ডিলার মেসার্স কনিকা এন্টারপ্রাইজের মালিক সাধন কুমার কুন্ডু বলেন, টিএসপির কোন সরকারি বরাদ্দ নেই। ২/১ জন ডিলার বিভিন্ন জায়গা থেকে বেশী দামে কিনে আনছে। তাই বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে। ডিএপিতে সরকার ভর্তুকি দিচ্ছে। এরপরও কেন বেশী দামে বিক্রি হচ্ছে তা তিনি জানেন না।

সরেজমিনে জানা গেছে, কেশবপুর উপজেলার প্রতিটি বিসিআইসি ডিলারের ৩/৪টি করে সারের গোডাউন রয়েছে। এসব গোডাউনে হাজার হাজার বস্তা টিএসপি, ডিএপি ও ইউরিয়া সার মজুদ রয়েছে। অথচ কৃষকরা যখন সার কিনতে যাচ্ছে তখন সংকটের অজুহাত দেখিয়ে তারা বেশী দামে বিক্রি করেছেন। কিন্তু কৃষকরা ভাউচার চাইলেই সার নেই বলে তাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। এসব সার রাতের বেলায় চড়ামূল্যে চলে যাচ্ছে মাছ ব্যবসায়ীদের ঘেরে। এ ব্যাপারে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মহাদেব চন্দ্র সানা বলেন, বাজারে সারের কোন সংকট নেই। ব্যবসায়ীরা মিথ্যা কথা বলে বেশী দামে সার বিক্রি করছে। কোন অবস্থাতেই বাজার নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছে না। গত ৩০ ডিসেম্বর সিংহ ট্রেডার্সে ৭৬ টন ডিএপি সার এসেছে। যা দিয়ে কেশবপুরের সমস্ত চাহিদা পূরণ করা সম্ভব। বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবহিত করা হয়েছে। তিনি পদক্ষেপ নিলে বাজার নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব। উপজেলা নির্বাহী অফিসার এমএম আরাফাত হোসেন বলেন, বেশী দামে সার বিক্রির কথা শুনেছি। কিন্তু আমরা ডিলারের দোকানে যেয়ে কোন প্রমাণ না পওয়ায় ব্যবস্থা নিতে পারছি না। যদি কেউ বেশী দামের ভাউচার আনতে পারে তাহলে পদক্ষেপ নেয়া হবে।