জয়নাল আবেদীন: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ও শীতকালীন প্রশিক্ষণ উপলক্ষে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ ওষুধ বিতরণ কার্যক্রম শুরু করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।এতে মায়েদের স্বাস্থ্য, গাইনী সমস্যা, শিশুরোগসহ বিভিন্ন বয়সী মানুষদের চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ বিনামূল্যে ওষুধ দেয়া হয়। বুধবার রংপুর সদর উপজেলার পাগলাপীর স্কুল এন্ড কলেজ প্রাঙ্গণে সেবামূলক এই কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ৬৬ পদাতিক ডিভিশন রংপুর সেনানিবাসের ৭২ পদাতিক ব্রিগেড ৩০ বীর এর পক্ষ থেকে মানুষদের চিকিৎসা সেবা প্রদানসহ বিনামূল্যে ওষুধ দেয়া হয়। দিনব্যাপি এ স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন রংপুর সেনানিবাসের ৭২ পদাতিক ব্রিগেডের কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল অং চ ছা মং। এসময় উপস্থিত ছিলেন- সেনাবাহিনীর ৭২ পদাতিক ব্রিগেড (৩০ বীর) এর কমান্ডিং অফিসার লে. কর্ণেল মো. হেদায়েতুল ইসলাম ক্যাপ্টেন মীর আলী একরাম, লেফটেন্যান্ট তনজিম ফাহিম হিমেল, সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার শেখ মাহাবুবুল মুর্শেদ, সিনিয়র ওয়ারেন্ট অফিসার হাবিবুর রহমান হাবিব। সেনাবাহিনীর দুই নারী চিকিৎসকসহ ৫ জনের একটি মেডিকেল টিম প্রায় দুই হাজার নারী-পুরুষ ও শিশু সহ বিভিন্ন বয়সের মানুষদের উন্নত স্বাস্থ্যসেবা ও বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষাসহ বিনামূল্যে ওষুধ প্রদান করেন। চিকিৎসকদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- সেনাবাহিনীর গাইনী এন্ড অবস বিশেষজ্ঞ লে.কর্ণেল জিনিয়া সুলতানা, সার্জিক্যাল বিশেষজ্ঞ কাজী শফিকুল আলম, মেডিসিন বিশেষজ্ঞ লে.কর্ণেল মাহফুজুর রহমান, ক্যাপ্টেন নাঈম ও ক্যাপ্টেন জান্নাত। এদিকে বিনামূল্যে সেনাবাহিনীর সদস্যদের কাছ থেকে চিকিৎসা সেবা ও ওষুধ পেয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন বেশির ভাগ মানুষ। পাগলাপীর বন্দরের এলাকার রহিমা বেগম বলেন, সেনাবাহিনী হামাক পাইসা ছাড়া ওসুদ দিল খোজ খবর নেইল তাতে হামরা খুব বাপজান । চিকিৎসা সেবা কার্যক্রম সম্পর্কে লে. কর্ণেল হেদায়েতুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনী সারাদেশে করোনা পরিস্থিতি শুরুর পরপরই সকল শ্রেণি পেশার মানুষকে করোনা সচেতন করতে সামাজিক দূরত্ব মানার পাশাপাশি, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও মাস্ক বিতরণসহ দরিদ্র দুস্থদের মাঝে খাদ্য সহায়তা ও স্বাস্থ্যসেবা প্রদান করে আসছে। তিনি আরও বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশত বার্ষিকী ও শীতকালীন প্রশিক্ষণ উপলক্ষে প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে রংপুর থেকে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকগণ এসে তাদের বিনামূল্যে চিকিৎসা কার্যক্রম করলেন এবং ওষুধ প্রদান করা হলো। তবে এ ধারাবাহিকতা জেলার সকল উপজেলা পর্যায়ে পর্যায়ক্রমে অব্যাহত রাখা হবে বলে তিনি জানান।