বাংলাদেশ প্রতিবেদক: ঝিনাইদহের সদর উপজেলার গান্না ইউনিয়ন পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিতা হত্যা ও বিস্ফোরক মামলায় ৯ বছর ধরে পলাতক। ২০১১ সাল থেকে পলাতক থেকেও তিনি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন। করছেন মাদক, সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশ। ভাস্কর্য ভাঙচুরের প্রতিবাদে করছেন প্রতিবাদ সমাবেশ।

যেখানে অংশ নিচ্ছেন জেলা আওয়ামী লীগের নেতারা। জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা। এত কিছুর পরও তিনি পেয়েছেন কমিউনিটি পুলিশিংয়ের জেলার শ্রেষ্ঠ চেয়ারম্যানের পুরস্কার। জানাজানি হওয়ার পর যা হতবাক করেছে জেলার সর্বস্তরের মানুষকে।

অথচ দীর্ঘ ১০ বছর পেরিয়ে গেলে হত্যার বিচার না পাওয়ায় হতাশা বিরাজ করছে নিহত যুবলীগ নেতার পরিবারে।

জানা যায়, ২০১০ সালে ৭ জুলাই সন্ধ্যায় ঝিনাইদহ সদর উপজেলার গান্না বাজার থেকে কাশিমনগর বাড়ি ফেরার পথে খালের ব্রিজের ওপরে বোমা হামলায় মারাত্মক আহত হন গান্নার তৎকালীন ইউনিয়ন যুবলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক জাকির হোসেন মণ্ডল শান্তি। এর তিন দিন পর ঢাকায় চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান তিনি। এ ঘটনায় ঝিনাইদহ সদর থানায় একটি বিস্ফোরক ও আরেকটি হত্যা মামলা দায়ের করেন নিহতের শ্বশুর সিরাজুল ইসলাম।

ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৮ আসামিকে পুলিশ গ্রেফতার করে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্য থেকে চার আসামি নাসির মালিতার অর্থায়নে যুবলীগ নেতাকে হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেয়। মামলার ৯নং আসামি হয়ে যান নাসির মালিতা। এরপর ২০১১ সালের ২৪ অক্টোবর মামলার চার্জশিট জমা দেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা। তাতেও চেয়ারম্যান নাসির মালিতাসহ ১১ জনকে অভিযুক্ত করা হয়। আদালতে চার্জশিট জমা হলে আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে বিচারক। সেই থেকে চেয়ারম্যান নাসির মালিতাসহ চার আসামি পলাতক।

এ ব্যাপারে আদালতে হাজির হওয়ার জন্য পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করে। কিন্তু এর মধ্যে নাসির মালিথা কূটকৌশল অবলম্বন করে ভুয়া রিকল থানায় জমা দিয়ে পার পেয়ে যান। বিষয়টি বর্তমানে ঝিনাইদহ অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতের নজরে আসলে নতুন করে দুটি মামলায় পলাতক আসামিদের বিরুদ্ধে পুনরায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেছেন।

দীর্ঘ ১০ বছরে হত্যা মামলা বিচার না পেয়ে হতাশা বিরাজ করছে ভুক্তভোগী পরিবারের মাঝে। মামলার বাদী সিরাজুল ইসলাম মালিতা বলেন, এত বছর হয়ে গেল। আজও হত্যার বিচার হলো না। চেয়ারম্যান নাসির পলাতক দেখিয়েছে। কিন্তু সে নির্বাচন করল। নির্বাচনে জিতল। এলাকায় এখনও ঘুরে বেড়াচ্ছে। আমি দ্রুত এ হত্যার বিচার দাবি করছি।

এ ব্যাপারে মামলার পলাতক আসামি চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন মালিতার বলেন, হাইকোর্ট থেকে জামিন নিয়ে বাদীপক্ষের সঙ্গে ওই সময় মামলাটি আপসে মীমাংসা করি। আমি পলাতক নই এবং এটি আমার বিরুদ্ধে নতুন করে ষড়যন্ত্র করা হচ্ছে।

এ ব্যাপারে সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মিজানুর রহমান বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে আমার জানা নেই। তবে খোঁজখবর নিয়ে দেখছি।