বাংলাদেশ প্রতিবেদক: চাকরি দেয়ার নাম করে প্রতারণা, হয়রানির চেষ্টা ও ধর্ষণ মামলায় বনানীর আলোচিত ব্যবসায়ী জহুরুল ইসলাম জহির গ্রেফতার হয়েছেন। মঙ্গলবার (১৯ জানুয়ারি) রাত দু’টায় রাজধানীর পল্লবী এলাকার বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। উত্তরা পশ্চিম থানার অফিসার ইনচার্জ তপন চন্দ্র সাহা গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে নারী ও শিশু অপরাধ ট্রাইব্যুনালের নির্দেশে থানা মামলা গ্রহণের পর জহিরকে গ্রেফতারে পল্লবী থানা পুলিশের সহযোগিতা নিয়ে অভিযানে নামে পুলিশ।

মামলার এজহারে দেয়া অভিযোগ থেকে জানা যায়, বনানীতে বসবাসকারী এক নারীকে চাকরি দেয়ার নাম করে প্রতারণা, নানাভাবে হয়রানি ও ধর্ষণ করে আসছিলেন বনানীর আলোচিত ব্যবসায়ী, এডাব্লিউআর নামে একটি কনস্ট্রাকশন প্রতিষ্ঠানে চাকরিরত কর্মকর্তা জহুরুল ইসলাম জহির। তার হাত থেকে রক্ষা পেতে বনানী থানায় গত ২২ ডিসেম্বর জিডি-ও করেছিলেন ওই নারী। বিষয়টি নিয়ে বনানী থানায় মামলা দায়েরের চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে আদালতের শরণাপন্ন হলে গত ১৯ জানুয়ারি ঢাকায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল রাজধানীর উত্তরা পশ্চিম থানাকে মামলা গ্রহণ করে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।

মঙ্গলবার রাতে থানা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা গ্রহণ করে, যার নম্বর- ৩১ (১৯/০১/২০২১)। এরপরই পুলিশ এই মামলার আসামি জহিরকে গ্রেফতারে অভিযান চালায়।

বনানীর এই ব্যবসায়ী বিভিন্ন ঘটনার জন্যে সমালোচিত ছিলেন। তিনি নিজেকে রাষ্ট্রের ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে জাহির করতে পুলিশ এবং সেনাবাহিনীর শীর্ষ কর্মকর্তাদের বন্ধু বলে মিথ্যা পরিচয় দিতেন। তার বিরুদ্ধে চাকরি দেয়ার নাম করে একাধিক নারীর সঙ্গে প্রতারণা ও হয়রানি করার অভিযোগ রয়েছে বলে জানা গেছে।

জহুরুল ইসলাম জহির স্ত্রী-সন্তান রেখে নামকাওয়াস্তে বিয়ে করেছিলেন মামলা দায়ের করা এই নারীকে। গত বছরের ১৪ ডিসেম্বর তাকে তালাক দেন তিনি। তালাকের বিষয়ে কিছুটা বিচলিত হলেও তা মেনে নিয়েই নিজে ঘুরে দাঁড়ানোর চেষ্টা করেন আইন বিভাগে পড়ুয়া মেধাবী ওই নারী। তালাক দেয়ার পরও ওই নারীকে ধর্ষণ করেন জহির। এছাড়াও তিনি ওই নারীকে হেনস্তা করতে নানাভাবে হয়রানি করে আসছিলেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। এতে করে ওই নারী তার পরিবার নিয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। বিষয়টি জানিয়ে বনানী থানায় গত ২২ ডিসেম্বর তিনি একটি সাধারণ ডাইরিও করেছিলেন (১৩৭৪) ওই নারী।