তাবারক হোসেন আজাদ: কোটি টাকা ব্যায়ে নির্মিত লক্ষ্মীপুরের রায়পুরে আখনবাজার থেকে কালু বেপারির হাট সড়কের ডাকাতিয়া নদীর উপর নির্মিত-সেতুর দুই পাশে এ্যাপ্রোস সড়ক নেই। এতে সড়ক পারাপারে চরম দুর্ভোগে রয়েছে গ্রামবাসি ও পথচারি।-যে কোন মুহুর্তে ধ্বসে গিয়ে মূল সেতু থেকে সংযোগ রাস্তার যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যেতে পারে।

বুধবার (২৮ জানুয়ারী) সরজমিনে দেখা যায়, বালু দশ্যুদের বালুবাহী ট্রলি স্থানীয়দের আপত্তিকে তুচ্ছ করে এপ্রোচ সড়কের ঢালুতে উঠিয়ে দিয়ে চলাচল করার কারণে এমন ক্ষতি হয়েছে বলে স্থানীয় প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ।

সংবাদ জানার পর স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি উপসহকারি প্রকৌশলীর মতে, চরম ঝুকির মধ্যে পড়েছে এপ্রোচ সড়কটি। দ্রুত ব্যবস্থা না নিলে অপুরনীয় ক্ষতির আশংকা রয়েছে। কারণ সমতল ভুমি থেকে ১৫ বা ২০ফুট উচ্চতার এই এপ্রোস সড়ক ধ্বসে পড়লে স্থানীয় জনবসতি চাপা পড়ার ঘটনার সাথে প্রানহানীর আশংকাও রয়েছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, দক্ষিন চরবংশি ইউপিবাসির দাবিতে প্রায় ১০ বছর পূর্বে কোটি টাকা ব্যয়ে এলজিইডির তত্ত্বাবধানে সেতু জনগনের চলাচলের জন্য নির্মান করা হয়েছে। সেতুটির উপর যতরকম অত্যাচার ও ক্ষতির কারণ একমাত্র বালুবাহী ট্রলি ও নদীর দুই পাশের ভাঙ্গন। ইতোপূর্বে স্থানীয়রা একাধিকবার আপত্তি ও প্রতিবাদ জানালেও কিছুই তোয়াক্কা করেনি বালুখোর চক্র।

এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান আবু সালেহ মিন্টু ফরাজি বলেন, ওইখানে ব্রীজের ঢালু ধ্বসে গেছে। এলজিইডির প্রকৌশলি কাগজপত্র সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে পাঠিয়েছেন বলে তারা জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ড রায়পুরের উপ-সহকারি প্রকৌশলী আলমগির হোসেন বলেন, ব্রিজের রিভার্টমেন্ট জোন এলাকা থেকে কোন ভাবেই বালু বা মাটি কাটা যাবে না। এরা কে বা কারা এখানে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করে ব্রীজকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে তা খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এলজিইডির রায়পুর প্রকৌশলী হারুনুর রশিদ বলেন, এ ব্রীজটির এপ্রোসসহ রাস্তাটি-সলিং করার বাজেট সংশ্লিষ্ট মন্ত্রনালয়ে পাঠানো হয়ে। আপাতত মানুসের চলাচলের জন্য ইউপি চেয়ারম্যান ইউএনও’র কাছে আবেদন দিলে ব্যবস্থা করবো।।