কায়সার হামিদ মানিক: তৃতীয় দফায় স্বেচ্ছায় নোয়াখালীর ভাসানচরের পথে রওনা দিয়েছেন উখিয়া থেকে ৩৫টি বাসে যোগে ১৭৮৩ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ ও শিশু।

কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের বিভিন্ন শিবির থেকে বৃহস্পতিবার দুপুর ও বিকাল ৩ টার দিকে উখিয়া ছেড়েছে রোহিঙ্গাদের একটি দল। চট্টগ্রামের উদ্দেশে তাদের নিয়ে যাওয়া হয়েছে। শুক্রবারও এ প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবেন বলে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন কক্সবাজার অতিরিক্ত শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোঃ শামসুদ্দৌজা।

তিনি জানান, স্বেচ্ছায় যেতে আগ্রহী এমন প্রায় পাঁচ হাজার রোহিঙ্গার তালিকা তৈরি করা হয়েছে। প্রথমে শিবির থেকে চট্টগ্রামে নৌবাহিনীর জেটিঘাটে, পরে সেখান থেকে ট্রলারে করে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হবে।

জানা গেছে, উখিয়া ও টেকনাফের ৩৪টি রোহিঙ্গা শিবিরে ১২ লাখের অধিক রোহিঙ্গা রয়েছে। তাদের মধ্যে ভাসানচরে যেতে ইচ্ছুকরা সংশ্লিষ্ট শিবিরে দায়িত্বরত সরকারি কর্মকর্তার (সিআইসি) নিকট তালিকা জমা দিয়েছেন।

স্বরাষ্ট্র, দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের তথ্যানুযায়ী, সরকার এক লাখ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে স্থানান্তরের পরিকল্পনা নিয়েছে। এর অংশ হিসেবে এ পর্যন্ত দুই দফায় ৪০৬টি পরিবারকে সেখানে স্থানান্তর করা হয়েছে।

বুধবার ভাসানচর যাওয়ার উদ্দেশে রোহিঙ্গারা উখিয়ার ডিগ্রী কলেজের ট্রানজিট ক্যাম্পে পৌঁছেন।ওখান থেকে ১৭৮৩ জন রোহিঙ্গা নারী-পুরুষ,শিশু বৃহস্পতিবার দুপুর ও বিকালে ৩৫ টি বাস যোগে ভাসানচরের উদ্দেশে উখিয়া ত্যাগ করেন।শুক্রবার ও আরো একটি রোহিঙ্গা দল ভাসানচরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম পৌঁছবেন।

কুতুপালং ক্যাম্পের রোহিঙ্গা নেতা মোঃ জিয়া ১৭৮৩ জন রোহিঙ্গা উখিয়া ত্যাগ করলেও শুক্রবার যাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছে আরো ৩৫২ রোহিঙ্গা।

তৃতীয় দফায় দুদিনে রোহিঙ্গাদের বিশাল দল স্বেচ্ছায় ভাসানচরে যাওয়ার সময় আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ও প্রশাসনিক কর্মকর্তারা তাদের নিরাপত্তা ও প্রয়োজনীয় সহায়তা দিচ্ছে।

সূত্রে জানায়,শুক্রবার উখিয়ার কুতুপালং ক্যাম্প -৬,৭,২০,২০ এক্সস্টশন,৪ এক্সস্টশন,১৭, ৮ ডব্লিউ ও ৫ নং ক্যাম্প থেকে রোহিঙ্গাদের উখিয়ার ট্রানজিট ক্যাম্পে আনা হবে।

কক্সবাজার জেলা প্রশাসক মোঃ মামুনুর রশীদ জানান,দুই দিনে তিন হাজার রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়ার জন্য রোহিঙ্গা সংশ্লিষ্টরা কাজ করছে।

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর প্রথম ধাপে এক হাজার ৬৪২ জন এবং ২৯ ডিসেম্বর দ্বিতীয় ধাপে এক হাজার ৮০৪ জনসহ মোট তিন হাজার ৪৪৭ রোহিঙ্গাকে ভাসানচরে নিয়ে যাওয়া হয়।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ২৫ আগস্ট পরবর্তী মিয়ানমারে নির্যাতন ও নিপীড়নের শিকার হয়ে এ দেশে পালিয়ে আশ্রয় নেয় ১২ লক্ষাধিক রোহিঙ্গা। এসব রোহিঙ্গা কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি ক্যাম্পে আশ্রয় নেয়।

Previous articleসিংগাইরে সন্ত্রাসীরা চাঁদা না পেয়ে জমির ফসল নষ্ট করে দখলের চেষ্টা
Next articleনৌকার প্রার্থীর পক্ষে কাজ না করায় পাবনা সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামীলীগের কমিটি স্থগিত
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।