বাংলাদেশ প্রতিবেদক: সন্তানের ভরণপোষণ না দিতে পেয়ে ১৪ মাসের কোলের শিশুকে পানিতে ফেলে দিলেন এক মা। পানিতে ভাসতে থাকা শিশুটিকে উদ্ধার করেছে এলাকাবাসী।

শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) সকাল ৯টার দিকে কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার বলদিয়া ইউনিয়নের কাশিমবাজার এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

শিশুটি এখন রফিকুল ইসলাম ও এলিনা বেগম দম্পতির কাছে রয়েছে। এলিনা বেগম তার বুকের দুধ শিশুটিকে পান করিয়েছেন। ফলে শিশু জাহিদ এখন সুস্থ আছে।

এদিকে শিশু জাহিদের মা জমিলা বেগম দাবি করেছেন, লাঞ্ছনা-গঞ্জনা আর অভাবের তাড়না সইতে না পেরে রাগে-দুঃখে-অভিমানে কোলের ছেলেকে পানিতে ফেলে দিয়েছেন।

জমিলা বেগম জানান, দুমাস বয়সী শিশু জাহিদসহ এক বছর আগে রংপুর থেকে তার স্বামী হাফিজুর তাকে তাড়িয়ে দেয়। নিরুপায় হয়ে বলদিয়া ইউনিয়নের পূর্ব কেদার গ্রামে দরিদ্র বাবা জয়নাল মিয়ার বাড়িতে এসে আশ্রয় নেন। দিনমজুর বাবার সংসারে অভাব অনটন থাকায় শিশু জাহিদের ভরণপোষণ নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়। এজন্য তাকে শারীরিক এবং মানসিক নির্যাতন সইতে হতো। এ কারণে জাহিদকে পানিতে ফেলে মেরে ফেলার চিন্তা তার মাথায় আসে বলে জানায় জমিলা।

জমিলার বাবা জয়নাল মিয়া বলেন, প্রায় ৩ বছর আগে রংপুরে মর্ডান মোড় এলাকার ভরতো কবিরাজের ছেলে হাফিজুরের সঙ্গে জমিলার বিয়ে হয়। এরপর দুই মাস বয়সী শিশু জাহিদসহ জমিলাকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয় তার স্বামী। এ অবস্থায় জমিলা সন্তানসহ তার কাছে চলে আসেন।

তিনি আরও জানান, এর আগে একইভাবে ৩ সন্তান নিয়ে বড় মেয়ে জরিনা তার বাড়িতে এসে আশ্রয় নিয়ে আছে। সব মিলিয়ে ৯ সদস্যের সংসার দিনমজুরি করে চালাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন।

জমিলার মা জাবেদা বেগম জানান, জমিলার ছেলেকে নিয়ে বাড়িতে ঝগড়া লেগেই থাকতো। ওই ছেলের খরচ দিতে চাইতো না তার বাবা।

জমিলার নানী বৃদ্ধা সুফিয়া বেওয়া জানান, তিনি ভিক্ষা করে যে চাল পেতেন-তাই মাঝে মাঝে জাহিদের খরচ চালানোর জন্য দিতেন।

এলাকাবাসী জানান, শুক্রবার সকালে সকলের আড়ালে দুই কেজি চাল বিক্রি করে জাহিদের জন্য খাবার-তেল-সাবান কিনে আনলে তার বাবা রাগারাগি করে এবং বাড়ি থেকে চলে যেতে বলেন। এরপর বাড়ি থেকে এক কিলোমিটার কাশিম বাজার সংলগ্ন রাস্তার ব্রিজ থেকে জাহিদকে পানিতে ফেলে দেওয়ার ঘটনা ঘটে।

প্রত্যক্ষদর্শী দুলাল হোসেন বলেন, বাড়ি থেকে কাশিম বাজার যাওয়ার পথে দেখেন একজন মহিলা ব্রিজের ওপর থেকে ২০ ফুট নিচের পানিতে কিছু ফেলে দিয়ে দ্রুত চলে যায়। এ অবস্থায় কাছে গিয়ে দেখেন একটি শিশু পানিতে ভাসছে। এ সময় চিৎকার শুরু করলে লোকজন এসে ফেলে দেওয়ার ২০ মিনিট পর শিশুটিকে উদ্ধার করে।

বলদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোখলেছুর রহমান জানান, শিশুটি বর্তমানে রফিকুল ইসলাম ও এলিনা বেগম দম্পতির কাছে আছে। শিশু জাহিদকে তার মায়ের কাছে ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

এ বিষয়ে শুক্রবার বিকেল মোবাইল ফোনে ভূরুঙ্গামারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা দীপক কুমার দেব শর্মা জানান, তিনি ঘটনাটি শোনার সঙ্গে সঙ্গে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য ইউনিয়নের চেয়ারম্যানকে বলেছেন।

তিনি আরও জানান, বিষয়টি খতিয়ে দেখে পরিবারটিকে সব ধরণের সহায়তা দেওয়া হবে।

Previous articleপাঁচবিবিতে সাংবাদিকের বাড়ী ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা, নিরাপত্তা চেয়ে থানায় অভিযোগ
Next articleমাদারীপুরে র‌্যাবের হাতে গাঁজাসহ একজন মাদক ব্যবসায়ী আটক
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।