তাবারক হোসেন আজাদ: উপজেলা চেয়ারম্যান শরাফ উদ্দিন আজাদ সোহেল ও ইউএনও আবদুল মোমিন সরকারি নির্দেশনা অমান্য করে লক্ষ্মীপুর-৪ (রামগতি ও কমলনগর) আসনের এমপি মেজর (অব.) আবদুল মান্নানের পরামর্শে রামগতিতে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী প্রতিমাসের দ্বিতীয় সপ্তাহের বৃহস্পতিবার এ সভা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা।

কিন্তু সোমবার (১ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে উপজেলা পরিষদের মিলনায়তনে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়।

১০ দিন আগে অনুষ্ঠিত এ সভা নিয়ে সরকারি বিভিন্ন বিভাগের কর্মকর্তা ও কমিটির সদস্যদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়ছে।

এদিকে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরাফ উদ্দিন আজাদ সোহেলের কয়েকটি কাজের তদন্তে ত্রুটি পেয়েছেন ইউএনও আবদুল মোমিন। ত্রুটিগুলো সভায় উপস্থাপন করলেই ইউএনওর ওপর চওড়া হন চেয়ারম্যান। এনিয়ে এমপি আবদুল মান্নানের সামনেই চেয়ারম্যান- ইউএনওর মধ্যে উত্তপ্ত বাদানুবাদের ঘটনা ঘটেছে।

মঙ্গলবার দুপুরে (২ ফেব্রুয়ারী) নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সভায় উপস্থিত দুই জন সদস্য ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন।

অন্যদিকে আইন অনুযায়ী নির্দিষ্ট সময়ের আগে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভা নিয়ে সদস্যদের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। নির্বাচিত হওয়ার পর থেকেই এমপি আবদুল মান্নান রামগতি-কমলনগরে প্রশ্নবিদ্ধ। লক্ষ্মীপুরের এমপি হলেও সম্প্রতি সংসদে দাঁড়িয়ে এমপি মান্নান পাশের জেলা নোয়াখালীর মেঘনা নদী ভাঙনের চিত্র তুলে ধরেন। কিন্তু তার নির্বাচনী এলাকা রামগতি ও কমলনগর নদীভাঙন কবলিত। প্রতিনিয়ত বিস্তির্ণ এলাকা তলিয়ে যাচ্ছে। শুষ্ক মৌসুমেও রয়েছে অব্যাহত ভাঙন।

কিন্তু নোয়াখালীর ভাঙন নিয়ে সংসদে কথা বলায় লক্ষ্মীপুরবাসীর কাছে সমালোচিত মান্নান এমপি। নদীভাঙন রোধে নির্বাচনের আগে দেয়া প্রতিশ্রুতির কথা তিনি ভুলে গেছেন বলে সচেতন মহলের দাবি।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সূত্র জানায়, সোমবার আদালতে চেয়ারম্যান সোহেলের একটি মামলার হাজিরা ছিল। সেখানে উপস্থিত হলে তার জামিন নামঞ্জুর হওয়ার আশংকা ছিল। এজন্যই তিনি এমপি মান্নানকে দিয়ে নিয়ম অমান্য করে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভার আয়োজন করেছেন।

সভায় চেয়ারম্যান সোহেল সভাপতিত্ব করেন। কিন্তু সভায় সোহেল চেয়ারম্যানের কয়েকটি কাজের অনিয়ম-দুর্নীতির তদন্তে ত্রুটির বিষয় উন্মোচন করেন ইউএনও আবদুল মোমিন। এতেই ইউএনওর ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন চেয়ারম্যান। পরে এমপির সামনেই তারা উত্তপ্ত বাদানুবাদে জড়িয়ে পড়ে ও পরে এমপি তাদের শান্ত করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) আবদুল মোমিন জানান, সভায় চেয়ারম্যানের কয়েকটি কাজের তদন্তের বিষয় উপস্থাপন করা হয়েছে। সেখানে সামান্য কথা কাটাকাটি হয়। এমপির পরামর্শে নির্দিষ্ট সময়ের আগে সভার আয়োজন করা হয়।

রামগতি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান শরাফ উদ্দিন আজাদ সোহেল জানান, এমপি এলাকায় উপস্থিত ছিলেন। তার পরামর্শ ও উপস্থিতিতে আইন- শৃঙ্খলা কমিটির সভা করা হয়েছে। আমার কয়েকটি কাজের ত্রুটি ইউএনও উপস্থাপন করেছেন। ইউএনওর সাথে আমার বিরোধ নেই।

Previous articleস্বামীর সঙ্গে ঝগড়া করে মধ্যরাতে ঘর থেকে বেরিয়ে ধর্ষণের শিকার গৃহবধূ
Next articleপেট্রোপোলে আন্দোলন প্রত্যাহার, বেনাপোল বন্দরে বানিজ্য সচল
আজকের বাংলাদেশ ডিজিটাল নিউজ পেপার এখন দেশ-বিদেশের সর্বশেষ খবর নিয়ে প্রতিদিন অনলাইনে । ব্রেকিং নিউজ, জাতীয়, আন্তর্জাতিক রিপোর্টিং, রাজনীতি, বিনোদন, খেলাধুলা আরও অন্যান্য সংবাদ বিভাগ । আমাদের হাত বাধা নেই, আমাদের চোখ খোলা আমরা বলতে পারি ।